ফজলুর রহমান: রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রকৌশলীদের তদারকি ও দায়িত্বে অবহেলায় পীরগাছার বুড়াইল নদীর ১০ কিলোমিটার খননের কাজ শেষ করার পূর্বেই সমাপ্ত ঘোষনা করেছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও ঠিকাদার।

সঠিকভাবে কাজ না করায় হুমকির মুখে বুড়াইল নদীর উপর কালির পাটের ব্রিজ। গত রোববার(২৫ জুলাই)সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র, পীরগাছা উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়ন ও গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সীমানা ঘেঁষে তারাপুর ইউনিয়ন দিয়ে বহমান বুড়াইল নদী। দুই জেলার দুই উপজেলার দুই ইউনিয়নে বুড়াইল নদীতে ১০ কিলোমিটার খনন করার কথা ছিল। তাম্বুলপুর ও তারাপুর ইউনিয়ন লাগোয়া রহমত চর ও ইমামগঞ্জ এলাকায় প্রায় ১কিলোমিটার, কালিরপাট ব্রিজের দক্ষিণে প্রায় ১শত মিটার, শেখ পাড়া স্কুলের কাছে প্রায় ৩শত মিটার তাম্বুলপুরে তোফায়েল আহমদ (থোফা)র বাড়ীর কাছে প্রায় ২শত মিটার, মরহুম সাহেব উদ্দিন চেয়ারম্যানের বাড়ীর কাছে প্রায় ২শত মিটার সহ বিভিন্ন স্পট মিলে প্রায় ২.৫ কিলোমিটার নদী খনন না করে খনন সমাপ্ত দেখানো হয়েছে। নদী খননে স্বজন প্রীতিরও অভিযোগ রয়েছে সাব ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। বুড়াইল নদীর যে অংশ খনন করেছেন সেই অংশেও খননের মাটি ড্রেসিং না করে গাছ লাগানো হচ্ছে। নকশা অনুযায়ী খনন না হওয়ায় নদীর কোথাও প্রশস্থ বেশী কোথাও কম। প্রশস্থ কম বেশী হওয়ায় কোথাও কোথাও নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে সরকারি বে-সরকারি বিভিন্ন স্থাপনা, রাস্তা ও ব্রিজ। কালিরপাট ব্রিজের দক্ষিনে খনন না করায় পানি ওভার ফ্লো হয়ে পার্শবর্তী বাড়ী ঘর, রাস্তা ও ব্রিজটি চরম হুমকিতে পড়েছে। পানির গতিপথ পরিবর্তন হয়ে বক্র পথে যাওয়ায় ব্রিজের পার্শবর্তী মিজান ও রেজওয়ানুলসহ ৭/৮টি বসতবাড়ি ও সদ্য স্থাপিত বি এম ডি এর কৃষি সেচ কাজে ব্যবহৃত গভীর নলকূপটি চরম হুমকির মুখে পড়েছে। ব্রিজের উজানে ও ভাটিতে খননকৃত নদীর প্রস্থ প্রায় ৪০ ফুট। অথচ মিজান ও রেজওয়ানদের বাড়ীর কাছ দিয়ে স্থানীয় আবুবকর (সুটকু)র নিজের স্বার্থ রক্ষার স্বার্থে তার জমির পূর্ব দিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে খনন করা ১০ ফুট প্রস্থের সংকুচিত একটি নালা। ৪০ ফুট প্রস্থের নদীর পানি সংকুচিত ১০ ফুট নালা দিয়ে যাওয়ায় বেশ কয়েকটি বাড়ীর উঠান, মূল্যবান অনেক গাছ, বাঁশ ঝাড় কৃষি জমির আংশিক নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে। বিলীনের পথে ব্রিজ, রাস্তা ও কয়েকটি বসত বাড়ী। ব্রিজের দক্ষিণে জরুরী ভিত্তিতে নদী খনন না করলে বসত বাড়ী গুলি ও বি এম ডি এর গভীর নলকূপ নদী গর্ভে বিলীন হওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র। তাম্বুলপুরে তোফায়েল আহম্মেদ থোপার বাড়ীর কাছে অজ্ঞাত কারনে খনন না করায় পানির গতিপথ সংকুচিত হওয়ায় উজানে কয়েকশ হেক্টর জমি প্লাবিত হয়ে অপূরণীয় ভাবে কৃষির ক্ষতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। তাম্বুলপুর বুড়াইল নদীর ব্রীজ সংলগ্ন পশ্চিমপাশের্^ প্রায় ২শত মিটার স্বজন প্রীতির মাধ্যমে অন্যের জমি কেটে মুল নদীতে মাটি ভরাট করেন। স্থানীয় জহুরুল হক বলেন ব্রিজের ভাটিতে খননকারী যন্ত্র এস্কেভেটর(ভেকু) ঠিকাদার নিয়েই আসেন নি।

এস্কেভেটর(ভেকু) ঠিকাদার আলম মাঝি বলেন ঠিকাদার ফিরোজ কাউছার মামুন ও কামাল হাজীর নির্দেশে আমি নদীর বিভিন্ন স্পটে প্রায় ১কিলোঃ খনন করি নাই। এছাড়াও রহমত চর ও ইমামগঞ্জ লাগোয়া প্রায় ১ কিলোমিটার নদী খনন না করায় ঐ এলাকায় বর্তমান বর্ষাকালেও মানুষ পায়ে হেটে ও মালামাল ঘোড়গাড়িতে করে এপার ওপার পারাপার করছেন। নদীর মধ্যবর্তী উচু শুকনো জায়গায় স্থানীয় মহিলারা কলমি শাক তুলছেন। স্থানীয় ঠিকাদার কামাল হাজী বলেন ১০ কিলোঃ নদী খনন সমাপ্ত হয়েছে। অন্য প্রশ্নে তিনি বলেন আমরা তো সামান্য খনন করি নাই অন্য এক সাইডে যে মোটেও খনন হয়নি সেটা কি করবেন। রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের দায়িত্ব প্রাপ্ত উপ-সহকারী প্রকৌশলী সফিকুল ইসলাম বলেন খনন কাজ সমাপ্ত হয়েছে। পরক্ষনে তিনি আরো বলেন খননে ত্রুটি হলে ঠিকাদারের জামানতের টাকা বাজেয়াপ্ত হবে। অন্য প্রশ্নে বলেন অনেক সময় দেখেও না দেখে সঠিক মর্মে প্রত্যয়ন দিতে হয়। রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আহসান হাবীবের সংগে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি একাধিক বার ফোন কেটে দেওয়ায় তার মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

Previous articleটেকনাফে ৭ হাজার ৮০০ পিস ইয়াবাসহ মহিলা গ্রেফতার
Next articleপিতা-মাতার কবরের পাশেই শায়িত হলেন অধ্যাপক আলী আশরাফ এমপি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।