পাভেল মিয়া: কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তের শিমুলবাড়ী-জুম্মারপাড় এলাকায় ৩০০ মিটার রাস্তা পাকাকরণের কাজসহ ৭৩ মিটার গাইড ওয়ালের নির্মাণকাজ কয়েক দফায় বন্ধ করে দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী (বিএসএফ)।

এ দিকে দফায় দফায় বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠক হলেও কোনো সুরাহা হয়নি। উপরন্তু ভারতীয় কুর্শাহাট ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা এক তরফা ভাবে ৯ দিন ধরে ওই সীমান্তের জিরো লাইনে ভারতীয় অংশে লাল পতাকা উড়িয়ে কাঁটাতারের বাইরে ২৪ ঘণ্টা টহল অব্যাহত রেখেছে।

অন্যদিকে শিমুলবাড়ী ও গঙ্গাহাট ক্যাম্পের বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবির) সদস্যরা বিএসএফকে লাল পতাকা সরিয়ে নিতে বার বার তাগিদ দিলেও জিরো লাইনে ভারতের অংশে লাল পতাকা সরিয়ে নেয়নি বিএসএফ। এ ঘটনায় শিমুলবাড়ী ও গঙ্গাহাট ক্যাম্পের বিজিবির সদস্যরা ফুলবাড়ী টু নাগেশ্বরী নির্মাণাধীন সড়কে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে ২৪ ঘণ্টা টহল জোরদার রেখেছে। বাধ্য হয়ে জিরো লাইন সড়কের নির্মাণকাজ করতে পারছে না ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান অটিবিএল।

শুক্রবার (১৫ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সড়কের কাজ শুরু হলে আবারও বাধা দেয় ভারতের কুর্শাহাট ক্যাম্পের বিএসএফ।

প্রায় ৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ফুলবাড়ী উপজেলার শেখ হাসিনা ধরলা সেতুর কাছে আছিয়ার বাজার থেকে নাগেশ্বরী উপজেলার কলেজ মোড় পর্যন্ত রাস্তা সম্প্রসারণ ও পাকাকরণের কাজ শুরু করে কুড়িগ্রাম সড়ক ও জনপথ বিভাগ। ১৯ কিলোমিটার এ রাস্তার কাজ পায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওটিবিএল। শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের নন্দিরকুটি জুম্মারপাড়ের সীমান্তের ৯৩৭/৮ নম্বর আন্তর্জাতিক পিলার থেকে ৯৩৮ নম্বর পিলার পর্যন্ত ফুলবাড়ী নাগেশ্বরী সড়কটি জিরো লাইনে পড়েছে। এতে প্রায় ৩০০ মিটার সড়ক নির্মাণ এবং ৭৩ মিটার গাইড ওয়াল নির্মাণের কাজ বন্ধ করেছে ভারতের ৯০ বিএসএফ কুর্শারহাট ক্যাম্পের সদস্যরা। উপরন্ত বিএসএফ সদস্যরা সীমান্তে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে সীমান্তের জিরো লাইনে বাঁশের চৌকি তৈরি করে ২৪ ঘণ্টা টহল অব্যাহত রেখেছে। এ দিকে দুদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহীনির সীমান্তে লাল পতাকা ও টহল জোরদার করায় সীমান্তবাসীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

সীমান্ত এলাকার বাসিন্দা আঃবর ও সুমি আক্তার জানিয়েছেন, বিএসএফ যেভাবে লাল পতাকা টাঙিয়ে ২৪ ঘণ্টা টহল অব্যাহত রেখেছে তা দেখে আমরা খুবই শঙ্কিত। তাই আমরা দ্রুত বিষয়টি সমাধানের জন্য দুদেশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

একই এলাকার বাসিন্দা ও ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জান্নাতী বেগম জানান, যেভাবে বিএসএফ রাস্তা নির্মাণকাজে বাধা দিয়েছে তাতে করে সীমান্তবাসীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। দ্রুত বিষয়টি নিষ্পত্তির দাবি জানাচ্ছি।

এবিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাইড ইনচার্জ সফিকুল আজম সিজার সড়ক নির্মাণে বাধা দেওয়ার সত্যতা স্বীকার করে জানান, যখনেই কাজ করতে যাই সেখানেই ভারতীয় বিএসএফ বাধা দেয়। বিএসএফ ওই অংশের ৩০০ মিটার সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। লাল পতাকা টাঙিয়ে ২৪ ঘণ্টা টহল দিচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে লালমনিরহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এস এম তৌহিদুল আলম জানান, সড়কটির কিছু অংশ সীমান্তের জিরো পয়েন্ট থেকে ১৫০ গজের মধ্যে পড়ায় বিএসএফ নির্মাণকাজে আপত্তি জানিয়েছে। তবে আন্তর্জাতিক সীমান্ত আইন অনুযায়ী জিরো পয়েন্ট থেকে ১৫০ গজের মধ্যে কোনো দেশেই পাকা স্থাপনা করতে পারবে না। আমরা সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্মানাধীন জিরো লাইনের ৩০০ মিটার রাস্তার ডিজাইন বিএসএফকে জানিয়েছি। বিষয়টি জনগুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় তাদের কাছ থেকে অনাপত্তি পেলেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি আরও জানান, বিএসএফ লাল পতাকা টাঙিয়ে দেওয়ায় আমরাও লাল পতাকা টাঙিয়ে সীমান্তে শান্তি শৃংখলা রক্ষার্থে ২৪ ঘণ্টা বিজিবির টহল জোরদার রেখেছি।

Previous articleপ্রমাণিত হয়েছে আ’লীগ সরকার অন্যায়ভাবে ক্ষমতায় থাকতে চায়: মির্জা ফখরুল
Next articleনোয়াখালীতে টিসিবির গাড়ি, দোকান বৃদ্ধি, স্থায়ী রেশনিং ও ন্যায্য মূল্যের দোকান চালুর দাবিতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।