অতুল পাল: দ্বিতীয় ধাপে আগামি ১১ নভেম্বর বাউফলের নওমালা ও সূর্যমণি ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্রমেই অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠছে নওমালা ইউনিয়ন। নওমালা ইউনিয়নে নৌকা ও সতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্রের অবিরত মহরা এবং সংঘর্ষের ঘটনায় ভোটাররা নিরাপত্তাহীনতায় পড়েছেন।

ইতিমধ্যেই রাম দা, লোহার রড এবং আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সংঘটিত সংঘর্ষে প্রায় অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে নৌকার সমর্থকই বেশি। এলাকার বয়োজেষ্ঠ্যরা এমন ঘটনা ইতিপূর্বে কখনোই দেখেননি বলে জানান। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তৃণমূল আওয়ামী লীগ এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের চূড়ান্ত মনোনয়ন নিয়ে নওমালা ইউনিয়নে নৌকা প্রার্থী ও সমর্থকরা মাঠে নামলেও আওয়ামী লীগের কোন্দলের সুযোগ নিয়ে সতন্ত্রের নামে আওয়ামী লীগেরই কর্মী বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। সাবেক চীফ হুইপ বর্তমান এমপি আ.স.ম. ফিরোজ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। অপরদিকে বাউফল পৌরসভার মেয়র মো. জিয়াউল হক জুয়েল উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। নওমালা ইউনিয়নে সতন্ত্র (বিদ্রোহী) প্রার্থী মো. শাহজাদা হাওলাদার মেয়র সমর্থক এবং নৌকার প্রার্থী মো. কামাল হোসেন বিশ্বাস এমপি সমর্থক। এই দ্বন্দের মধ্যেই নওমালা ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রতিদিনই চলছে নির্বাচনী মাঠ দখলের লড়াই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় বয়োজেষ্ঠ্যরা জানান, নওমালা হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর নৌকার দুর্গ। আজীবন বঙ্গবন্ধুকে হৃদয়ে লালন করে নৌকায় ভোট দিয়ে আসছি। কিন্তু এখন যে অরাজকতা শুরু হয়েছে তাতে ভোট কেন্দ্রে যাওয়াই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। কোন্দলের চাপে নৌকাকে এখন ভুলে যাচ্ছে সাধারন ভোটাররা।

অপরদিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বড় ভাই আবু তাহের খান আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় ভোটার এবং প্রশাসনের মধ্যে ব্যপক প্রভাব পড়ছে। প্রশাসন ভাবছে, নির্বাচনকালীন সময় সকল ক্ষমতার মালিক নির্বাচন কমিশন। সেক্ষেত্রে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বড় ভাই কোন একজনের পক্ষ অবলম্বন করলে তার একটা প্রচ্ছন্ন প্রভাব সকল ক্ষেত্রেই পড়ে। নওমালা ইউনিয়নের ক্ষেত্রেও নৌকা কোন বিষয় না। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের ভাইয়ের সমর্থককে জয়ী করাতে হবে এমনই একটা প্রভাব নি¤œচাপের মতো বিস্তার হচ্ছে। সাধারন ভোটাররা মনে করছেন, এঘটনায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বদনাম হচ্ছে। অনেক ভোটার আবেগের সুরে জানান, আমরা বঙ্গবন্ধুর কর্মী এবং নৌকার সমর্থক। কিন্তু ভোট দিতে যেতে পারবো কি না সেটা বলতে পারছি না। প্রশাসনের সকল স্তরই ম্যানেজ হচ্ছে বলে প্রচার-প্রপাগান্ডাও চালানো হচ্ছে। নির্বাচনী পরিবেশ এবং সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে বাউফল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আল আমিন বলেন, প্রশাসনকে প্রভাবিত কিংবা ম্যানেজ করা হচ্ছে এমটা যারা ভাবছেন তারা বোকার স্বর্গে রয়েছেন। নওমালার নির্বাচন সম্পর্কে প্রশাসনের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ ওয়াকিবহাল রয়েছেন। আমরা যে কোন মূল্যে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব। নওমালা ইউনিয়নে মোট ভোটার রয়েছে ১৬ হাজার ৭০১ জন। এদের মধ্যে ৮ হাজার ৫৩১ জন পুরুষ এবং ৮ হাজার ১৭০ জন নারী ভোটার।

Previous articleবেনাপোল পেট্রাপোলে অগ্নিকাণ্ডে তুলাসহ ১১টি ট্রাক পুড়ে ছাই
Next articleবিএনপির কাছে দেশ নিরাপদ নয়, তাদের রাজনীতি দূরনিয়ন্ত্রিত: কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।