ওসমান গনি: কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৯ টিতেই ভরাডুবি হয়েছে নৌকা প্রতীকের ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের। ১২টি ইউনিয়নের ফলাফলে ৩ টিতে আওয়ামী লীগ, ৯টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে।

৯ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে ৫জন আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী, ১জন আওয়ামী লীগ সমর্থিত স্বতন্ত্র, ২জন বিএনপি সমর্থিত স্বতন্ত্র ও ১জন জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী।

পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বুধবার (৫ জানুয়ারী) সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে একটানা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনের কন্ট্রোল রুম থেকে ফলাফল ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার আহসান হাবীব।
বিজয়ী চেয়াারম্যান প্রার্থীরা হলেন- ১নং শুহিলপুর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু বকর ছিদ্দিক ৩ হাজার ২৮৭ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি চশমা প্রতীকে আওয়ামী লীগ সমর্থক প্রার্থী রফিউদ্দিন ৩ হাজার ১৩৫ ভোটে পেয়েছেন।

২নং বাতাঘাসী ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে বিএনপি সমর্থক স্বতন্ত্র প্রার্থী এড. মো. সাদেক ২ হাজার ৭৬০ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আনারস প্রতীকে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুজ্জামান ভূইয়া মানিক পেয়েছেন ২ হাজার ৩৪৯ ভোট।

৩নং মাধাইয়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ৩৭৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. অহিদ উল্লাহ্ আনারস প্রতীকে ৫ হাজার ১০৭ ভোট পেয়েছেন।

৫নং কেরণখাল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সুমন ভূইয়া আনারস প্রতীকে ৪ হাজার ৩৮৫ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়াীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. হারুন অর-রশিদ নৌকা প্রতীকে ২ হাজার ৭৫৪ ভোট পেয়েছেন।

৬নং বাড়েরা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আহসান হাবীব ভূইয়া আনারস প্রতীকে ৪ হাজার ৫২৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এলডিপি সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. জালাল উদ্দীন কালা ঘোড়া প্রতীকে ৩ হাজার ০২৩ ভোট পেয়েছেন।

৭নং এতবারপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ইউসুফ আনারস প্রতীকে ২ হাজার ৫১১ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়াীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী একেএম মামুনুর রশিদ আবু ১ হাজার ৬৪৯ ভোট পেয়েছেন।

৮নং বরকইট ইউনিয়নে সাবেক বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান নূরে আলম ঘোড়া প্রতীকে ৩ হাজার ১৯৮ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়াীলীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবুল কালাম টেবিল ফ্যান প্রতীকে ২ হাজার ৮৪৭ ভোট পেয়েছেন।

৯নং মাইজখার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শাহ্ সেলিম প্রধান আনারস প্রতীকে ৯ হাজার ৭৫৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়াীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. জামাল উদ্দীন ৯ হাজার ৪৬৮ ভোট পেয়েছেন।

১০নং গল্লাই ইউনিয়নে প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল করিম দর্জি (চশমা) ৬ হাজার ৭২৮ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম আনারস প্রতিকে ৪ হাজার ৪৪০ ভোট পেয়েছেন।

১১নং দোল্লাই নবাবপুর ইউনিয়নে চশমা প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াত নেতা শাহজাহান মিয়া ৭ হাজার ১০৬ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি নৌকা প্রতীকে বর্তমান চেয়ারম্যান সাহাবউদ্দিন মাস্টার পেয়েছেন ৪ হাজার ৭৩২ ভোট।

১২নং বরকরই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাইফুল ইসলাম মজুমদার শিপন নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ৬৮৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী শামসুল আলম চৌধুরী রতন ঘোড়া প্রতীকে ৫ হাজার ৫৪১ ভোট পেয়েছেন।

১৩নং জোয়াগ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইঞ্জি. আব্দুল আউয়াল খান নৌকা প্রতীকে ৪ হাজার ৮৯১ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবু তাহের ভূইয়া ঘোড়া প্রতীকে ৪ হাজার ৭১৫ ভোট পেয়েছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আশরাফুন নাহার জানান, জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারের সঠিক দিক নির্দেশনায় পর্যাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নিরপেক্ষ ভোট গ্রহণ সম্পন্ন করেছি। চান্দিনায় কোন রকম অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই ভোটারদের শতস্ফূর্ত উপস্থিতিতে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন করাটাই আমাদের সফলতা। কে জয়ী হলো বা কে পরাজিত হলো সেটা দেখার বিষয় নয়।

প্রসঙ্গত, চান্দিনার ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে ১২টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৭৬জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। তাদের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, কমিউনিস্ট পার্টি ও জাকের পার্টি সমর্থিত ২৫জন। বাকি ৫১জন স্বতন্ত্র প্রার্থী।

 

ওসমান গনি

Previous articleআড়াই মাস পর প্রবাসীদের সহযোগিতায় দেশে ফিরলো জহিরের লাশ
Next articleকেশবপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থী পেলেন মাত্র ২ ভোট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।