ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: প্রায় ১০ বছর আগে স্বামী পরিত্যাক্তা ও ভূমিহীন নারী মুক্তারা বেগমকে নিজের জায়গাতে বাড়ি করতে দিয়েছিলেন সদ্য অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী। কিন্তু নির্বাচনে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট করার কারনে তার বাড়ি ভাংচুর করে তাড়িয়ে দিয়েছে নৌকার প্রার্থীর সমর্থকরা। এমনকি ঘরে থাকা নগদ অর্থ ও বিভিন্ন আসবাবপত্র লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। ভোট না দেয়ার অভিযোগে কোনরকম সময় না দিয়ে হঠাৎ এমন বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর উপজেলার গোবরাতলা ইউনিয়নের রিপনমোড় নামক এলাকায়।

ভুক্তভোগী, তার পরিবার, প্রতক্ষ্যদর্শী ও স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, গোবরাতলা ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ছিলেন সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরাফুল ইসলাম আজিজি। সদ্য অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে তিনজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ৪৬৬৭ ভোট পেয়ে তিনি তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন। এই ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী রবিউল ইসলাম টিপু চশমা প্রতীকে ৭২৮১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আরেক বিএনপি নেতা তাসেম আলী আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৫৪১৩ ভোট।

অভিযোগ উঠেছে, নির্বাচনে হেরে নৌকার সমর্থকরা হঠাৎ করে গত শনিবার (০৮ জানুয়ারী) সন্ধ্যায় মুক্তারা বেগমের বাড়িতে ভাংচুর চালায়। এসময় তাদেরকে বাড়ি থেকে কোনকিছু বের করারও সুযোগ দেয়া হয়নি। উচ্ছেদের পরে রাত ১১টার ভাঙা বাড়ির মধ্যে খোলা আকাশের নিচে আশ্রয় নিলেও তাড়িয়ে দেয় নৌকার সমর্থকরা। এমনকি আগুন ধরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে তারা। এখনও অবশিষ্ট থাকা বাঁশের খুঁটিগুলো সরিয়ে নিতে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ মুক্তারা বেগমের।

ইউপি নির্বাচনে স্বামী পরিত্যাক্তা-ভূমিহীন মুক্তারা বেগম আনারস প্রতীকের নিজের ভোট করেছেন বলে স্বীকার করেছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী তাসেম আলী। অন্যদিকে, নির্বাচনে হারার কারনে বাড়ি ভাংচুর করা হয়নি বলে দাবি নৌকার প্রার্থী আরাফুল ইসলাম আজিজির।

জানা যায়, সাবেক চেয়ারম্যান আরাফুল ইসলাম আজিজির ইচ্ছাতেই তার জমিতে ১০ বছর আগে বাড়ি নির্মাণ করে মুক্তারা বেগম। এর পর থেকে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ূয়া একমাত্র মেয়েকে নিয়ে সেখানেই বসবাস করতেন তিনি। বাড়ির সাথেই রাস্তা সংলগ্ন ছোট্ট মুদিখানার দোকান ও কয়েকটি ছাগল পালন করেই তার সংসার চলতো। এছাড়াও এলাকার বিত্তবানদের সহায়তা, অন্যের বাড়িতে কাজ করে যা উপার্জন হতো তা দিয়েই মেয়ের পড়াশোনার খরচ যোগাতো মুক্তারা বেগম। বাড়ি ভাংচুর করার এখন আশ্রয় নিয়েছেন ছোট ভাই সাদিকুল ইসলামের বাড়িতে।

মুক্তারা বেগম বলেন, দোকান চালিয়ে ও মানুষের বাড়িতে কাজ করে অভাবের সংসার চালায়। নিজের জায়গা নাই, তাই চেয়ারম্যানের দেয়া জায়গায় খড় ও টিন তুলে বসবাস করি। যা উপার্জন করি, তা দিয়েই মেয়েকে নিয়ে খায়। সরকার এতোগুলো বাড়ি দিচ্ছে, এলাকার মেম্বার-চেয়ারম্যানদের কাছে একটি সরকারি বাড়ি চাইলে তারা জানায়, তোমাকে তো চেয়ারম্যান জায়গা দিয়েছে, ওখানেই থাকো। তাই স্বামী পরিত্যাক্তা ভূমিহীন হয়েও সরকারি বাড়ি পায়নি।

