শফিকুল ইসলাম: গায়ে পুরাতন হাফ শার্ট আর পরণে লুঙ্গি। তাঁর ঘাড়ে আছে গামছা। তাঁর শরীরের পোশাক-আশাক বলে দিচ্ছিল, গায়ে গতরখাটা মানে দিনমুজর মানুষ তিনি। তাঁর নাম নজরুল ইসলাম (৪৯)। জয়পুরহাট সদর উপজেলার জয়পার্ব্বতীপুর গ্রামে। তাঁর ছেলে নাজমুল হোসেন বাংলাদেশ পুলিশের ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে মনোনীত হয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যায় চুড়ান্ত ফলাফল ঘোষনার পর রাত আটটায় কনস্টেবল পদে মনোনীত ২৫ জনকে জয়পুরহাট পুলিশ লাইনসের ড্রিল শেডে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান পুলিশ সুপার (এসপি) মাছুম আহাম্মদ ভুঞা। এসময় তাঁদের অভিভাবকেরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

জয়পুরহাট জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পুলিশ সুপার চুড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের ও তাদের অভিভাবকদের জন্য ইফতারের আয়োজন করেন। নির্বাচিত প্রার্থীদের মধ্যে অনেকেই অসচ্ছল পরিবারের সন্তান।

কনস্টেবল পদে মনোনীত নাজমুল হোসেন ফুলেল শুভেচ্ছা নেওয়ার পর তাঁর বাবা নজরুল ইসলামকে পাশে নিয়ে অভিব্যক্ত করছিলেন। তখন নাজমুল হোসেনের বাবা নজরুল ইসলামের গায়ে পুরাতন হাফ শার্ট পরণে লুঙ্গি আর ঘাড়ে গামছা ছিল।

নাজমুল হোসেন চোখে আনন্দশ্রুু নিয় বলছিলেন, আমার বাবা দিনমুজরি করেন। আমাদের সহায়-সম্পদ বলতে বসতবাড়ি ছাড়া কিছুই নেই। আমার বাবা আমাকে অনেক কষ্ট করে লেখাপড়া করিয়েছেন। আমার বাবার এক হাজার টাকা দেওয়ার মতো পরিস্থিতি নেই। আমি মেধার ভিত্তিতে আজকে পুলিশের কনস্টেবল পদে মনোনীত হয়েছি।

এবার জয়পুরহাট জেলায় ২৫ জন কনস্টেবল পদে চুড়ান্তভাবে মনোনীত হয়েছেন। এরমধ্যে চার জন নারী রয়েছেন। কনস্টেবল পদে চুড়ান্তভাবে মনোনীত ২৫ জনের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি দরিদ্র পরিবারের ছেলে-মেয়ে। তাঁদের কেউ এতিম, আবার কারও মা- বাবা বেঁচে নেই। কারও বাবা দিনমজুর, আবার কারও সিএনজিচালক, রাজমিস্ত্রির সহকারী, দোকান কর্মচারী।

কনস্টেবল পদে চুড়ান্তভাবে মনোনীত ও তাঁদের অভিভাবকেরা বলেন, আমরা আগে শুনেছি পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরি পেতে লাখ-লাখ টাকা ঘুষ লাগত। শুধু আবেদন ফি দিয়ে পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরি হবে তা কোন দিন কল্পনা করেননি তাঁরা। নিয়োগবিধিতে পরির্বতন আসায় তাঁদের মতো গরীব ঘরের সন্তানেরা পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরি পাচ্ছে। একারণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), পুলিশ সুপার (এসপি) ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন তাঁরা।

