ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: ঘোষণায় নয় ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচন করতে চান কাউন্সিলররা দীর্ঘ ৭ বছর পর চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনের তারিখ চূড়ান্ত হয়েছে। আগামি ২৪ সেপ্টেম্বর জেলা শহরের পুরাতন স্টেডিয়ামে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

সম্মেলনকে ঘিরে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে শহর আওয়ামী লীগের রাজনীতি। কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে পদপ্রত্যাশীরা নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাংগঠনিক যোগাযোগ যেমন বাড়িয়েছেন, তেমনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও হয়ে উঠেছেন সক্রিয়। পোস্টার-ব্যানারে রঙিন হয়ে উঠেছে পুরো শহর। প্রচার চালানো হচ্ছে ফেসবুকেও। আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন কর্মসূচিতে পদপ্রত্যাশীরা অংশ নিচ্ছেন। অবস্থান জানান দিতে বিশেষ কর্মী সমর্থক নিয়ে শো-ডাউনও দিচ্ছেন কেউ কেউ। আওয়ামী লীগের কার্যালয় ও জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতাদের কাছে যাতায়াতও বৃদ্ধি করেছেন পদপ্রত্যাশীরা। খুব শিগগিরই চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচনও কাছাকাছি চলে আসছে। তাই এই কাউন্সিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন নেতাকর্মীরা।

পৌর আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ঘিরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রাজনীতিতে নানা মেরুকরণও শুরু হয়েছে। কার সঙ্গে কে থাকবেন, কে প্রার্থী হলে কারা সমর্থন দেবেন- চলছে সেই হিসাব-নিকাশ। তবে শীর্ষ দুই পদ- সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিয়েই সমীকরণটা কিছুটা জটিল। সভাপতি পদপ্রত্যাশী তিনজন হলেও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য ছোটাছুটি করছেন অর্ধডজন নেতা। কোন প্রচারণায় নেই এমন অনেকেই গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আসতে পারেন বলেও শোনা যাচ্ছে।

সর্বশেষ ২০১৪ সালের সম্মেলনে নির্বাচিত সভাপতি অধ্যক্ষ শরিফুল আলম জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হয়েছেন এবং সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান মিজান কয়েক মাস আগে মৃত্যুবরণ করেছেন। ফলে এবারের সম্মেলনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দুটি গুরুত্বপূর্ণ পদে পুরনো কেউ থাকছেন না। এছাড়াও অধিকাংশ পদে নতুন মুখ আসছে বলে জানা গেছে।

সভাপতি পদে অধ্যক্ষ আব্দুল জলিলকেই যোগ্য মনে করছেন নেতাকর্মীরা। তবে তার ক্লিন ইমেজ থাকলেও কেউ কেউ দলীয় কর্মকাণ্ডে তার সক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। এছাড়াও এই পদ পেতে আগ্রহী জেলা কৃষক লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুস সামাদ বকুল ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতা তাজিবুর রহমান। সভাপতি হওয়ার জন্য সবাই নিজ নিজ অনুসারীদের নিয়ে জোর তদবির চালাচ্ছেন। কাউন্সিলে প্রার্থী হওয়া নিয়ে কোন প্রচারণায় না থাকলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জের এক শিল্পপতি এ পদে আসতে পারেন বলেও জানা গেছে।

আর সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে ব্যাপক তৎপরতা চালাচ্ছেন সাবেক ছাত্রনেতা ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবু সুফিয়ান। ক্লিন ইমেজের শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে তার পক্ষে চলছে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা। এছাড়াও সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে প্রচারণা চালাচ্ছেন জেলা কৃষক লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল হাকিম। তিনিও তার জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে এ পদে আসতে চাইছেন।

এর বাইরে সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে চাইছেন যুব মহিলা লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ইয়াসমিন সুলতানা রুমা, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ রোকনুজ্জানান, সাবেক ছাত্রনেতা শাহনেওয়াজ অপু ও কৃষক লীগের পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন রাসেল। প্রচার-প্রচারণায় নেই এমন একজন ব্যবসায়ী সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে পারেন বলে জানা গেছে।