তিনি আরও বলেন, সকাল হলেই আমার কিভাবে দিন পার হবে তা নিয়েই চিন্তা করতে হয়। আমার এসব ভোট করার সময় নাই। কিন্তু তারপরও নৌকার ভোট না করার কারনে আমার বাড়ি ভাংচুর করেছে ১৫-২০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর লোকজন৷ বাড়ি ভাংচুর করে আমাকে তাড়িয়ে দিয়েছে। আগে একবার বলে আসবাবপত্র সরানোরও সুযোগ দেয়া হয়নি। ভাংচুরের সময় অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে তারা। এমনকি রাত ১১টার দিকে বাড়িতে খোলা আকাশের নিচে রাত কাটাতে গেলেও বাধা দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে তারা। এমনকি এখনও পড়ে থাকা বাঁশগুলো উঠিয়ে নেয়ার জন্য বারবার বলেছে চেয়ারম্যানের একজন দফাদার।

ভাংচুর করার পর বোনকে আশ্রয় দিয়েছেন সাদিকুল ইসলাম। এখন তার বাড়িতেই আছে মুক্তারা বেগম ও তার মেয়ে। তিনি জানান, স্বামী পরিত্যক্তা হয়ে নিরুপায় হওয়ার কারনে আমাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে চেয়ারম্যান নিজেই তাকে বাড়ি করতে দিয়েছিল। এখন নৌকায় তার পক্ষে ভোট না করার কারনে বাড়ি ভাংচুর করে তাড়িয়ে দিয়েছে। তবে এর কোন প্রতিবাদ করারও সুযোগ নেই। তবে ঘটনার পর চেয়ারম্যানের ভাইয়ের কাছে গেছিলাম। তিনি জানিয়েছেন, ভোটের পর এখন আমার ভাইয়ের মাথা ঠিক নাই। এসব বিষয়ে পরে কথা বলবো।

মুক্তারা বেগমের বড় বোন জাহানারা জানান, ঘটনার সময় আমরা ছিলাম। বাড়ি ভাংচুর করতে করতে নানারকম খারাপ ভাষায় গালিগালাজ করছিল তারা। ভয়ে কাছে গিয়ে বাধা দিতে পারিনি। তারা যাওয়ার পর দোকানের বিভিন্ন মালামালগুলো আমি বস্তায় ভর্তি করি। এমনকি দোকানের অনেকরকম পন্য তারা নিয়ে চলে গেছে। বাড়িতে থাকা ১৫ হাজার টাকাও তারা লুট করেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঘটনার একজন প্রত্যক্ষদর্শী মুক্তারা বেগমের প্রতিবেশী বলেন, আরাফুল ইসলাম আজিজির জায়গাতে এখানে কয়েকটি পরিবার বসবাস করে। মুক্তারা বেগমও তাদের মতো। সে নৌকার ভোট না করার কারনে আরাফুলের লোকজন বাড়ি ভাংচুর করেছে৷ সবাই তাকিয়ে দেখলেও কেউ প্রতিবাদ করেনি বলে জানান তিনি।

এবিষয়ে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী তাসেম আলী জানান, মুক্তারা বেগম আমার একজন সমর্থক ছিলেন। নির্বাচনে আমার পক্ষে কাজ করেছে। পরে শুনলাম, আমার পক্ষে ভোট করার কারনে নাকি তার বাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। সাবেক চেয়ারম্যান আরাফুল ইসলাম আজিজির জায়গা হলেও শুধুমাত্র ভোট না দেয়ার কারনে ভাংচুরের বিষয়টি অত্যান্ত দুঃখজনক। এঘটনা শোনার পর আমার সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হলেও আমার নির্দেশে তারা শান্ত রয়েছে৷

তবে নৌকায় ভোট না দেয়ায় ভাংচুরের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী আরাফুল ইসলাম আজিজি মুঠোফোনে বলেন, নির্বাচনের সাথে বাড়ি ভাংচুরের কোন সম্পর্ক নেই। আমার জায়গাটিতে অন্য স্থাপনা নির্মাণ করা হবে তাই আমার লোকজন তাদেরকে বের করে জায়গাটি পরিস্কার করেছে। এমনকি এক মাস আগেই মুক্তারা বেগমকে বিষয়টি জানানো হয়েছিল বলে জানান তিনি।

ভাংচুরের দিন রাতে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মোজাফফর হোসেন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। তবে এবিষয়ে আমি বিস্তারিত কিছু বলতে পারব না। উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওবায়দুল হকের সাথে কথা বলতে বলেন তিনি। তবে সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওবায়দুল হককে অন্তত ৯ বার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এবিষয়ে কথা বলতে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইফফাত জাহানের সাথে যোগাযোগ চেষ্টা করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

Previous article‘মা’ হচ্ছেন পরীমণি, বিয়ের খবর প্রথমে জানিয়ে ছিলেন গিয়াসউদ্দীন সেলিমকে
Next articleবাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে মেক্সিকোতে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।