তাবারক হোসেন আজাদ: ৫২ বছর বয়স বৃদ্ধা আইনুল হক দেওয়ান। জীবন ও জীবিকার তাগিদেই বসত বাঁধেন নদী পাড়ে চরে। কখনো ঘরবাড়ি নদীর গর্ভে চলে যায় আবার কখনো আবাদি জমি খেয়ে ফেল ক্ষুধার্ত নদী। প্রকৃতির সঙ্গেই যুদ্ধ করে জীবনের শেষ কিনারায় উপনীত হয়েছেন। শরীর ভালো না। মাঝে মধ্যেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। দুই দিন আগে গুরুত্ব অসুস্থ হয়ে পড়লে তার সন্তানরা মেঘনা নদী পার হয়ে হাসপাতালে যান। শুধু আইনুল হকের এরকম দশা হয়েছে তেমনটি নয়। চরের প্রত্যেক মানুষের বাস্তবচিত্র এটি। কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে ৫-১০ কিলোমিটার কাঁদামাটির পথ কাঁধে করে রোগীকে নিতে হয় গ্রামের ক্লিনিক ও সদর হাসপাতাল।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে-মেঘনা নদীর চর এলাকার তিনটি ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষের জরুরি চিকিৎসা সেবায় এ রকম দুর্ভোগ কষ্ট পোহাতে হয় প্রতিদিন। চরের মানুষরা জরুরী চিকিৎসা সেবা না পেয়ে অবর্ননীয় কষ্টে আছেন। চরগুলোতে মা ও শিশু মৃত্যুর ঘটনাও ঘটে হরহামেশায়।চরাঞ্চলগুলোতে প্রায় লক্ষ্মাধিক মানুষের বাস হলেও মৌলিক সুযোগ সুবিধা থেকে অনেকটাই বঞ্চিত তারা। নদী ভাঙ্গনে গৃহহীন হয়ে ভাসমান অবস্থায় জীবন যাপন তাদের। নাজুক শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার পাশাপাশি দুর্গম যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে উন্নয়নের মূলধারা থেকে পিছিয়ে চরের মানুষ। উপজেলার অংশবিশেষ জুড়ে বিস্তৃত এই চরাঞ্চলে প্রায় লক্ষাধিক মানুষের বসবাস। তীব্র নদীভাঙ্গন, বন্যা, খরাসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা করে বেঁচে থাকতে হয় তাদের।

রোববার (২ জানুয়ারী) দুপুরে রায়পুর উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ১২০ জন সদস্যদের শপথ অনুষ্ঠানে চরের সমস্যাগুলো নিয়ে একজন চেয়ারম্যান উত্তাপন করেন। খাস জমি বন্দবস্তসহ মৌলিক অধিকার কিভাবে পেতে পারে চরবাসী তা ইউএনওকে জানাতে বলেন জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোছাইন আকন্দ। তিনিও চরাঞ্চল পরিদর্শন করে দ্রুত ব্যবস্থার আশ্বাস দেন।

রায়পুর শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে দক্ষিন চরবংশি ইউপির মোল্লারহাট, মিয়ারহাট, টুনির চর,, মাঝির চর, বঙ্গ চর, সালু মাঝির চর, মেঘনার চর, বড়ো চর, দক্সিন চরকাছিয়া, খালের মাঝির চর, সৈয়ার বাজার চর, গুলুর চর, হাকিম আলীর চর, উত্তর চরবংশি ইউপির চরকাছিয়া, চরজালিয়া, মেঘনা বাজার, গুলগুইল্লার চর, গোবিন্দপুর চর ও উত্তর চরআবাবিল ইউনিয়নের হায়দরগঞ্জের বেরিবাঁধ, চরপাঙ্গাসিয়া, চরপক্ষি, চরআবদুল্লাহ। নৌকা বা ট্রলারে মেঘনা পাড়ি দিতে এক ঘণ্টার যাত্রা। চরে ঢুকতেই চোখে পড়ে ভাঙ্গন র শিকার মানুষদের নতুন করে ঘর বানানোর দৃশ্য।

