বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বগুড়ার সোনাতলা পৌরসভা নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মিনহাদুজ্জামান লীটনসহ চারজনকে ছুরিকাঘাতে আহত করা হয়েছে। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলা পরিষদ রোডের মাইক্রোবাস স্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে।

এর আগে মঙ্গলবার পৌর নির্বাচনের দিন একটি ভোটকেন্দ্রে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম আকন্দ নান্নু ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহিদুল বারী খান রব্বানীর দুই সমর্থকের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরের দিন (আজ) বুধবার দুপুরে সোনাতলা রেল স্টেশন রোডে সেই দুই সমর্থকের মুখোমুখি দেখা হলে আবারও কথা কাটাকাটি শুরু হয়। একই সময় পাশের মাইক্রোবাস স্ট্যান্ডে চা পান করছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মিনহাদুজ্জামান লীটনসহ স্থানীয় লোকজন। এ সময় সেখানে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

প্রতিপক্ষের বেধড়ক মারপিট ও ছুরিকাঘাতে আহত হন পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক নাহিদ হাসান জিতু (৩৫)। এ সময় এগিয়ে গেলে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভাকেট মিনহাদুজ্জামান লীটন (৫৩)। একই সময় ছুরিকাঘাতে আহত হন উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদুর রশীদ সোহেল (৪৩) ও পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক উৎপল কর্মকার (৩৫)। তাদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া আফরিন। বর্তমানে পুলিশ ফোর্স ও বিজিবির উপস্থিতিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলেও সেখানে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া আফরিন মোবাইল ফোনে জানান, এ মুহূর্তে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন রয়েছে।

সোনাতলা থানার ওসি রেজাউল করিম রেজা বলেন, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে।

Previous articleমামুনুল হকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলায় অভিযোগ গঠন, সাক্ষ্যগ্রহণ ১৪ নভেম্বর
Next articleনির্বাচনে বিএনপির আসা-না আসা দেখার বিষয় না: কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।