কনস্টেবল পদে মনোনীত আল-আমিন বলেন, আমি একজন এতিম। আমার বাড়ি আক্কেলপুর উপজেলার মির্জাপুর বড়গাছা গ্রামে। আমি ছোট্ট থাকতে আমার বাবা মোহসিন মন্ডল মারা যান। কিছুদিন পর আমার মা দ্বিতীয় বিয়ে করেন। আমার ঠাঁই হয় জয়পুরহাট সরকারি শিশু পরিবারে। সেখানেই বড় হয়েছি। আমার একটি টাকাও ঘুষ দেওয়ার সামর্থ্য নেই। শুধু মেধা আর যোগ্যতার ভিত্তিতে পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকরি হবে তা কখনো কল্পনা করিনি। আমিও চাকুরিজীবনে একইভাবে মানুষদের বিনে পয়সায় সেবা করব।

কনস্টেবল পদে মনোনীত লাবনী সাহার বাবা লিটন চন্দ্র সাহা কাঁদতে-কাঁদতে বলেন, আমি মুদিখানার দোকানের কর্মচারী। খুব কষ্টে মেয়ে লেখাপড়া করিয়েছি। সামান্য বেতনে সংসার চালাতে খুব কষ্ট হয়। শুধু আবেদন ফি দিয়ে আমার মেয়ে কনস্টেবল পদে চাকরি পাবে তা কল্পনা করিনি। আমার মেয়ে কনস্টেবল পদে চাকরি পাওয়ায় কি যে আনন্দ লাগছে সেটি কাউকে বুঝাতে পারব না।

কনস্টেবল পদে নিয়োগের জন্য চূড়ান্তভাবে মনোনীত জয়পুরহাট সদর উপজেলার দড়িপাড়া গ্রামের মো: রফিকুল ইসলাম এর ছেলে রাফিক মাহবুব বলে, আমার বাবা রাজমিস্ত্রীর কাজ করে। আমাদের নিজস্ব কোন জায়গা জমি নেই। আমার বাবার পক্ষে আমার লেখাপড়া ও সংসার খরচ একসাথে চালানো খুব কষ্টকর হয়ে যায় । কোন প্রকার আর্থিক লেনদেন ছাড়াই বাংলাদেশ পুলিশে চাকরি হওয়ার কথা আমি কখনো কল্পনাতেই আনতে পারি নাই। আমি কথা বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। এসপি স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

কনস্টেবল পদে নিয়োগের জন্য চুড়ান্তভাবে মনোনীত কালাই উপজেলার পাঁচগ্রাম গ্রামের মো: মাহফুজার রহমান এর মেয়ে মোছা: আসমা খাতুন সুমি বলে, আমার বাবা শ্রমিক হিসেবে কাজ করে আমাদের সংসার চালায়। আমি বিনা পয়সায় চাকুরী পেয়েছি এখন আমি আমার পরিবারকে স্বচ্ছলভাবে গড়ে তুলতে পারব।

কনস্টেবল পদে নিয়োগের জন্য চুড়ান্তভাবে মনোনীত পাঁচবিবি উপজেলার কুলচ্য ছাতিনালি গ্রামের মৃত মনোয়ার সরকার এর ছেলে মো: নাজমুল সরকার বলে, আমার বাবা পুলিশে চাকুরীরত অবস্থায় আসামী গ্রেফতার করতে গিয়ে সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যায়। এবার আমি বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করে বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে পারবো।
চূড়ান্তভাবে মনোনীত জয়পুরহাটের সদর উপজেলার খঞ্জনপুর মিশনপাড়া গ্রামের শ্রী নয়ন সরকার এর মেয়ে স্মৃতি রানী সরকার বলে, আমাদের আর্থিক অবস্থা খুবই শোচনীয়। আমার বাবা সিনজি চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। ভাই বোন সহ আমার পড়াশুনার খরচ চালাতে আমার বাবা হিমসিম খায়। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয় এবং আইজিপি স্যার ও এসপি স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

