আরিফুর রহমান: মাদারীপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালর এজলাস কক্ষর বাহির ধর্ষণ মামলার আসামী হাত হাতকড়া নিয় পুলিশর সামনই বাদীর উপর হামলা করার অভিযাগ উঠছ।

বুধবার দুপুর সাড় ১২ টার দিক মাদারীপুর জলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনর ২য় তলায় এ হামলার ঘটনা ঘট। এত ধর্ষণ মামলার বাদী ও তার স্বামী আহত হয়। হামলার ঘটনার একটি ভিডিও ফুটজ এই প্রতিবদকর কাছ সংরক্ষিত আছ।

সংশ্লিষ্ঠ সূত্র জানা গছ, কয়ক মাস আগ মাদারীপুরর কালকিনিত দÍ চিকিৎসক সাইদুর রহমান কিরন কাছ চিকিৎসা নিত যান এক গহবধু। এরপর ওই গহবধুক চিকিৎসার নাম অচতন কর ধর্ষণ কর এবং ধর্ষণর ভিডিও চিত্র ধারন কর রাখ। সই ভিডিও প্রকাশর ভয় দখিয় ডাক্তার কিরন ও তার দুই বন্ধু লাগাতার কয়ক মাস ধর্ষণ কর। পর বাধ্য হয় গহবধু তার স্বামীক জানান। সই ঘটনায় কালকিনি থানায় একটি মামলা কর নির্যাতিতা গহবধু। দÍ চিকিৎসক সাইদুর রহমান কিরন ও তার বন্ধু মহদী হাসান শিকদার, সাহাগ মাল্লাক আসামী করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও বাদী জানায়, ধর্ষণ মামলার আসামী মহদী হাসান শিকদার বুধবার দুপুর ১২ টার দিক নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল হাজিরা দিত আস। পরবর্তীত এজলাসের কক্ষ থক বর হওয়ার সময় মামলার ২ নং আসামী মহদী হাসান শিকদার হাত হাতকড়া পরা অব¯ায় অন্য হাত দিয়, দরজার পাশ দাঁড়িয় থাকা মামলার বাদীর হাত ধর টন নিচ ফল দয়। এবং পটর উপর লাথি মার। পরবর্তীত তার স্বামী এগিয় আসল তাকও আসামীর স্বজন মামুন প্যাদা ও সাহাগ শিকদার মারধার কর। বাদী ও তার পরিবারক হত্যার হুমকি দিয় চল যায়।

ভুক্তভাগী বলন, আসামী মহদী হাসান হাত হাতকড়া পড়া অব¯ায় পুলিশর সামনই আমার উপর হামলা চালায় ও পটর উপর লাথি মার। আমার স্বামীক আসামীর ভাইরা মারধর কর। আসামীর ভাই মামুন প্যাদা আমাক হুমকি দিয় বল, যদি আমার ভাই জামিন না পায় তাদর দখ নিবা।

এ ব্যাপার মাদারীপুর আদালতর পুলিশ পরিদর্শক রমশ চদ্র দাস বলন,‘ আসামী যখন এজলাস থক দরজা দিয় বর হয় তখন বাদী ছবি তুলত ছিল। এসময় আসামী বাদীক মারার চষ্টা কর। সাথ পুলিশ থাকায় মারত পারনি।

Previous articleকালিহাতীতে ১০০ পিস ইয়াবাসহ আটক ২
Next articleনাচোল সমাজসেবা অফিসে ইউনিয়ন সমাজকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।