শফিকুল ইসলাম: বর্ষা মৌসুমে কাঙ্খিত বৃষ্টির দেখা মিলছে না। খাল-বিলেও সেচকাজ করার জন্য পর্যাপ্ত পানি নেই। পানির অভাবে ফসলি মাঠের আমন ধানখেতে ফেঁটে চৌঁচির হচ্ছে। অগত্যায় সেচকাজের জন্য প্রতিটি ফসলি মাঠে গভীর- অগভীর নলকূপ চালু করা হয়েছে। ব্যতিক্রম শুধু কালাইকুড়ি মাঠের একটি গভীর নলকূপ। এখনো এই মাঠের গভীর নলকূপটি চালু করা যায়নি।

আপন দুই ভাই নিজাম উদ্দিন ওরফে বুলু ও মামুনুর রশিদ ওরফে লালুর মধ্যে মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্বে গভীর নলকূপের ঘরে ডবল তালা দেওয়া হয়েছে। পানি সেচের ওই মাঠের আমন ধানখেত নষ্টের আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা
জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের গোপীনাথপুর মৌজায় ওই ফসলি মাঠের অবস্থান।

ওই মাঠের গভীর নলকূপের আওতাধীন কৃষকেরা গভীর নলকূপটি চালু করতে উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। লিখিত অভিযোগের এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও কৃষকেরা এখনো কোনো সুফল পাননি বলে জানিয়েছেন কৃষকেরা।

ইউএনও কাছে দেওয়া লিখিত অভিযোগ সূত্রে ও, স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গোপীনাথপুর মৌজার কালাইকুড়ি ফসলি মাঠে ৮০ দশকের শেষের দিকে ব্যক্তি মালিকানাধীন একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়। ওই গভীর নলকূপের আওতায় ফসলি মাঠটিতে ১৮০ বিঘা জমি রয়েছে। নাজির উদ্দিন নামে ওই ব্যক্তি মারা যাওয়ার পর থেকে তাঁর দুই ছেলে নিজাম উদ্দিন ওরফে বুলু ও মামুনুর রশিদ ওরফে লালু গভীর নলকূপটি পালাক্রমে পরিচালনা করে আসছিলেন। বড় ভাই নিজাম উদ্দিন দুই বছর ও ছোট ভাই মামুনুর রশিদ দুই বছর করে গভীর নলকূপ পরিচালনা করছিলেন। দুই বছর পর এবার বড় ভাই নিজাম উদ্দিনের গভীর নলকূপ পরিচালনার কথা। কিন্তু ছোট ভাই মামুনুর রশিদ আবারও গভীর নলকূপ চালু করতে যান। এনিয়ে তাঁদের দুই ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। তাঁরা দুই জনেই গভীর নলকূপের ঘরে পাল্টাপাল্টি তালা মারেন। এতে সেচকাজ বন্ধ হয়ে যায়।

কৃষকেরা বার-বার অনুরোধ করার পর তাঁদের দুই ভাইয়ের কেউই গভীর নলকূপ চালু করেননি। সেচের অভাবে মাঠের আমন ধানখেত ফেঁটে যাচ্ছে। বাধ্য হয়ে গভীর নলকূপের আওতাধীন কৃষকেরা গভীরর নলকূপ চালু করার ব্যবস্থা নিতে উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও ইউএনও কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

শুক্রবার কালাইকুড়ি ফসলি মাঠে গিয়ে দেখা গেছে, গভীর নলকূপের ঘরে ডবল তালা ঝুলছে। কিছু আমন ধানখেত বৃষ্টির সামন্য জমে রয়েছে। বেশিভাগ জমিতেই পানি নেই। কোন-কোন ধানখেতেরর মাটি ফেঁটে চৌঁচির হয়েছে।
কৃষক দোলোয়ার হোসেন বলেন, ওই মাঠে আমার দুই বিঘার আমন ধানখত রয়েছে। নিজাম উদ্দিন বুলু ও মামুনুর রশিদ লালু তাঁরা আপন দুই ভাই দুই বছর পর-পর পালাক্রমে গভীর নলকূপটি পরিচালনা করে আসছিলেন।