কনস্টেবল পদে নিয়োগের জন্য চূড়ান্তভাবে মনোনীত ক্ষেতলাল উপজেলার মামুদপুর নারায়নপাড়ার খলিলুর রহমান এর ছেলে মো: রাজু সরদার বলে, আমার বাবা পেশায় রাজমিস্ত্রীর সহকারী হিসেবে কাজ করে। বাবার মাসিক আয় খুব অল্প হওয়ায় আমার মা সঠিক চিকিৎসা পর্যন্ত পায় না। মায়ের দুইটি কিডনী নষ্ট হয়ে অসুস্থ অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। এবার আমি সরকারী চাকুরী করে সংসারের হাল ধরতে পারব। আমি এসপি স্যারের বিশেষভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

জেলা পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, অনলাইনের আবেদনের পর গত ২২ মার্চ জয়পুরহাট জেলায় ২৫ জন পুলিশের কনস্টেবল পদে লোক নিয়োগের কার্যক্রম শুরু হয়। প্রথম দিন প্রাথমিকভাবে ৮৭৬ জন মনোনীত হন। ওইদিন ৭১৬ জন পরীক্ষার জন্য পুলিশ লাইনসে আসেন। তাঁদের শারীরিক উচ্চতা ও কাগজপত্র যাচাই ২৯৬ জনকে মনোনীত করা হয়। পরদিন ২৩ মার্চ তাঁদের দোঁড়, পুশআপ, লং জাম্প ও জাম্প যাচাই করা হয়। এতে ২৬১ জন উর্ত্তীণ হন। ২৪ মার্চ আবারও তাঁদের শারীরিক সক্ষমতা যাচাই করা হয়। এই পরীক্ষা শেষে ১৯২ জন উর্ত্তীন হন। গত ২৯ মার্চ তাঁদের লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হয়। ৯ এপ্রিল লিখিত পরীক্ষার ঘোষিত ফলাফলে ৬৮ জন উর্ত্তীণ হন। ওইদিনই তাঁদের পুলিশ লাইনসের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষা শেষে ২১ জন ছেলে আর ৪ জন মেয়ে কনস্টেবল পদে চুড়ান্তভাবে মনোনীত হন। এরমধ্যে পুরুষের সাধারণ কোটায় ৯ জন, মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৬ জন, পোষ্য কোটায় ২ জন, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর কোটায় ১ জন, আনসার কোটায় ২ জন, এতিম কোটায় ১ জন, নারী কোটায় ৪ জন রয়েছেন। শনিবার সন্ধ্যা সাতটায় পুলিশ সুপার (এসপি) মাছুম আহাম্মদ ভুঞা আনুষ্ঠানিকভাবে চুড়ান্ত ফলাফল ঘোষনা করেন। এসময় বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোঃ মোতাহার হোসেন, সিরাজগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার ( কামারখন্দ সার্কেল) মোঃ শাহীনুর কবির ও জয়পুরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( প্রশাসন ও অপরাধ) তরিকুল ইসলাম ও গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জয়পুরহাটের পুলিশ সুপার (এসপি) মাছুম আহাম্মদ ভুঞা বলেন, শতভাগ মেধা ও যোগ্যতার মাধ্যমে ২৫ জন কনস্টবল পদে মনোনীত হয়েছেন। জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে তাঁদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। চাকুরি নয় সেবা এই ব্রত নিয়ে কনস্টেবল পদে উর্ত্তীণরা দেশ ও জাতিকে সেবা দেবে এমনটায় প্রত্যাশা করছি।

তিনি আরো বলেন, নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার আগেই আমরা অত্যন্ত সতর্কতার সাথে দালাল ও প্রতারক চক্রকে দমন করার চেষ্টা করেছি এবং সক্ষম হয়েছি। সুষ্ঠু, স্বচ্ছ ও সুন্দরভাবে নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন হওয়ায় আমি ও আমার সদস্যরা অত্যন্ত গর্বিত ও আনন্দিত।

Previous articleইসলামের দৃষ্টিতে পহেলা বৈশাখ
Next articleজামিন পেলেন সম্রাট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।