জয়নাল আবেদীন: মাদকের দূর্গ বলে খ্যাত রংপুরের হারাগাছে তাজুল ইসলাম নামের এক মাদক ব্যবসায়িপুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে সোমবার রাতে পুলিশ-জনতার লংকা কান্ড ঘটে গেছে । থানা ঘেরাও ইটপাটকেল নিক্ষেপ সরকারি সম্পদের ক্ষতির ঘটনায় হারাগাছ থানায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।

সহিংস ঘটনার সাথে জড়িত পুলিশ মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত ১২জনকে গ্রেফতার করেছে ।পুলিশ ও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হারাগাছের নতুন বাজার বছিবানিয়ার তেপতি এলাকায় তাজুল নামের এক মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে পুলিশ আটক করে ।এরপর তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী হারাগাছ থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ শুরু করে। তারা থানায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন এবং বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেন। এ সময় পুলিশ উত্তেজিত জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে। রাতভর পরিস্থিতি উত্তপ্ত থাকে । পুলিশ জানায় নয়া বাজার বছি বানিয়ার তেপতি থেকে তাজুল ইসলামকে মাদকসহ আটক করার পর পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি করে পালানোর চেষ্টা করেন। পুলিশ তাকে মারধর করলে ঘটনাস্থলেই মারা যান তাজুল ইসলাম। পরে ঘটনাটি জানাজানি হলে এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে থানা ঘেরাও করেন। বিক্ষুব্ধ জনতা ইটপাকটেল ছুড়ে মারার পাশাপাশি পুলিশের গাড়িসহ বেশ কয়েকটি যানবাহন ভাঙচুর করে।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার আলতাব হোসেন জানান, পিটিয়ে হত্যার অভিযোগটি সত্য নয়। তারপরও নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্ত করলে প্রকৃত বিষয়টি জানা যাবে।তিনি আরও বলেন, সন্ধ্যায় পুলিশ তাজুল ইসলামকে মাদকসহ আটক করে। তিনি মাদকাসক্ত ছিলেন। পুলিশের হাতে আটকের পর তাজুল পালানোর চেষ্টা করেন এবং ভয়ে মলত্যাগ করে ফেলেন। পরে ঘটনাস্থলে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মারা যান তিনি। এ ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে এলাকাবাসী থানা ঘেরাও করে ভাঙচুর করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।মেট্রোপলিটন হারাগাছ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শওকত আলী সরকার জানান, সন্ধ্যায় নতুন বাজার বছিবানিয়ার তেপতি থেকে গাঁজা সেবনরত অবস্থায় আটক করে তাজুল ইসলামকে হাতকড়া পড়ানো হয়। এতে ভয়ে সে মলত্যাগ করে ফেলে। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে পুলিশ হাতকড়া খুলে দেয়। এর পর পুলিশ তাজুলকে স্থানীয়দের জিম্মায় দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এর কিছুক্ষণ পর খবর আসে যে তাজুল ইসলাম মারা গেছেন।তিনি আরও জানান, এলাকাবাসী ভুল তথ্য পেয়ে থানা ঘেরাও করে ভাঙচুর করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। উত্তেজিত জনতার ছোড়া ইট-পাটকেলের আঘাতে কয়েকজন পুলিশসদস্য আহত হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা পুলিশের গাড়িও ভাঙচুর করেছে।

অন্যদিকে আরপিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) আবু মারুফ হোসেন জানান, পুলিশের সঙ্গে কয়েক দফা বিক্ষোভকারীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়। রাত ১০টার দিকে পুলিশ তাদের হটিয়ে দিলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হবে। কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। একই সঙ্গে পুলিশের নির্যাতনে আটক ব্যক্তির মৃত্যুর যে অভিযোগ তোলা হয়েছে, তার মরদেহ ময়নাতদন্ত করলে প্রকৃত বিষয়টি জানা যাবে।উল্লেখ্য, গত ২৪ সেপ্টেম্বর হারাগাছের সাহেবগঞ্জ এলাকায় মাদকসেবীকে ধরতে গিয়ে ছুরিকাঘাতে আহত হয়েছে পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) পিয়ারুল ইসলাম। এ ঘটনার পরদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

Previous articleদক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ট্রাক্টরের ধাক্কায় একজন নিহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।