স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈদকে সামনে রেখে ঈশ্বরদীর বেনারসী পল্লীতে প্রাণ ফিরেছে। করোনা পরিস্থিতিরকারণে বিগত দুই বছর বেনারসী পল্লী নিস্প্রাণ ছিল । এরইমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে বহু তাঁত, বেকার হয়ে পেশা বদলেছেন কারিগররা। তবে ঈদকে সামনে রেখে বেনারসি তাঁতপল্লীতে শাড়ি তৈরির ধুম পড়েছে। দু’বছর কাজ না হলেও এখন দম ফেলার সময় পাচ্ছেন না কারিগররা।

দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বেনারসি পল্লী ঈশ্বরদী শহরের ফতেহ মোহাম্মদপুর শুক্রবার (২২ এপ্রিল) সরেজমিনে দেখা যায়, তিন শতাধিক কারখানায় কয়েক হাজার কারিগর ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। নারী শ্রমিকের পাশাপাশি আশেপাশের বাড়ির বৌ-ঝিরাও পুঁতি ও কারচুপির কাজ করছেন। ঈদ উপলে শাড়ির পাশাপাশি লেহেঙ্গা, অনারকলি তৈরি হচ্ছে। শাড়িতেও আনা হচ্ছে নতুন নতুন বৈচিত্র। কারিগররা জানান, ফুলকলি, নেট কাতান, পিওর কাতান, বেলী কাতান, জামদানী প্রভৃতি নামের বাহারি শাড়ি তৈরি হচ্ছে।

স্থানীয় তাঁত মালিকরা জানালেন, ঈদকে সামনে রেখে এখন প্রতি সপ্তাহে প্রায় দুই হাজার পিস শাড়ি উঠছে তাঁত থেকে। ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোর বিপণীবিতানে এখানকার শাড়িগুলোই সর্বনি¤œ সাড়ে তিন হাজার থেকে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশের মধ্যে ঢাকা রাজশাহী, খুলনা, কুষ্টিয়া, নাটোর, টাঙ্গাইল ইত্যাদি জেলায় যাচ্ছে বলে তারা জানিয়েছেন।

শ্রমিক মুন্না জানান, একটি শাড়ি তৈরিতে একজন শ্রমিকের ৩-৪ দিন সময় লাগে। দৈনিক ১২/১৪ ঘণ্টা কাজ করে সপ্তাহে দুটি শাড়ি তেরি করা যায়। এবারে কাজের চাহিদা বেশি তাই রাতে জেগে কাজ করতে হচ্ছে।

ব্যবসায়ী জাবেদ হোসেন জানান, এবারের ঈদে বেনারসী শাড়ির চাহিদা বেশি, কিন্তু চাহিদা মাফিক শাড়ি সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। করোনার কারণে অনেকেই পেশা বদলেছেন, সেজন্য কারিগরের সংকটও দেখা দিয়েছে। ঈদে এখন বেচাকেনা ভাল হওয়ায় বেনারসী পল্লীতে কর্মচঞ্চল্যতা বেড়েছে।
ঈশ্বরদী তাঁতী সমিতির সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর ওয়াকিল আলম জানান, এবার ঈদে ব্যবসায়ীদের বেচাকেনা ভাল। কারিগরদের ব্যস্ততা বেড়েছে। রাত জেগে কাজ করতে হচ্ছে। এখানে বাহারি রং, ডিজাইন আর নকশার কাপড় বুনন করা হলেও নিজস্ব ক্যালেন্ডার মেশিন এই পল্লীতে না থাকায় ঢাকার মিরপুর থেকে ক্যালেন্ডার পালিশ করতে হয়। এতে সময় অপচয় হয়ে যাচ্ছে। শুধু সময় নয়, চাহিদা মতো শাড়িগুলো ক্যালেন্ডার করে গ্রাহক পর্যায়ে পৌঁছানোর জন্য গুনতে হয় বাড়তি টাকা।

বেনারসি পল্লীর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার ওবাইদুল রহমান জিলানী ইত্তেফাককে, ঈশ্বরদীর ফতেহ মোহাম্মদপুরে বেনারসি পল্লীর তাঁতীরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। দু’বছর করোনার কারণে বেচাকেনা কম হলেও এবার ঈদে বেনারসির চাহিদা বেশি থাকায় কারিগররা দিনরাত কাজ করছেন। বেনারসি পল্লীর পাশাপাশি বিভিন্ন বাসা বাড়িতে নিজস্ব তাঁত রয়েছে। এছাড়াও শত শত শ্রমিক বিভিন্ন ধরনের শাড়িতে পুঁতি ও কারচুপির কাজে ব্যস্ত। তিনি আরো জানান, এখানকার তাঁতীদের সরকারিভাবে ঋণ প্রদান করা হয়েছে। এসব ঋণের টাকায় তাঁতীরা স্বাচ্ছন্দভাবে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। বেনারসী পল্লীতে নিজস্ব ক্যালেন্ডার মেশিন না থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ক্যালেন্ডার মেশিনের বিষয়ে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

Previous articleসেনবাগে নকল স্বর্ণ বিক্রির সময় সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ২ সদস্য আটক
Next articleভালো কাজ করলে সুষ্ঠু নির্বাচনে ভয় কেন? : ড. আবদুল মঈন খান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।