স্বপন কুমার কুন্ডু: পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগে দুই বছরে পাকশী বিভাগীয় রেলে লেভেল ক্রসিংয়ে ২৫ জন নিহত হওয়া ঘটনা ঘেটেছে। অথচ দুর্ঘটনা কমানোসহ সেবার মান বাড়াতে রেলওয়েতে প্রতি বছরই নেয়া হচ্ছে হাজার কোটি টাকার প্রকল্প। কিন্তু রেলক্রসিংয়ে নিরাপত্তা রক্ষায় নেই উদ্যোগ। পাকশী রেলওয়ের অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং মৃত্যুফাঁদ। অনুমোদিত রেলক্রসিংয়ের একটি বড় অংশই অরক্ষিত। যেকারণে ঘটছে একের পর এক দুর্ঘটনা। দুর্ঘটনার পর তদন্ত কমিটি হয়, প্রতিবেদনও হয়। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয় না। দুর্ঘটনা কমাতে কার্যকরি উদ্যোগ গ্রহন এখন জরুরী হয়ে পড়েছে।

খুলনা-মৌচাক, ঈশ্বরদী-চিলাহাটি, আব্দুলপুর-রহনপুন, পোড়াদহ-গোয়ালন্দঘাট,মাঝগ্রাম-ঢালারচর, পাচুরিয়া-ভাঙা, কালুখালী-ভাটিয়াপাড়া এবং কাশিয়ান-গোপালগঞ্জ পর্যন্ত বিস্তৃত পাকশী বিভাগীয় রেলপথ। এসব রেলপথে মোট ২২৩টি রেলক্রসিং রয়েছে। মাত্র ৬০টি রেলক্রসিংয়ে গেটম্যান রয়েছে। তবে তাও পর্যাপ্ত নয়, রয়েছে লোকবল সংকট। অরক্ষিত রেলক্রসিংই রয়েছে ১৬৩টি। এসব রেলগেটে কোনো গেটম্যান নেই।

অরক্ষিত ১৬৩টি রেলক্রসিং এর মধ্যে পাকশী রেলওয়ে বিভাগ থেকে রেলগেট নির্মাণ করা হয়েছে ২২টি। বাকি ১৪১টি রেলগেটই অবৈধ। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এগুলো কোনো গেটম্যান নিয়োগ দেয়নি । স্থানীয়রা যে কোনো সময় বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন। তারা বলছেন, অরক্ষিত এসব রেলক্রসিংয়ে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। নেই সংকেত বাতি, নেই নিয়ন্ত্রণের কোন রেল কর্মী।

পাকশী বিভাগীয় রেলপথের রেললাইনে গত দুইবছরে ট্রেন দুর্ঘটনায় প্রাণহানি হয়েছে ২৫ জনের। ২০২০ থেকে ২০২২ এই দুই বছরে ২৩টি ট্রেন দুর্ঘটনার মধ্যে অরক্ষিত লেবেল ক্রসিং এলাকায় দুর্ঘটনা ঘটেছে ৮টি। এরমধ্যে রেলের পাকশী বিভাগের অরক্ষিত রেলক্রসিং দিয়ে ট্রেন চলাচলের সময় কোনো বাধা না থাকার কারণে ৮ বার ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। মুখোমুখী ট্রেন দুর্ঘটনা ও ইঞ্জিন বিকল হয়ে দুইবার ট্রেন দুর্ঘটনায় পড়েছে । অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ের কারণে মানুষ অহরহ পড়ছেন দুর্ঘটনায়। পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বাণিজ্যিক বিভাগ, পশ্চিমাঞ্চলীয় রেল ও বিভিন্ন দপ্তরে খোঁজ নিয়ে এসব তথ্য জানা যায়।

রেল সূত্র জানায়, অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে মানুষের প্রাণহানিতে রেলের দায়বদ্ধতা নেই। যানবাহন চলাচলের কারণে রেললাইন যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হয়, সেজন্য যানবাহন ও মানুষ পারাপারের জন্য রেল কর্তৃপক্ষ একটি সতর্কবাণী সংবলিত সাইনবোর্ড লাগিয়ে দায়িত্ব শেষ করেছে।

পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের সহকারী পরিবহণ কর্মকর্তা (এটিও) সাজেদুল ইসলাম বাবু বলেন, পাকশী বিভাগী রেলওয়ের অরতি রেলক্রসিয়য়ের বেশির ভাগই অবৈধভাবে করা। যাতায়াতের সুবিধার্থে স্থানীয়রা করেছে। অনুমোদন নিয়ে আমরা অরতি লেভেল ক্রসিংগুলো সংরতি করতে কাজ করে যাচ্ছি।

পাকশী বিভাগীয় সংকেত ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশলী (টেলিকম) সৌমিক শাওন কবীর জানান, লেবেল ক্রসিং এ দুর্ঘটনা কমাতে পাকশী বিভাগীয় রেলের আওতায় লেবেল ক্রসিংয়ের গেটম্যানকে মোবাইল দেয়া হচ্ছে। বিভাগীয় কন্ট্রোল রূম, স্টেশন মাস্টার ও রেলওয়ে কমকর্তাদের সাথে যেন সার্বিক যোগাযোগ রাখতে পারে। এছাড়াও অরতি রেলক্রসিংগুলোতে গেটতৈরি ও গেটম্যান নিয়োগের বিষয়টিও পর্যায়ক্রমে সমাধান হবে।

Previous articleরংপুর কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের ১০ তলা একাডেমিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন
Next articleসাংবাদিক মনিরুজ্জামানের রুহের মাগফেরাতে টাঙ্গাইল জামায়াতের দোয়া
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।