জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে এক নির্দয় স্ত্রীর বিরুদ্ধে গর্ভের অনাগত সন্তান নষ্টের অভিযোগ পাওয়া গেছে । এ ঘটনায় নিজের স্ত্রী, শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছে স্বামী।

থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়া গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে শাহিনুর রহমাানের সাথে বিগত ২০১৮ সালে ইসলামী শরিয়ামতে বিয়ে হয় কেশবপুর উপজেলার বরনডালী গ্রামের গোলাম রসুল খোকেনের মেয়ে আসমা খাতুনের সাথে। বিয়ের কিছু দিন পার না হতে স্ত্রী আসমা তার মা-বাবার কু-পরামর্শে শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর অবাধ্য হয়ে চলতে শুরু করে। শুধু তাই নয়, স্বামীকে গোপন করে তার গর্ভের অনাগত বাচ্ছা ঔষদের মাধ্যমে নষ্ট করে ফেলে। এর কিছুদিন পর স্ত্রী ও শ্বশুর-শ্বাশুড়ী মিলে গচ্ছিত নগদ ৮১ হাজার টাকা, গাইবাছুর, সংসারিক দামী জিনিসপাত্রসহ ২ লক্ষ ৩১ হাজার টাকা মুল্যের মালামাল নিয়ে যায়। এই ঘটনায় স্থানীয় ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন পরিষদে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হলেও তারা চেয়ারম্যানকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখায়। এরপর স্থানীয় চেয়ারম্যান ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মরামর্শে গত ১২-০৮-২১ তারিখ শাহিনুর তার স্ত্রীকে আনতে শ্বশুরালয়ে গেলে তারা তাকে বিভিন্নভাবে অপমান, বেইজ্জিতি ও তার বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকী দেয়। এক পর্যায়ে তার স্ত্রী সাফ জানিয়ে দেয় সে তার সংসার করবে না। কোন উপায়ান্তর না পেয়ে স্ত্রীর গর্ভের সন্তান নষ্টের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি ও গরু ফেরৎ পেতে গত সোমবার শাহিনুর রহমান বাদী হয়ে তার স্ত্রী, শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর নাম উল্লেখ করে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এব্যাপারে আসমা থাতুনের বাবা গোলাম রসুল খোকন বলেন, গর্ভের সন্তান নষ্ট ও গরু নিয়ে যাওয়ার ঘটনা সত্য নয় বরং শাহিনুর কর্র্তৃক তার মেয়ের উপর অসংখ্য নির্যাতনের প্রমান রয়েছে তার কাছে। এব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ বোরহান উদ্দীন সাংবাদিকদের জানান, তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Previous articleরংপুর নাট্যকেন্দ্রর ২৩ বছর পূর্তিতে ৪দিন ব্যাপি নাট্যোৎসবের উদ্বোধন
Next articleমামুনুল হকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলায় অভিযোগ গঠন, সাক্ষ্যগ্রহণ ১৪ নভেম্বর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।