ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় চেয়ারম্যান, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে ভিজিএফ চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। চাল বিতরণের সময় প্রকৃত সুবিধাভোগীদের দফায় দফায় মারপিট করেন চেয়ারম্যানের লোকজন।

মাত্র ৩ ঘন্টায় ৬৩০ জন সুবিধাভোগীর মাঝে চাল বিতরন নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। জানা যায়, প্রতিবছরের ন্যায় এবারো উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নে পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে ৭হাজার ২শত ৪৫ জন দুস্থ লোকের বিপরীতে ৭২.৮ মেট্রিক টন চাল বরাদ্ধ দেয়া হয়। পবিত্র ঈদুল আযহার পূর্বেই বরাদ্ধপ্রাপ্ত চালগুলো দুস্থদের মাঝে বিতরন করার কথা থাকলেও বিতরন করেন মাত্র ১২শ ৪৩ বস্তা চাল। অবশিষ্ট ২ শ ১৩ বস্তা চাল মজুত থাকে ইউনিয়ন পরিষদ গোডাউনে। গত মঙ্গলবার(২৭ জুলাই) অবশিষ্ট চাল দেয়ার জন্য সকাল ১০ টায় লোকজন ডাকলেও দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দুপুর ২ টায় এসে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চাল বিতরন করনে। তিনি মাত্র ৩ ঘন্টায় ৬শ ৩০ জন সুবিধাভোগীর মাঝে ১০ কেজি করে চাল বিতরন করেন। পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সিন্ধান্ত অনুযায়ী মাইকিং করে স্থানীয় লোকজনকে ডেকে চাল বিতরন শুরু করেন। প্রকৃত সুবিধাভোগীরা লাইনে থাকা অবস্থায় সুবিধাভোগীর মাঝে ১ বস্তা চাল দিতে চেয়ারম্যানের নিজস্ব লোকের মাধ্যমে ৫বস্তা চাল কাগজে কলমে বিতরনসহ গোডাউন খালি করেন। সুবিধাভোগীরা পাচ্ছেন না অথচ স্লিপ বিহীন লোকজন চাল নিয়ে যাওয়া দেখে চেয়ারম্যানের সাথে কথা বললে সঙ্গে সঙ্গে চেয়ারম্যানের ছেলে ও তার লোকজন দফায় দফায় সুবিধাভোগীদের মারপিট করে। চাল বিতরনকালে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হলে অবশেষে চাল বিতরন বন্ধ করে দেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। প্রকৃত সুবিধাভোগী রহমতচর গ্রামের আতোয়ার রহমান বলেন, আমার নামের চাল চাইতে গেলে চাল না দিয়ে উল্টো চেয়ারম্যানের ছেলে আমাকে মারধর করে। চাল বিতরণকৃত দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা খয়বর হোসেন বলেন, বিতরণ কমিটির সদস্য হয়ে লাভ কি ? আমাদের কথা কেউ মানে না। চেয়ারম্যান ও তার লোকজন যা করে তাই। প্রকৃত সুবিধাভোগী আতোয়ারকে চাল দিতে আমি নিজেই বলেছি অথচ পরে শুনি তাকে চাল না দিয়ে চেয়ারম্যানের ছেলে মারধর করেছেন এটা ঠিক হয়নি। তাম্বুলপুর ইউনিয়ন ৯ নং ওয়ার্ডের সদস্য সাদেক হোসেন সাগর জানান, বিতরণকালে দুদফা মারামারি হয়। প্রথম দফায় আমি উপস্থিত ছিলাম। রহমতচর কানি পাড়ার আতোয়ার কে চাল না দিয়ে মারধর করে চেয়ারম্যানের ছেলে। তিনি আরো বলেন বিতরনের মাঝামাঝি সময়ে চেয়ারম্যান চাল নেল্লা দেন। নেল্লা গ্রহনকালে চেয়ারম্যানের নিকটতম লোকজনকে একেক জনে দুই থেকে পাঁচ বস্তা চাল নেন। তাম্বুলপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রওশন জমির সরদার বলেন, চাল বিতরণের সময় মারামারি ঘুষাঘুষি হয়েছে তবে আতোয়ার নামে কোন লোক আমার ইউনিয়নের নাই। চাল বিতরণকৃত দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা সহকারি প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রনজু আলম জানান, যথা নিয়মে চাল বিতরন করা হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল আজিজ বলেন, বিতরণে অনিয়মের বিষয়টি দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ব্যাখ্যা দিবেন।

Previous articleবেলকুচিতে বায়তুস সালাত মসজিদ নির্মানের উদ্বোধন
Next articleবাউফলে কোরবানির বর্জ্য সরিয়ে নিতে বলায় মাদ্রাসায় হামলা!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।