বাংলাদেশ প্রতিবেদক: লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার অন্তর্গত ছিটমহল বলে পরিচিত দহগ্রাম ইউনিয়নের আয়তন ২২ দশমিক ৬৮ বর্গ কিলোমিটার। এর মধ্য দিয়ে আবার বয়ে গেছে তিস্তা নদী। এখানে প্রায় ২০ হাজার বাংলাদেশীর বসবাস। ভারত বেষ্টিত দহগ্রাম ইউনিয়নে বাংলাশেীদের মূল ভুখণ্ডে যাতায়াতের একমাত্র প্রবেশ পথ তিনবিঘা করিডোর গেট। ২৪ ঘন্টা এ গেট খোলা থাকলেও গেটের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে ভারতীয় বিএসএফ। এর ফলে পণ্য বিক্রি এবং আসা-যাওয়ায় সাধারণ মানুষকে নানাবিধ সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। একদিকে বিএসএফর বেধে দেয়া নিয়ম, অন্যদিকে নিজ দেশের বিজিবিরও হয়রানির শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। তবে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন গৃহপালিত পশু বিক্রয়কারীরা।

বিএসএফের বেধে দেয়া নিয়মের অতিরিক্ত কোনো পশু বিক্রির জন্য দেশের মূল ভূখণ্ডে নিয়ে যেতে দেয় না বিএসএফ। প্রতি সপ্তাহে ৩০টি করে ৬০টি গরু বিক্রির অনুমতি মেলে বিএসএফের তরফ থেকে। স্থানীয়দের দাবি, দেশের এক ভুখণ্ড থেকে আরেক ভুখণ্ডে পশু যাবে-এতে আবার বিএসএফের অনুমতি লাগবে কেন? অন্যদিকে কেউ খাওয়ার জন্য দহগ্রাম থেকে গোশত আনলেও বিজিবির হয়রানির মুখে পড়তে হয়।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, সপ্তাহের রোববার ও বৃহস্পতিবার দুই দিন দহগ্রামের স্থানীয় কৃষকদের ৩০টি করে ৬০টি গরু বিক্রির জন্য তিন বিঘা করিডোর দিয়ে পাটগ্রাম উপজেলা সদর হাটে নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়। বিজিবি-বিএসএফের উপস্থিতিতে গরুগুলো করিডোর গেট পার করে দেয়া হয়। দহগ্রাম ইউনিয়নে অসংখ্য খামারি আছে। এখানকার প্রায় প্রতিজন কৃষক ৮-১০টি করে গরু পালন করেন। অথচ এখানকার কেউ অসুস্থ হলে তার চিকিৎসা ব্যয় এমনকি পরিবারের কোনো মেয়ে বা ছেলের বিয়েতে পশু বিক্রির প্রয়োজন হলে তার অনুমতি মেলে না।

দহগ্রাম ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রহমান বলেন, মেয়ের চিকিৎসার জন্য গরু বিক্রি করতে পারিনি। চিকিৎসার অভাবে মেয়েটা মারা গেছে। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আমরা কি স্বাধীন দেশে এখনো পরাধীন? কেনো আমরা প্রয়োজনে গরু বিক্রির জন্য নিয়ে যেতে পারি না? দেশের এক ভুখণ্ড থেকে আরেক ভুখণ্ডে পশু নিয়ে যেতে বিএসএফের অনুমতি লাগবে কেন?

দহগ্রামের ২নং ওয়ার্ডের গৃহিনী আয়শা বেগম বলেন, আমরা গরীব মানুষ, খুব কষ্ট করে দুটি গরু পালি। কিন্তু বিক্রি করতে নিয়ে যেতে পারি না। অনুমতির জন্য মাসের পর মাস অপেক্ষা করতে হয়। এতে আমাদের সমস্যার অন্ত থাকে না।

স্থানীয়রা জানান, খাওয়ার জন্য দহগ্রাম থেকে এক কেজি গোশত নিয়ে আসলে করিডোর গেটের দুই পাশে দায়িত্বরত বিজিবি সস্যরা তাদের হয়রানি করেন। অথচ যারা অটো ভ্যানে মনকে মন গোশত নিয়ে আসেন তাদের আটকানো হয় না।

জানা গেছে গত শুক্রবার কয়েক ব্যক্তি খাওয়ার জন্য দহগ্রাম থেকে গোশত নিয়ে আসার পথে সেখানকার বিজিবি ১০৬ কেজি গোশত আটক করে নিলামে দেয়। অথচ এ ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পরই বিজিবি দহগ্রাম থেকে গোশত এনে তা মেসে পাঠায়।

এ বিষয়ে পানবাড়ি বিজিবি কোম্পানি কমান্ডার খাইরুল ইসলাম বলেন, ৯৭ কেজি গোশত আটক করে নিলামে দেয়া হয়েছে। এসব গোশত ইজিবাইকে অভিনব কায়দায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, যারা সুবিধা পাচ্ছে না তারাই নানা কথা বলছে।

পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুর রহমান বলেন, দহগ্রামের বাসিন্দাদের দুর্ভোগ লাঘবে খামারি ও গৃহপালিত গরুর শুমারি করা হচ্ছে। উপজেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ, থানা পুলিশ, বিজিবি, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বারদের নিয়ে শুমারি চলছে। শুমারি শেষ হলে সংখ্যা ও পরিবারের তথ্য বিবেচনা করে সপ্তাহের দুই দিন ৩০টি করে গরু বিক্রি অপ্রতুল হলে কর্তৃপক্ষ ও বিজিবি-বিএসএফের দৃষ্টিগোচরে এনে জনগণের দুর্ভোগ লাঘবের যথাযথ চেষ্টা করা হবে।

Previous articleপাঁচবিবিতে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত
Next articleচান্দিনায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।