বাংলাদেশ প্রতিবেদক: হিজলায় জমি আতœসাত করতে কিলার ভাড়া করে নুরু বাবুর্চিকে খুন করা হয়েছে বলে দাবী করেছেন নিহতের স্ত্রী খাদিজা বেগম। তাঁর বড় ভাসুর (স্বামীর বড় ভাই) দুলাল বাবুর্চি জায়গা জমি ভোগ দখল করতেই খুনের পথ বেছে নেন।

খাদিজা বেগম গতকাল শনিবার আজকের বাংলাদেশকে এ তথ্য জানান। নুরু বাবুর্চিকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে জানান তার পুত্ররা। জানা গেছে, গত ১০ আগস্ট বিকালে মুলাদী উপজেলার নয়াভাঙ্গনী নদীর চরডিক্রী এলাকায় একটি লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে সংবাদ দেন। পুলিশের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। সংবাদ পেয়ে নুরু বাবুর্চির স্ত্রী ও স্বজনরা এসে লাশ শনাক্ত করেন। নুরু বাবুর্চি গত ৭ আগস্ট বিকাল থেকে নিখোঁজ ছিলেন। ওই ঘটনায় খাদিজা বেগম বাদী হয়ে দুলাল বাবুর্চি ও কাসেম খানসহ ১৪জনকে আসামী করে মুলাদী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। নিহতের স্ত্রী খাদিজা বেগম বলেন, শনিবার বিকালে হিজলা উপজেলার চরপত্তনীভাঙ্গা গ্রামের শহীদ খানের পুত্র দুর্ধর্ষ কিলার কাশেম খান ফোন করে নুরু বাবুর্চিকে কথা শোনার জন্য বলেন। কাশেম খানের সাথে দেখা করার জন্য নুরু বাবুর্চি ওই দিন সবাইকে বলে বের হন। সন্ধ্যার পরে বাসায় না ফিরলে তার সাথে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেন স্বজনরা। ওই সময় মোবাইল ফোনে তিনি কাশেম খানের সাথে রয়েছেন বলে জানিয়েছিলেন। রাত ১০টার পর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পান স্ত্রী ও পুত্ররা। আতœীয়- স্বজন ও সম্ভাব্য স্থানে খোঁজ করে নুরু বাবুর্চিকে না পেয়ে তার স্ত্রী ও পুত্ররা ৯ আগস্ট হিজলা থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে যান। সেখানে থানার ওসি অসীম সরকার জিডি না নিয়ে তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন এবং নুরু বার্বুচির তিন ছেলেকে জেল হাজতে পাঠান। খাদিজা বেগম আরও বলেন, তার শ্বশুর মৃত হাচেন বাবুর্চি অনেক জায়গা জমি রেখে গেছেন। সেই জমি সবই তার ভাসুর দুলাল বাবুর্চি ভোগদখল করেন। নুরু বাবুর্চি ছোট হওয়ায় তাকে শুধুমাত্র একটি বসত ঘর করার জায়গা দেওয়া হয়েছে। ৪/৫ বছর আগে নুরু বাবুর্চি তার ভাগের জমি দাবী করলে দুই ভাইয়ের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়। দুলাল বাবুর্চি বেশ কয়েক বার ছোট ভাই নুরু বাবুর্চিকে হত্যাচেষ্টা করে ব্যর্থ হন। সর্বশেষ ভাড়া করা ঘাতক কাশেম খানের সহযোগিতায় দুলাল বাবুচি, তার ছেলে হানিফ বাবুর্চি, রিয়াজ বাবুর্চি, জসিম ডিলারসহ ১৪/১৫জন মিলে নুরু বাবুর্চিকে হত্যা করেন। নুরু বাবুর্চির বড় ছেলে ইমরান বাবুর্চি জানান, তার পিতাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। ঘাতকরা তার পিতার ডান হাত কেটে ফেলেছে। চোখ উপড়ে ফেলে হাত-পায়ের রগ কর্তন, ভুড়ি কেটে অমানুষিক নির্যাতন করে খুন করেছে। শুধু তাই নয়, লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে হাত-পায়ে বালুর বস্তা বেধে নয়াভাঙ্গনী নদীতে ফেলে দিয়েছে। লাশ পাওয়ার সংবাদে অনেক খুনি আতœগোপন করেছে। অনেকে ধরা ছোয়ার বাইরে থাকার চেষ্টা করছে। কিন্তু পুলিশ ও সিআইডি তদন্ত করলে হত্যার সাথে জড়িত সবাই চিহ্নিত হবে। নুরু বাবুর্চির মেজ ছেলে এনামুল বাবুর্চি বলেন, আমার পিতার হত্যার ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে একটি বিশেষ মহল উঠেপড়ে লেগেছে। ওই মহলটি আমার পিতার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনেছে। খুনিরা টাকা দিয়ে হিজলা থানা পুলিশ ও সংবাদকর্মীদের কিনে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়ে স্থানীয়দের মাঝে বৈরী মনোভাব সৃষ্টির পায়তারা করছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, হত্যার সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। মুলাদী থানার অফিসার ইনচার্জ এস.এম মাকসুদুর রহমান বলেন, লাশ উদ্ধারের পর স্বজনরা চিহ্নিত করেছেন। নিহতের স্ত্রী হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলার যথাযথ তদন্ত এবং আসামীদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশের অভিযান অব্যহত রয়েছে।

Previous articleবঙ্গোপসাগরে রুপালী ইলিশের দেখা মিলছে
Next articleপাঁচবিবিতে মসজিদে ইট প্রদান করলেন সাবেক এমপি মরহুম সাইদুর রহমানের ছেলে লিটু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।