বাংলাদেশ প্রতিবেদক: “সকাল ৮টার তোন রোদ্রের মধ্যে লাইনে দাঁড়াইয়া দুপুর ১টা বাজে বুথে গেছি ভোট দিতে। তখন স্যার বলছে, ‘আমি রাইট আছি, আমার ছবি নাম-ঠিকানা ঠিক আছে, কিন্তু আমার ভোট অন্য একজন দিয়া দিছে।’ গত বছর বাড়িত থাইকাই হুনছি মাইন্সের ভোট নাকি দিয়া দেয় কেন্দ্রে যাওন লাগে না। এইবার আইছিলাম ভোট দিতে তাও পারলাম না।”

ভোট দিতে না পেরে কেন্দ্র থেকে বেরিয়ে এভাবেই মনের আক্ষেপ প্রকাশ করেন ভোলার দৌলতখান উপজেলার উওর জয়নগর ইউনিয়ন ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সনজু হাওলাদার বাড়ির কহিনুর বেগম (২৫)।

বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় ধাপে ভোলার দৌলতখান উপজেলার উওর জয়নগর ইউনিয়ন ৯ নম্বর ওয়ার্ড শেখ রাসেল মেমোরিয়াল বিদ্যালয় অ্যান্ড বঙ্গবন্ধু কলেজে ভোট গ্রহণ চলাকালীন এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি ভোট কক্ষে পুলিং ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের কাছে অবহিত করলে তারা একে অপরের কাঁধে দোষ চাপান।

এ বিষয়ে ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার গোলাম মাওলা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘আমরা নির্বাচনী ডিউটি করতে আসছি। আমরা কেউই এই এলাকার নই। কেউ জালভোট দিলে আমাদের চিহ্নিত করার সুযোগ নেই। এটা প্রার্থীর এজেন্টরা চিহ্নিত করে আমাদের কাছে অভিযোগ করলে আমরা ব্যবস্থা নিবো। ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। মানুষ মাত্র ভুল হয়। এটা ভুলবসত আরেক জনের নামের উপরে টিক চিহ্ন পড়েছে। এতে আমার পুলিং অফিসার ও প্রার্থীদের এজেন্টদের ভুলের কারণে এমনটা ঘটতে পারে বলে জানান তিনি।

এছাড়াও উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) বিচ্ছিন্ন কেন্দ্রগুলোতে কিছু অপ্রিকর ঘটনায় প্রার্থী ও সমর্থকদের জরিমানা করা হয়েছে।

Previous articleবাংলাদেশে গণতন্ত্র সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে : সেলিমা রহমান
Next articleসীতাকুণ্ডে ভোট দিতে গিয়ে প্রাণ গেল বীর মুক্তিযোদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।