শফিকুল ইসলাস: ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা পঞ্চগড়গামী আন্তঃনগর একতা এক্সপ্রেস ট্রেনের এক কিশোর যাত্রী শনিবার সাড়ে ছয়টায় জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার হলহলিয়া লোহার রেলসেতুতে ধাক্কা লেগে তুলসীগঙ্গা নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয়েছিল। এ ঘটনার সাড়ে ১৪ ঘন্টা সোমবার সকাল সাড়ে আটটায় তুলসীগঙ্গা নদী থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রাজশাহী ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল এসে লাশটি উদ্ধার করে।

নিহত ওই কিশোরের নাম মেহদী হাসান (১৭)। সে পঞ্চগড় সদর উপজেলার রাজমহল গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে। সান্তাহার রেলওয়ে থানার উপপরির্দশক দেলোয়ার হোসেন নিহত কিশোরের পরিচয় নিশ্চিত করেছেন।

রেলওয়ে থানা পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কিশোর মেহদী হাসান তার দাদী শাহেরা খাতুনের সঙ্গে পাবনার আটমাইল আত্বীয়র বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিল। তারা শনিবারে নাটোর স্টেশনে এসে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা পঞ্চগড়গামী আন্তঃনগন একতা এক্সপ্রেস ট্রেনে চড়েন। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ট্রেনটি জয়পুরহাটের জাফরপুর রেলস্টেশন অতিক্রম করে হলহলিয়া রেলসেতুতে ঢোকে পড়ে। এসময় মেহদী হাসান রেলসেতুতে ধাক্কা খেয়ে ডান হাতের কব্জি ছিঁড়ে সেতুর গার্ডারে আটকে থাকে। মেহদী হাসান রেলসেতুর নিচে পড়ে নিখোঁজ হয়। ট্রেনটি রেলসেতু অতিক্রম করার পর স্থানীয় লোকজন রেলসেতুতে এসে ডান হাতের কব্জি, ম্যানিব্যাগ ও মুঠোফোন দেখতে পান। এরপর তারা ফায়ার সার্ভিস ও থানা পুলিশকে ঘটনাটি জানায়। খবর পেয়ে আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাবিবুল হাসান ও আক্কেলপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের একটি সদস্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা রোববার রাত সাড়ে আটটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত হলহলিয়া রেলসেতুর নিচে তুলসীগঙ্গা নদীর দুই পাশের আধা কিলোমিটার পর্যন্ত খুঁজে লাশের সন্ধান না পেয়ে অভিযান পরিত্যক্ত ঘোষনা করেন। রাজশাহী ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলকে খবর দেন।

সোমবার সকালে রাজশাহী ফায়ার ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে আসেন। তাঁরা সকাল সাড়ে আটটার দিকে তুলসীগঙ্গা নদী থেকে লাশটি উদ্ধার করেন। সেখানে নিহত মেহেদী হাসানের চাচা আসাদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন। আক্কেলপুর ফার্য়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে রোববার রাতে আমরা হলহলিয়া রেলসেতু গিয়ে কিছু আলামত পেয়ে লাশের খোঁজে হলহলিয়া রেলসেতুর নিচে তুলসীগঙ্গা নদীতে অভিযান শুরু করেছিলাম। রাত দশটার পর উদ্ধার অভিযান পরিত্যক্ত করা হয়েছিল। আজ সোমবার সকালে রাজশাহীর ডুবুরি দল এসে তুলসীগঙ্গা নদী থেকে লাশটি উদ্ধার করেছে।

নিহত মেহদী হাসানের চাচা আসাদ হোসেন বলেন, ভাতিজা মেহদী হাসান দাদীর সঙ্গে পাবনা আটমাইলে আত্বীয় বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিল। আন্তঃনগর একতা এক্সপ্রেস ট্রেনে পঞ্চগড় ফেরার পথে হলহলিয়া রেলসেতুতে ধাক্কা লেগে নদীতে পড়ে যায়। আমরা খবর পেয়ে এখানে চলে এসেছি।

আক্কেলপুরের ইউএনও হাবিবুল হাসান বলেন, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা পঞ্চগড়গামী আন্তঃনগর একতা এক্সপ্রেস ট্রেনের এক কিশোর যাত্রী হলহলিয়া রেলসেতু গার্ডারে ধাক্কা লেগে তুলসীগঙ্গা নদীতে পড়ে যায়। ট্রেনটি রেলসেতু অতিক্রম করার পর স্থানীয় লোকজন এসে রেলসেতুর গার্ডারে একটি বিচ্ছিন্ন হাত, ম্যানিব্যাগ ও স্মার্ট মুঠোফোন পেয়েছেন। তাঁরা ফায়ার সার্ভিসে ও স্থানীয় প্রশাসনকে ঘটনাটি জানান। রোববার রাতেই ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্য হলহলিয়া রেলসেতু এসে লোকজনের সঙ্গে কথা নদীতে লাশ পড়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হন। তাঁরা নদী নেমে লাশটি উদ্ধারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। রাত দশটায় তাঁরা লাশ উদ্ধার অভিযান পরিত্ত্যক্ত ঘোষনা করেন। রাজশাহীতে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলকে খবর দেওয়া হয়। আজ সোমবার সকালে রাজশাহী থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলের সদস্য মেহেদী হাসানের লাশটি উদ্ধার করেছে।

সান্তাহার রেলওয়ের থানার উপপরির্দশক (এসআই) দোলোয়ার হোসেন বলেন, ঘটনার প্রায় সাড়ে ১৪ ঘন্টা পর লাশটি উদ্ধার হয়েছে। এঘটনায় ইউডি মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর লাশ হস্তান্তর করা হবে।

Previous articleঈশ্বরদীতে প্রাইভেটকার-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১
Next articleবেগমগঞ্জ থানার ২ পুলিশ কর্মকর্তা প্রত্যাহার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।