ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: একটি ওয়ার্ডের ৪ জন ইউপি সদস্য বা মেম্বার প্রার্থী। দুইটি পরিবার থেকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন এই ৪ প্রার্থী। এক পরিবারে রয়েছে চাচা-ভাতিজা, আরেক পরিবারে জামাই-শশুর। দুই পরিবারের দুইজন চাচা ও শশুর দীর্ঘদিনের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। দুই পরিবারের বাকি দুইজন ভাতিজা ও জামাই প্রথমবারের মতো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

আরও অনেক মিল রয়েছে তাদের মধ্যে। চাচা-ভাতিজার বাড়ি একই গ্রামে। আবার জামাই-শশুরের বাড়িও একই গ্রামে। এমন পারিবারিক ভোটের আমেজ বইছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার নেজামপুর ইউনিয়নের ০৫ নং ওয়ার্ডে। দুই পরিবারের ৪ জন প্রার্থীর এই ভোটযুদ্ধে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ভোটারদের মাঝে।

নেজামপুর ইউনিয়নের ০৫নং ওয়ার্ডের ৪ জন প্রার্থী হলেন- গোসাইপুর গ্রামের মৃত আলবক্স মন্ডলের ছেলে সাবেক ইউপি সদস্য মো. আব্দুল খালেক ফিটু (৬০), তার ভাতিজা সাফিউল আলম সেলিম (৩৮), কাজলকেশর গ্রামের মৃত ইসমাইল মন্ডলের ছেলে বর্তমান ইউপি সদস্য তোসলিম উদ্দীন (৫০) এবং তার আপন ভাইয়ের জামাই মো. আলী হোসেন (৪২)।

তাদের মধ্যে চাচা আব্দুল খালেক ফিটু ১৪ বছর এই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ছিলেন। পেশায় কৃষি কাজ করেন তিনি। আব্দুল খালেক ফিটু নাচোল উপজেলা যুবলীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক। এছাড়াও তিনি দীর্ঘদিন ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন৷ মোরগ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আব্দুল খালেক ফিটু৷ তার আপন ভাতিজা সাফিউল আলম সেলিমের প্রতীক টিউবওয়েল। তিনি এবার প্রথমবারের মতো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। চাচার বিরুদ্ধে ভোটে অংশ নিলেও চাচার মতোই তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেন বলে জানা গেছে।

এদিকে, কাজলকেশর গ্রামের বর্তমান ইউপি সদস্য তোসলিম উদ্দীন টানা ১১ বছর ধরে এই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। প্রথমবার পরাজিত হলেও পরের দুইবার নির্বাচনে জয়লাভ করেন তিনি। স মিলের মালিক শশুর তোসলিম উদ্দিনের প্রতীক ফুটবল। তার জামাই আলী হোসেন এবার প্রথমবারের মতো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। তার প্রতীক বৈদ্যুতিক পাখা।

স্থানীয় বাসিন্দা ষাটোর্ধ সফিকুল ইসলাম জানান, চাচা-ভাতিজা, জামাই-শশুর ভোটে দাড়ালেও এখন পর্যন্ত কোন অস্বস্তিকর পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। সবাই নিজেদের মতো প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে জনগণের কাছে ভোট প্রার্থনা করছে। আমরা আশা করি, জমজমাট একটা লড়াই হবে। কারন ৪ জনের মধ্যে দুইজন নতুন মুখ ও দুইজন দীর্ঘদিনের নির্বাচিত ইউপি সদস্য। জনগণ নতুন কারো উপর নাকি, পুরাতন কারো উপর ভরসা রাখে, তা ২৬ ডিসেম্বর ভোটের দিন দেখা যাবে।

চায়ের দোকানদার সাইফুল ইসলাম তার দোকোনে ৪ জন প্রার্থীরই পোস্টার লাগানো রয়েছে। তিনি বলেন, ভোটের চাইতে চাচা-ভাতিজা, জামাই-শশুর নিয়েই বেশি আলোচনা হচ্ছে। একটি পরিবারে এমন হলে সাধারণত সমালোচনা হয়। কিন্তু যেহেতু দুটি পরিবারে এমন ঘটনা তাই যোগ্যতা, অযোগ্যতা নিয়ে আলোচনা করছে ভোটাররা। এখন পর্যন্ত (১৮ ডিসেম্বর) আমাদের এলাকায় উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

সাবেক ইউপি সদস্য চাচা আব্দুল খালেক ফিটু বলেন, আমার একমাত্র ভাইয়ের ছেলে সাফিউল আলম সেলিম। পারিবারিকভাবে কয়েকবার আলোচনায় বসে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য বলেছিলাম। কিন্তু সে জানিয়েছে, নির্বাচন করবেই। যেহেতু কথা শুনেনি, তাই আর কিছু বলতে যায়নি। তবে এনিয়ে পারিবারিক সম্পর্ক খারাপও হয়নি। সে তার মতো কাজ করছে, আমি আমার মতো নির্বাচনী প্রচারণার কাজ করছি৷ জয়-পরাজয়ের সিধান্ত দিবে জনগণ৷

বর্তমান ইউপি সদস্য শশুর তোসলিম উদ্দিন জানান, টানা ১১ বছর ধরে আমি নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে জনগণের সেবা করে আসছি। এলাকার রাস্তাঘাট, মসজিদ, মাদ্রাসা সেতু, কালভার্ট নির্মাণে নিরলসভাবে কাজ করছি। এছাড়াও বরেন্দ্র অঞ্চলের জন্য বিশেষ ভূমিকা নিয়ে সুপেয় পানির ব্যবস্থা করেছি। এসব উন্নয়ন কর্মকান্ড দেখে জনগণ ইনশাল্লাহ আমাকে পুনরায় নির্বাচিত করবেন।

একই গ্রামের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জামাইকে নিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনে আলী হোসেন আমার প্রতিদ্বন্দ্বী হলেও সম্পর্কে সে আমার জামাই। সে আমার আপন ভাই এর মেয়ের স্বামী। নির্বাচনে অংশ নেয়া নিয়ে পারিবারিক সম্পর্কে কোন ব্যতয় ঘটবে না। ২৬ ডিসেম্বর জনগণের দেয়া রায় মেনে নিব।

জামাই আলী হোসেন বলেন, জনগণ নতুন কাউকে চাই। জনগণের সেই চাহিদা থেকে আমি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। একই গ্রামে একজন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আমার শ্বশুর। আমার বাড়ি থেকে তার বাড়ি দেখা যায়, এত অল্প দূরত্বে সন্নিকটে আমাদের বাড়ি। আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক খুব ভালো রয়েছে। আশা করি, নির্বাচনের পরেও তা অটুট থাকবে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, সারাদেশে চতুর্থ দফায় নির্বাচনে নাচোল ও ভোলাহাট উপজেলা মিলে মোট ৮টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ হবে। এলক্ষ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। সুষ্ঠ, শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন করতে সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

কাজকেশর, গোসাইপুর, টিকইল, হরিরাপুর এই চারটি গ্রাম নিয়ে গঠিত নিজামপুর ইউনিয়নের ০৫নং ওয়ার্ড। এই ওয়ার্ডের মোট ভোটার ১৮৩৫ জন। আগামী ২৬ ডিসেম্বর চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল ও ভোলাহাট উপজেলার ৪টি করে মোট ৮টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

Previous articleমিয়ানমারে আবারো গণহত্যার প্রমাণ মিলেছে: বিবিসি’র অনুসন্ধান
Next articleআ.লীগ প্রার্থীদের ঠেলে খেলতে বললেন জেলা আ.লীগের আহবায়ক, ভিডিও ভাইরাল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।