অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে এক পশুর হাটে চাঁদা না পেয়ে ইজারাদারের মাইকিং কাজে বাধা, মারধর ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে এক যুবদল নেতার বিরুদ্ধে। ওই যুবদল নেতার নাম মো. তৌহিদুল ইসলাম ফয়সাল।

সে বাউফল পৌর যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং পৌরসভার ৪,৫,৬ নম্বর সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর কাজী সামসুন্নাহার রিপার স্বামী। গত বৃহস্পতিবার দুপুর আনুমানিক দেড়টার দিকে বাউফল থানার সামনে ওই হামলার ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর বাউফল থানায় অভিযোগ দিলে তিন দিন পার হয়ে গেলেও পুলিশ এখনো মামলা রুজু করেনি বলে ইজারাদার অভিযোগ করেন। মারধরের শিকার মো.মামুন হাওলাদার বলেন, কোরবানি উপলক্ষে ১ লাখ ২০হাজার টাকায় উপজেলার বিলবিলাস আবদুর রশিদ সরদার মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে অস্থায়ী পশুর হাটের ইজারা নেয় মো. নওতাজ মোজাদ্দার নামের এক ব্যক্তি। গত বৃহস্পতিবার আমি ওই পশুর হাটের মাইকিং করতে গিয়ে দুপুরের দিকে থানার সামনে পৌঁছালে মাইকের শব্দে ফয়সালের ঘুমে ব্যঘাত ঘটছে এমন অভিযোগে আমাকে অকাথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং লাঠি ও ইট দিয়ে মারধর করে মোবাইল ফোন নিয়ে যান। ওই পশুর হাটের ইজারাদার মো. নওতাজ জোমাদ্দার বলেন, ফয়সাল পশুর হাট থেকে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। টাকা না দিলে হাট চালাতে দিবেন না বলে হুমকিও দেয়। ঘটনার দিন আমার লোকজন হাটের মাইকিং করতে গেলে থানার সামনে পুলিশের উপস্থিতিতে মামুনকে লাঠি-মোটা এবং ইট দিয়ে মারধর করে ফয়সাল এবং তার স্ত্রী বাউফল পৌরসভার ৪,৫,৬ নম্বর সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর কাজী সামসুন্নাহার রিপা । এসময় তারা মাইকিং কাজে ব্যবহৃত একটি স্যামসং এ৩০এস মডেল এবং একটি ওয়ালটন এসসি২ বাটন মোবাইল ছিনিয়ে নেয়। এঘটনা আমি বাউফল থানায় মামলা করতে গেলে ওসি মামলা নিতে অস্বীকৃতি জানায়। বিষয়টি পটুয়াখালী পুলিশ সুপারকে জানালে বাউফল থানা পুলিশ অভিযোগ জমা নেন। তবে আমার লিখিত অভিযোগ বাদ দিয়ে ওসি নিজের মনগড়া অভিযোগপত্র লিখেন। যার মধ্যে চাঁদা দাবির বিষয়টি উল্লেখ করেননি। এছাড়া ঘটনার পর তিন দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও এখনো ওসি অভিযোগটি এজাহারভূক্ত করেননি। এবিষয়ে তোহিদুল ইসলাম ফয়সাল জানান, প্রতিপক্ষের সাথে আমাদের জমিজমা সংক্রান্ত দ্বন্দ্বের জেরে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করছে। তবে মারধরের ঘটনা স্বীকার করে ওই যুবদল নেতা ফয়সাল বলেন, আযানের সময় মাইক প্রচার করছিল। এতে আমি মাইক প্রচার বন্ধ রাখতে বললে আমার সাথে অসৌজন্যমুলক আচারণ করে। বাউফল থানার ওসি আল মামুন বলেন, চাঁদা দাবির ঘটনার কোন সত্যতা পাইনি। মাইক প্রচারে হাতাহাতির ঘটনা হয়েছে।

অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। মামলা নিচ্ছেন না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মামলা নেওয়ার মত ঘটনা হলে মামলা নিব। বাউফল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকির হোসেন বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশুর হাট পরিচালনার অনুমতি দেয়া হয়েছে। পশুর হাটে চাঁদাবাজির অভিযোগের বিষয়ে পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

Previous articleএবার ঢাকায় ডেঙ্গু রোগী শনাক্তের রেকর্ড
Next articleরাজারহাটের জংলি টগর ফুল শুভ্রতা ছড়াচ্ছে শহরে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।