সম্মেলনকে সামনে রেখে সোমবার সন্ধ্যায় শহরের হোটেল স্কাই ভিউ ইনের কনফারেন্স কক্ষে আলোচনা সভা করেছেন ১৫টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা। ওই সভায় অংশ নেয়া ১০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের কাছে সভার সিদ্ধান্ত ও কেমন নেতৃত্ব চান- জানতে চাইলে তিনি বলেন, অনেক প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও দল ছেড়ে চলে যায়নি বা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েনি। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পদে থেকে দায়িত্ব পালন করেছে এবং দলের জন্য এখনো সরব রয়েছে, এমন নেতাদের নেতৃত্বে দেখতে চায় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। তারা চান, হাইব্রিড কেউ যেন নেতৃত্বে আসতে না পারেন। এ জন্য তারা কাউন্সিলরদের ভোটে নেতৃত্ব নির্বাচন করতে চান। এ দাবিটি তারা কেন্দ্রের কাছে লিখিতভাবে জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কাউন্সিলরদের ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচন হলে হাইব্রিড কারো পদ বাগিয়ে নেয়ার সুযোগ থাকবে না বলে মনে করেন তিনি।
সম্মেলন সফল করতে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী আব্দুল হাকিম বলেন, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ সংগঠনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই দুটি পদে যদি সঠিক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠিত করা যায়, তবে সংগঠন আরও শক্তিশালী হবে এবং সাধারণ মানুষের কাছে আওয়ামী লীগের আস্থা আরও বাড়বে।

আরেক সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী আবু সুফিয়ান বলেন, একেবারে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্কে বজায় রেখে রাজনীতি করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমার জায়গা থেকে তাদের ন্যূনতম চাওয়া পাওয়া ও দুঃখ-কষ্ট সমাধান করার চেষ্টা করি। এছাড়াও যেহেতু তৃণমূল থেকে রাজনীতি করে উঠে এসেছি, তাই তৃণমূলের সমস্যা ও দুঃখ-কষ্ট বুঝি। সেই বিবেচনায় যদি সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হতে পারি তবে মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে দলকে আরও শক্তিশালী করতে পারব।

তিনি বলেন, বিগত জাতীয়, পৌর ও সর্বশেষ উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল আওয়ামী লীগের জন্য সুখকর নয়। শিগগিরই পৌর নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচনও কাছাকাছি চলে আসছে। তাই এই কাউন্সিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পৌর আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব নির্বাচনে ভুল হলে আগামী নির্বাচনগুলোয় এর প্রভাব পড়বে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদ জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জের রাজনীতিতে এই ইউনিটটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা চাই, সংগঠনকে শক্তিশালি করতে ভূমিকা রাখবে এমন স্বচ্ছ ইমেজের শিক্ষিত ও মেধাবী নেতৃত্ব নির্বাচিত হোক। কাউন্সিলররা যেন ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচনের সুযোগ পান সেটাই চাই। এটি নেতৃত্ব নির্বাচনের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য উপায়। কাউন্সিলরদের ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচিত হলে বিতর্কিত কারও পদে আসার সুযোগ থাকবে না। আশা করি, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্মেলন হবে, নেতাকর্মীরা পছন্দের প্রার্থীকে মনোনীত করবেন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সব শেষ সম্মেলন হয় ২০১৪ সালে ২৯ নভেম্বর। ওই কাউন্সিলে অধ্যাপক শরিফুল আলম সভাপতি ও অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান মিজান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। বর্তমানে পৌর আওয়ামী লীগের ১৫টি ওয়ার্ড কমিটি রয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে ১৯ জন করে ২৮৫ জন কাউন্সিলর দিয়েই এবারে পৌর কমিটির সম্মেলন হবে।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে অল্প বৃষ্টি হলেই স্কুলে জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা
Next articleগোমস্তাপুরে র‌্যাবের অভিযানে ৬ জুয়াড়ি আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।