মিজানুর রহমান: কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নামেই শুধু ৫০শয্যার হাসপাতাল। প্রকৃতপক্ষে ৩১শয্যার সেবাও নেই এই হাসপাতালে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটি ৩১ শয্যা থেকে ৫০শয্যায় উন্নীত হলেও আলট্রাসনোগ্রাম মেশিনটি ৬ বছর ধরে নষ্ট রয়েছে।

হাসপাতালে আসা রোগীদের আলট্রাসনোগ্রাম করার প্রয়োজন হলে হাসপাতার পয়েন্টে অবস্থিত বিভিন্ন প্রাইভেট ডায়ানস্টিক সেন্টারে যেতে হচ্ছে রোগীদের। এতে অনেক গরীব ও অসহায় রোগীকে অতিরিক্ত টাকা গুনতে হচ্ছে। বেসরকারীভাবে গড়ে উঠা ডায়াগনস্টিক সেন্টার গুলোতে অভিঞ্জ টেকনিশিয়ান না থাকায় রোগীরা প্রতারিত হচ্ছেন। আলট্রাসনেগ্রাফি হলো-শব্দতরঙ্গের মাধ্যমে শরীরের অভ্যন্তরের ছবি পর্দায় দৃশ্যমান করার পদ্ধতির নাম আলট্রাসনেগ্রাফি। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া না থাকায় চিকিৎসা বিজ্ঞানে আলট্রাসনেগ্রামের ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পেয়েছে। রোগ নির্ণয়ে গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় আলট্রাসনেগ্রাম পরীক্ষা।

এক কথায় বলা যায়, আলট্রাসাউন্ড জরুরি রোগ শনাক্তের ক্ষেত্রে গ্রহণ যোগ্য উপায়। ইকো-কার্ডিওগ্রাফি একজন কার্ডিওলজিস্টের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা। এর মাধ্যমে সহজেই হার্টের কোনো অংশ ডাইলেটেশন, ভেন্ট্রিকেল ও ভাল্ধসঢ়;ভ সঠিকভাবে কাজ করছে কি না বোঝা যায়। এর জন্যও ব্যবহার হয় আলট্রাসনেগ্রাফি। পেটের পরীক্ষায় আলট্রাসনোগ্রাফির ব্যবহার প্রায় সবারই জানা। যেকোনো ধরনের পেটের সমস্যায় চিকিৎসকরা সহজেই আলট্রা করে জেনে নেন অগ্ন্যাশয়, লিভার, পিত্তথলি, পিত্তনালি, কিডনি, মূত্রথলি অবস্থান ও রোগ সম্পর্কে। তা ছাড়া অ্যাপেন্ডিসাইটিসও নির্ণয় করতেও সহজ হয়। গর্ভাবস্থায় মায়ের পেটের বাচ্চার বৃদ্ধি ও অবস্থান, বাচ্চার কোনো অস্বাভাবিকতা আছে কি না সহজেই আলট্রাসনোগ্রাফির মাধ্যমে বোঝা যায়। গর্ভাবস্থার শুরুতেই অর্থাৎ মাসিক বন্ধের দুই মাস বা ছয় থেকে আট সপ্তাহের মধ্যে আলট্রাসনেগ্রাফি করানো উচিত। টেস্টটিউব বেবির ক্ষেত্রে ভ্রƒণ প্রতিস্থাপনের চার সপ্তাহ পর। আলট্রাসনেগ্রাফি মাধ্যমে অনেক তথ্য জানা যায়। যেমন জরায়ুর অভ্যন্তরে সঠিক স্থানে হৃৎস্পন্দন ও গর্ভসঞ্চার হয়েছে কি না নিশ্চিত করে। ভ্রূণের সংখ্যা নির্ণয় করে। সঠিকভাবে প্রসবের তারিখ নির্ণয় করে। আলট্রাসনোগ্রাফির মাধ্যমে সঠিক তথ্য পাওয়ার জন্য ভালো মানের মেশিনের প্রয়োজন। পাশাপাশি যিনি আলট্রাসনোগ্রাফি পরীক্ষা করাবেন, তার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাও সঠিক রোগ নির্ণয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