ভাঙ্গন কবলিত এসব মানুষের চাওয়া চরের আশেপাশে স্থায়ী বেষ্টনি। চরে সবচেয়ে নাজুক স্বাস্থ্যসেবা। কয়েকটি চর মিলিয়ে একটি কমিউনিটি ক্লিনিক। যা নদীর এপার এসে চিকিৎসা নিতে হয়। যা আবার বেশিরভাগ সময়ই থাকে বন্ধ। জরুরী স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজনে পাড়ি দিতে হয় মেঘনা , রাতের বেলায় যা অনেকটাই অসম্ভব।

মেঘনার উত্তর পাশ থেকে শুরু করে উত্তর প্রান্ত হাইমচর পর্যন্ত মেঘনার অববাহিকায় হাজারের বেশি চর জেগেছে। এসব চরের মধ্যে ১৫টি চরে মানুষ বসবাস করে। শিক্ষার আলো, স্বাস্থ্যসেবা, সড়ক সেবাসহ প্রায় সব ধরনের নাগরিক সেবা বঞ্চিত বরাবরই এই মানুষগুলো। বালির মাঝেই চাষাবাদ এবং গরু ছাগল পালন এদের প্রধান পেশা। এখন অবশ্য অনেক চরে মরিচ, আলু, বাদাম, গোম, ভুট্টাসহ প্রায় সব রকমের ফসলের চাষ হয়। তার পরেও এই চারের কৃষিকরা বঞ্চিত কৃষি সেবা থেকেও। কিছু না পেলেও এই মানুষগুলোর না পাওয়ার কোনো অভিযোগ নেই।

টুনুর চরের আবদুল আজিজ ও আছিয়া খাতুন বলেন, আমাদের মৌলিক অধিকার বলতে কিছুই নাই। আমরা চরের মানুষ নিজেদের মতো করে ভালো আছি। আমরা ভালো থাকতে চাই। কারো কাছেই আমাদের চাওয়ার কিছু নেই। জনবসতি এসব চরের মানুষরা আধুনিক বাংলাদেশ থেকে অনেক দূরে এখনো অবস্থান করছে। মোবাইল নেটওয়ার্ক নেই ও সুপীয় পানির ব্যবস্থা নাই। সমসাময়িক প্রেক্ষাপট, দ্বীন-দুনিয়ার অনেক তথ্য থেকে তারা এখনো অনেক ব্যবধানে আছে।

বেশির ভাগ চরে বালির মাটি হওয়ার কারণে রাস্তা বাধার কোন পরিস্থিতি নেই। তবে যেসব চর দীর্ঘদিন আগে জেগেছে সে সব চরে এখন দোঁ-আশ, এঁটেল মাটির স্তর তৈরি হয়েছে। এসব এটেল, দোঁ-আশ মাটির চরগুলোতেও রাস্তা ঘাট চোখে পড়ে না। প্রায় দশ কিলোমিটার রাস্তা পায়ে হেঁটেই তাদের স্থানীয় বাজারে কেনাবেচা করতে হয়। বিশেষ করে এসব চরাঞ্চলের কৃষিপণ্য বিক্রির সময় চাষিদের বিপাকে পড়তে হয়। ঘাড়ে-পিঠে বহন করেই বাজার পর্যন্ত আনতে হয় তাদের। তবে বর্ষা মৌসুমে প্রতিটি বাড়ির কিনারায় পানি ওঠায় নৌকায় এসব পণ্য বহন করতে সুবিধা হয়। এই সুবিধা বেশি দিন স্থায়ী হয় না। মাস দুয়েক পরে আবারো আগের হালে চলে চরের মানুষ।

