বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে শারীরিক প্রতিবন্ধী এক কিশোরীকে পাচারের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় পুলিশ মনোয়ারা বেগম (৬০) নামের এক নারীকে আটক করেছে।

বুধবার দুপুরে ভুক্তভোগী কিশোরীর পিতা বাদী হয়ে মুলাদী থানায় অভিযোগ করেন। মনোয়ারা বেগম উপজেলার মুলাদী সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ চরডাকাতিয়া গ্রামের আলেক ভুইয়ার স্ত্রী। তিনি গত সোমবার বিকেলে কিশোরীকে নিয়ে বরিশাল একটি হোটেলে দালালের কাছে দেওয়ার চেষ্টা চালান। তবে মনোয়ারা বেগম কিশোরীকে পাচার চেষ্টার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

কিশোরী জানায়, সোমবার বিকেলে মনোয়ারা বেগম তাকে নিয়ে এক আত্মীয়ের বাড়িতে যাওয়ার জন্য বরিশাল যান। বরিশাল সদরে কারও বাসা কিংবা বাড়িতে না গিয়ে একটি হোটেলে ওঠেন। সেখানে মতিউর রহমান নামের এক লোক আসেন। রাতে মতিউর রহমান, মনোয়ারা বেগম এবং কিশোরী একই কক্ষে ছিলেন। রাতে একটি স্ট্যাম্প এনে মতিউর রহমান তাঁর কাছ থেকে স্বাক্ষর নেন। মঙ্গলবার দুপুরে ওই কিশোরী বাড়ি ফিরলে তাঁর পিতা-মাতা জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেন। ওই সময় কিশোরী ঘটনার বর্ণনা দিলে স্থানীয় ইউপি সদস্য আসাদ শরীফ ও গ্রাম পুলিশ রাসেল হোসেন রাতেই মনোয়ারা বেগমকে জিজ্ঞাবাদ করেন।

ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশের সন্দেহ হলে তাঁরা থানা পুলিশকে সংবাদ দেন। পরে মঙ্গলবার রাতেই পুলিশ মনোয়ারা বেগমকে আটক করেন। কিশোরীর পিতা জানান, তাদের না জানিয়ে মনোয়ারা বেগম অসৎ উদ্দেশ্যে তাঁর প্রতিবন্ধী মেয়েকে নিয়ে বরিশালে গেছেন। সেখানে ব্যর্থ হয়ে বাড়িতে ফিরিয়ে দিয়েছেন। এই ঘটনায় মনোয়ার বেগম ও মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে মুলাদী থানায় অভিযোগ দিয়েছেন।

মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস এম মাকসুদুর রহমান জানান, কিশোরীর পিতা দুই জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন। মনোয়ারা বেগমকে জিজ্ঞাবাদ করা হচ্ছে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleবেনাপোলে আমদানিকৃত পণ্যের সাথে অবৈধ পণ্য, ভারতীয় ট্রাক জব্দ
Next articleমুলাদী উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।