তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে চাকুরি জীবন থেকে বিদায় নিয়েছেন দুই পুলিশ সদস্য। তাই সুসজ্জিত গাড়িতে করে তাদেরকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তারা হলেন লক্ষ্মীপুরের কমলনগর থানার পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মাখন লাল রায় ও ট্রাফিক বিভাগের উপ-সহকারী (টিএসআই) বাহার উদ্দিন। তবে বিদায়বেলায় যথাযথ সম্মান পেয়ে আপ্লুত হয়েছেন তারা। সুসজ্জিত গাড়িতে করে তাদের পৌঁছে দেওয়া হয়েছে বাড়িতে।

শনিবার (১ জানুয়ারি) জেলা পুলিশ লাইন্স থেকে ফুল দিয়ে সাজানো আলাদা দুটি গাড়িতে তাদের নিজ নিজ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হয়।

বিদায়ী মাখন লাল রায় নোয়াখালী জেলা সদর এবং মোঃ বাহার বেগমগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা।

দুই পুলিশ সদস্যকে বিদায় জানান,-জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) এএইচএম কামরুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) পলাশ কান্তি নাথ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) মংনেথোয়াই মারমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মিমতানুর রহমান, কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসলেহ উদ্দিন ও রায়পুর থানার ওসি শিপন বড়ুয়া।।।

এসময় এসপি তাদের সঙ্গে হাত মেলান ও বিভিন্ন দিকনির্দেশনামূলক পরামর্শ দেন। কমলনগরের ওসি মোসলেহ উদ্দিন অবসরপ্রাপ্ত সহকর্মী মাখন লাল রায়ের সঙ্গে কোলাকুলি করেন।

অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা মাখন লাল রায় ও বাহার উদ্দিন তাদের অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, পুলিশ বিভাগ তাদের কাছে একটি পরিবার ছিল। বিদায়বেলা খুবই কষ্টের। বিদায়ের সময় স্যার যে সম্মান জানিয়েছেন তা সারাজীবন মনে থাকবে।

ওসি মোসলেহ উদ্দিন বলেন, মাখন লাল রায়ের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। তিনি খুব ভালো মানুষ ও দক্ষ অফিসার ছিলেন। বিদায়বেলায় তাদের সঙ্গে থাকতে পেরেছি, এটি বড় পাওয়া।

লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) এএইচএম কামরুজ্জামান জানান, জীবনের অর্ধেক সময় তারা দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্বপালন করেছেন। আর প্রতিটি বিদায়ই বেদনার। তাই ছোট্ট আয়োজনে তাদের মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টা করা হয়েছে। তাদেরকে হাসিমুখে বিদায় দেওয়াটা অনেক বড় পাওয়া।

Previous articleলঞ্চে অগ্নিকাণ্ড: নিখোঁজের ৮ দিনেও সন্ধান মেলেনি পপির
Next articleসোনারগাঁ জি. আর. স্কুলে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।