জয়নাল আবেদীন: প্রচন্ড তাপ দাহে রংপুর অঞ্চলের মানুষের জীবন-যাত্রা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে।আর এই তাপমাত্রা বৃদ্ধিও ফলে গত কদিন ধরে শহর বন্দর গ্রামের সর্বত্র সড়ক এবং হাট-বাজারে মানুষের চলাচল কমে এসেছে। এ সময় কোনকোন এলাকায় লোড শেডিং ও হচ্ছে ।রংপুরে স্মরণকালের তাপদাহের প্রচন্ডতায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

রংপুরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪ থেকে ৩৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ওঠানামা করছে। এদিকে তাপদাহ ও গরমে রংপুর বিভাগে ডায়রিয়া, হিট স্ট্রোক ,জ্বর সহ নানা রোগে ব্যাপক হারে আক্রান্ত হচ্ছেন শিশু- বৃদ্ধসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষ। ডাক্তারের চেম্বার এবং ঔষধের দোকান গুলোতে ভিড় বাড়ছে মানুষের। এমতাবস্থায় চিকিৎসকরা গরমে প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।রংপুরের সিভিল সার্জন ডাক্তার শামিম আহাম্মেদ জানান, তাপমাত্রা ৩৮দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস অতিক্রান্ত হওয়ায় রংপুরে তীব্র তাপদাহ অনুভব হচ্ছে। এ অস্বাভাবিক আবহাওয়ায় প্রয়োজন ছাড়া কাউকে বাড়ি থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। বিশেষ করে স্কুলের শিক্ষার্থী এবং শিশুদের সতর্কভাবে চলাফেরা করতে হবে। দুপুরের পর কোনও অবস্থাতেই যেন বাইরে তাদের না থাকতে হয় সেভাবেই শিক্ষকদের পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দেন তিনি। এ সময় বেশি করে পানি পান, ঠান্ডা জাতীয় পানীয় বিশেষ করে লেবুর শরবত, ডাবের পানি বেশি করে পান করার পরামর্শ দেন।

সূর্যের প্রচন্ড তাপদাহের কারণে নগরীর সড়কগুলোতে মানুষের উপস্থিতি কমে গেছে। বড় বড় শপিং মলগুলো খদ্দের শূন্য । তবে এ গরমে স্বল্প আয়ের মানুষ বিশেষ করে ক্ষেতমজুর ও শ্রমিকরা হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছেন বলে চিকিৎসকরা জানান। রংপুর নগরীর শাহ সালেক মার্কেট দোকান মালিক ও ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ জানান, প্রায় এক সপ্তাহ থেকে গরমের ফলে মানুষ মার্কেটে আসতে পারছে না। এ কারণে ব্যবসায় বেচাকেনা অনেক কম। মানুষ বাসা বাড়ি থেকে বের হতে পারছে না। অনেক রোদ আর প্রচন্ড গরম রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে মানুষের সমস্যা হচ্ছে। এজন্য ক্রেতার সংখ্যা অনেক কম। এমন পরিস্থিতি থাকলে ব্যবসায় ব্যবসায় সমস্যা হবে।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে গরমের কারণে হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। গত তিনদিনে ৩৫ জন রোগী হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। রংপুর জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, গরম ও রোদ বেশি হওয়া মানুষের সমস্যা হচ্ছে। ভ্যাপসা গরমে সর্দি, কাশি ও জ্বরসহ বিভিন্ন রোগ বেশি দেখা যাচ্ছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা ও উপজেলার হাসপাতালে খবর নেওয়া হচ্ছে। আর গরমে রোগী ভর্তি ও তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তবে পরামর্শ হচ্ছে, বেশি করে ঠান্ডাজাতীয় খাবার খাওয়ার।

Previous articleশাহজাদপুরে অধ্যক্ষের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ
Next articleবগুড়ায় নাশকতা মামলায় মহিলা দল নেত্রী জেল হাজতে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।