দক্ষিন চরবংশি ইউপি নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আবু সালেহ মিন্টু ফরায়েজি ও উত্তর চরবংশি ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন বলেন-নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এবং চরের উন্নয়নের জন্য সরকারকে আরো বেশি নজর দিতে হবে। তাদের নিয়ে কাজ করতে হবে। চরবাসিদের কাজে লাগাতে হবে। চরের মানুষ অনেক পরিশ্রমী, তাদের শ্রমকে সম্পদে পরিণত করা শুধু উদ্যোগের ব্যাপার। যদিও বেসরকারি কিছু এনজিও চরের মানুষদের ভাগ্য পরিবর্তনের কথা বলে দু-একটি প্রল্পের কার্যক্রম চালিয়েছে। তবে এসব প্রল্পের বেশির ভাগই লোক দেখানো মাত্র। নদীপাড়ের মানুষদের ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন না হলেও ভাগ্যের পরির্বতন হয়েছে এনজিওগুলোর।

চরের মানুষের স্বাস্থবেসা নিশ্চিৎ করার জন্য স্থায়ী চিকিৎসালয় স্থাপন করা সময়ের দাবি। বিশেষ করে একজন সন্তানসম্ভাবা নারীদের যখন প্রসব ব্যথা ওঠে কখন তাদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দেয়ার কিছুই থাকে না চর এলাকায়। এছাড়াও শিশু বৃদ্ধদের বেলাতেও একই অবস্থার সম্মুখীন হতে হয় তাদের। মধ্যযুগীয় পদ্ধতি কাঠের চকিতে রোগীকে শুয়ে তাতে বাঁশ লাগিয়ে ঘাড়ে করে বহন করে অনেক পথ পাড়ি দিয়ে হাসপাতালে আনতে হয়। শিক্ষা উপযুক্ত পরিবেশ না থাকায় চরের শত শত শিশু প্রথমিক শিক্ষা থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে। হাতে গোণা প্রাথমিক শিক্ষার স্বল্প পরিসরে থাকলেও বেশির ভাগ চরেই নেই। মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না থাকায় চরের শিশু কিশোররা শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হয়ে শ্রমের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। মেয়েদের কিশোরীকালেই বিবাহ দিয়ে দিচ্ছেন পরিবারের পক্ষ থেকে।

চরবাসিরা বলেন, আধুনিক বাংলাদেশে এই অঞ্চলগুলোয় এখনো বাল্যবিবাহ প্রতিনিয়তই হচ্ছে। তাদের সেই ভাবে সচেতনা সৃষ্টির জন্য কেউ এগিয়ে আসছে না। বাংলাদেশ সামনের দিকে এগুলোও দিন দিন পেছনের পথে হাঁটছে চরের উল্লেখযোগ্য পরিমাণ মানুষ। তাদের ভাগ্যের পরিবর্তনে কেউ না আসলেও নিজেরাই সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাদের প্রচেষ্টার পাশাপাশি সরকার ও সেবামূলক প্রতিষ্ঠান পাশে দাঁড়ালে চরবাসীর জীবন যাত্রার মান কিছুটা হলেও বড়বে বলে মনে করছেন তারা। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ নিজেদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো ছাড়া এই মানুষগুলোর কোনো কাজে পাশে আসে না। পাঁচ বছর পরপর তাদের সাময়িক পদচারণা দেখা গেলেও ভোট শেষে চরের বালুতে আর কখনো পা রাখেন না তারা।

লক্ষ্মীপুর পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আশফাকুর রহমান বলেছেন, জমি বরাদ্ধ না পাওয়ায় চরাঞ্চলের জনৈক মা ও শিশু মৃত্যু ঘটনা আমাকে দারুণভাবে নাড়া দিয়েছে। সেজন্য জেলা প্রশাসককে চেয়ারম্যানদের শপথ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে চরের মানুষের জরুরি চিকিৎসা সেবার প্রয়োজনের কথা জানিয়েছি। তবে তিনি বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে নিয়েছেন এবং ইউপি চেয়ারম্যানদের তত্ত্বাবধানে জমিসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আশ্বাস দিয়েছেন।

Previous articleদেশে করোনায় মৃত্যু বেড়েছে, শনাক্ত ৭ শতাধিক
Next articleবাংলাদেশের দর্শকদের কাছে ক্ষমা চাইলেন সাবেক কিউই ব্যাটসম্যান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।