কিন্তু উপজেলা আলট্রাসনোগ্রাম মেশিনটি ৬ বছর ধরে নষ্ট রয়েছে। হাসপাতালে আসা রোগীদের আলট্রাসনোগ্রাম করার প্রয়োজন হলে হাসপাতার পয়েন্টে অবস্থিত বিভিন্ন প্রাইভেট ডায়ানস্টিক সেন্টারে যেতে হচ্ছে রোগীদের। প্রসূতি মায়েদের চিকিৎসা সেবায় চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। প্রাইভেট হাসপাতালই এখন একমাত্র ভরসা হয়েছে এসব রোগীদের ক্ষেত্রে। বহির্বিভাগে প্রতিদিন শতশত রোগী চিকিৎসা নিতে আসে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। বিশেষ করে প্রসূতি মায়েরা প্রতি মাসেই আসে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে। এতে সেবাবঞ্চিত হচ্ছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার সাধারণ মানুষ। প্রাইভেট হাসপাতালই এখন একমাত্র ভরসা হয়েছে এসব রোগীদের ক্ষেত্রে।বহির্বিভাগে প্রতিদিন শতশত রোগী চিকিৎসা নিতে আসে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। বিশেষ করে প্রসূতি মায়েরা প্রতি মাসেই তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে হয়। সেবা নিতে এসে আলট্রাসনোগ্রাম স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে না পেয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছে অসংখ্য রোগী। হাসপাতালের পরিসংখ্যান বিভাগের তথ্যানুযায়ী, ২০১২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারী ৩১ শয্যার এ হাসপাতালকে ৫০শয্যায় উন্নীত করা হয়। হাসপাতাল থেকে প্রতিদিন গড়ে আউটডোড়-ইনডোর ও জরুরী বিভাগ থেকে ২০০- ২৫০ রোগী চিকিৎসা সেবা গ্রহন করে থাকে। উপজেলায় প্রায় তিন লক্ষাধিক মানুষের চিকিৎসাসেবার একমাত্র ভরসাস্থল কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। আলট্রাসনোগ্রাম সেবা নিতে আসা রোগীদের অভিযোগ, বাইরে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সাথে হাসপাতালের কর্মরত ডাক্তারদের যোগসাজশ থাকায় অনেক রোগীকেই আলট্রাসনোগ্রাম করানোর জন্য তাদের পছন্দের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পাঠানো হয়।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী কুলসুম জানান, দীর্ঘদিন ধরে পেটের অসুখে ভুগছেন। এরপর চিকিৎসক প্রথমে আলট্রাসনোগ্রাম করার পরামর্শ দেন। কিন্তু হাসপাতালের মেশিন নষ্ট। বাধ্য হয়ে কুলসুমের স্বজনেরা একটি বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তাঁর আলট্রাসনেগ্রাম করেন। চিকিৎসক তাঁকে রক্তের একটি পরীক্ষা করার পরামর্শ দেন কিন্তু সরকার রক্তের পরীক্ষা ফি ধরা হয়েছে তার তিনগুন নেয়া হচ্ছে এ হাসপাতালে নানা ধরনের পরীক্ষা–নিরীক্ষার পাশাপাশি বিভিন্ন ইনজেকশন ও ওষুধও বাইরে থেকে কিনতে হচ্ছে কুলসুমের স্বজনদের। চিকিৎসার ব্যয় মেটাতে বিপাকে পড়েছেন তাঁর স্বজনেরা।

কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. চিন্ময় হাওলাদার জানান, আমি কলাপাড়া হাসপাতালে ২০১৭ সালে আর্সাধসঢ়; পরে দেখি হাসপাতালে আলট্রাসনোগ্রাম মেশিনটি নষ্ট রয়েছে। হাসপাতালে আসা রোগীদের আলট্রাসনোগ্রাম করার প্রয়োজন হলে হাসপাতার পয়েন্টে অবস্থিত প্রাইভেট ডায়ানস্টিক সেন্টারে যেতে হচ্ছে রোগীদের। আমি উর্ধ্বতনকর্তৃপক্ষ কয়েকবার জানিয়েছি কিন্তু কোন ফল দেখতেছিনা।

Previous articleমানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমতি পেল বঙ্গভ্যাক্স
Next articleখালেদা জিয়াসহ ১৩ আসামির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের শুনানি শেষ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।