বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় তীব্র গরম থেকে রেহাই পেতে এবং লোডশেডিংয়ের কারণে বিকল্প পণ্যে ঝুঁকছে মানুষ। বাজারে এখন চাহিদা বেড়েছে চার্জিং লাইট, ফ্যান ও আইপিএসের মতো পণ্যের। চাহিদা বাড়ায় মজুদ করে এসব পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে অসাধু ব্যবসায়ীরা।

বিদ্যুৎ সঙ্কট মোকাবেলায় যখন দেশজুড়ে শুরু হয়েছে এলাকাভিত্তিক এক থেকে ২ ঘণ্টার লোডশেডিং। বিদ্যুৎ উৎপাদন কমিয়ে আনায় এমন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। তবে তীব্র গরমের হাত থেকে বাঁচতে এবং বিদ্যুৎ সংরক্ষণে নানামুখী পণ্যে ঝুঁকছে মানুষ। চার্জার লাইট এবং ফ্যানের চাহিদা এখন তুঙ্গে। অনেকে কিনছেন মোবাইলের পাওয়ার ব্যাঙ্কও।

সুযোগ বুঝে এসব পণ্যের দাম বাড়িয়েছে অতিরিক্ত মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা। সব ধরনের চার্জার লাইটে দাম বেড়েছে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা। আর প্রতিটি চার্জার ফ্যানের দাম বেড়েছে অন্তত এক থেকে দুই হাজার টাকা।

চার্জার ফ্যান ক্রেতা মান্নান উদ্দিন মল্লিক জানান, ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে চার্জার ফ্যান ক্রয় করতে এসেছি। বাজারে চার্জার ফ্যান ও লাইটের তীব্র সঙ্কট দেখছি। দামও নাগালের বাইরে।

সাটুরিয়া বাজারের ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায়ী আবদুল আলীম বুলবুল জানান, সম্প্রতি এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং শুরু হওয়ায় চার্জার ফ্যান লাইটের চাহিদা বেড়েছে কয়েকগুণ। দ্বিগুণ বেড়েছে আইপিএস ও অন্য বৈদ্যুতিক পণ্যের দাম। তিনি আরো জানান, আমরা সব সময় ন্যায্যমূল্যে এসব পণ্য বিক্রি করে থাকি।

সাটুরিয়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিউলি আক্তার জানান, দেশজুড়ে শুরু হয়েছে এলাকাভিত্তিক ১ থেকে ২ ঘণ্টার লোডশেডিং। এ সুযোগে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা এসব পণ্যের দাম বাড়িয়েছে। দ্রুত অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleকুয়াকাটা সৈকতে ফের মিলল ইয়েলো বিল্ড সী স্নেক
Next articleচান্দিনায় বাস চাপায় বৃদ্ধের প্রাণহানি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।