গিয়াস কামাল: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের সাদিপুর ইউনিয়নের নানাখী গ্রামে ডাকাতিকালে দুই ডাকাতকে ধাওয়া করে গণপিটুনি দিয়েছে এলাকাবাসী। পরে পুলিশ এসে তাদের গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। বর্তমানে দুই ডাকাত সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পুলিশ পাহাড়ায় চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে উপজেলার নানাখী গ্রামের মাওলানা শফিকুল ইসলাম ও সাদিপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ মোল্লার ভাই আব্দুল হাইয়ের বাড়িতে ডাকাতিকালে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সোনারগাঁও থানায় পুলিশ বাদি হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। গ্রেপ্তারকৃত ডাকাত জাকির হোসেন উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের আমানউল্লাহর ছেলে। কামাল নামের অপর ডাকাত আড়াইহাজার উপজেলার বান্টি এলাকার আব্দুর রহিমের ছেলে। তাদের বিরুদ্ধে সোনারগাঁ, আড়াইহাজার, বন্দরসহ বিভিন্ন থানায় একাধিক ডাকাতিরসহ বিভিন্ন মামলা রয়েছে।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে একদল ডাকাত ডাকাতি করার জন্য দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বাড়িতে প্রবেশের চেষ্টাকালে বাড়ির লোকজনের চিৎকারে এলাকাবাসী জড়ো হয়ে তাদের ধাওয়া দিয়ে আটক করে। এসময় এলাকাবাসী তাদের গণপিটুনি দেয়। খবর পেয়ে তালতলা ফাঁড়ি পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে ফাঁড়িতে নিয়ে আসে। পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। এর আগেও গত শুক্রবার একই গ্রামের আব্দুলাহ মিয়ার বাড়িতে ডাকাতি হয়। আশে পাশের ইউনিয়ন ও এলাকায় ডাকাত দলের মহড়ায় এলাকাবাসী আতংকের মধ্যে ও নিরাপত্তাহীনতায় দিন পার করছেন।

তালতলা ফাঁড়ি পুলিশের ইনচার্জ আবু সাইদ পিয়াল বলেন, ডাকাতদের গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী। তাদের বিরুদ্ধে সোনারগাঁও থানায় মামলা হয়েছে। সোনারগাঁও থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান বলেন, ডাকাতদের পুলিশ পাহাড়ায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা চলছে। কিছুটা সুস্থ্য হলে তাদের নারায়ণগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হবে।

Previous articleসিলেটে নারী কনস্টেবলের একাদিক সংসার নিয়ে আলোচনার ঝড়
Next articleনোয়াখালীতে বিএনপির ১৭৬ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে, যুবদলনেতা গ্রেপ্তার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।