গভীর নলকূপের মালিকানা নিয়ে তাঁরা দুই ভাই চরম দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন। তাঁরা দুই জনই গভীর নলকূপের ঘরে পাল্টাপাল্টি তালা দিয়েছেন। একারণে সেচকাজ বন্ধ রয়েছে। পানি সেচের অভাবে আমন ধানখেত ফেঁটে চৌঁচির হচ্ছে। আমরা গভীর নলকূপ চালুর ব্যবস্থা করার জন্য উপজেলা সেচ কমিটিতে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও এখনো সুফল পাইনি।

কৃষক মন্টু মিয়া বলেন, মাঠে আমার তিন বিঘা জমি রয়েছে। পানির অভাবে ধানখেত শুকিয়ে গিয়েছিল। দুই দিন আগের সামান্য বৃষ্টিতে জমি একটু ভিজা রয়েছে। দ্রুত সেচ কাজ করা না গেলে আবারও জমি শুকিয়ে যাবে। আমরা ইউএনও, ইউপি চেয়ােরম্যানের কাছে দুই ভাইয়ের দ্বন্দ্ব নিরসন করে গভীর নলকূপটি চালু করার অনুরোধ জানিয়েছি। কিন্তু কোনো কাজই হয়নি। আমরা সেচের অভাবে মাঠের ১৮০ বিঘার ধানখেত নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা করছি।

কৃষক মাহবুব আলম বলেন, পানির অভাবে ধানখেত ফেঁটে চৌঁচির হচ্ছে। মালিকানা দুই ভাইয়ের দ্বন্দ্ব নিরসন না হওয়ায় গভীর নলকূপ চালু হচ্ছে না। এতে কুষক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনর উদ্যোগ নিয়ে গভীর নলকূপের ঘরের তালা খুলে দিয়ে তৃতীয় কোন পক্ষকে গভীর নলকুপ পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি।
নিজাম উদ্দিন বলেন, আমরা পৈত্রিক সূত্রে গভীর নলকূপটি পেয়েছি। আমরা দুই ভাই পালাক্রমে দুই বছর পর-পর গভীর নলকূপটি পরিচালা করে আসছি। দুই বছর পর এবার গভীর নলকূপটি আমার নিজের পরিচালনার কথা। ছোট ভাই মামুনুর রশিদ গভীর নলকূপটি তাঁর একক মালিকানা বলে দাবি করেছে। একারণে গভীর নলকূপের ঘরে তালা দিয়েছি। আমার ছোট ভাইও গভীর নলকূপে আরেকটি তালা দিয়েছে।

মামুনুর রশিদ বলেন, আমরা পৈত্রিক সম্পত্তি দুই ভাই ভাগ বাটোয়ারা করে নিয়েছি। গভীর নলকূপটি আমার ভাগে পড়েছে। গভীর নলকূপ চালু করতে গিয়ে বড়ভাই নিজাম উদ্দিন মালিকানা দাবি করছে। গভীর নলকূপের সকল কাগজপত্র তাঁর নিজের নামে রয়েছে বলে তিনি দাবি করেছেন।

গোপীনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান বলেন, আমার ইউনিয়নের প্রতিটি মাঠে গভীর-অগভীর নলকূপ চালু হয়েছে। আপন দুই ভাই মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্বে কালাইকুড়ি ফসলি মাঠের গভীর নলকুপের ঘরে তালা দিয়ে রেখেছেন। সেচের অভাবে মাঠের আমন ধানখেত নষ্ট হচ্ছে। কৃষকেরা আমার কাছে এসেছিলেন। দুই ভাইকে ইউপি কার্যালয়ে ডাকা হয়েছিল। কিন্ত কোন সমাধান হয়নি।

উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস,এম হাবিবুল হাসান বলেন, গভীর নলকূপটির মালিকানা নিয়ে দুই ভাইয়ে দ্বন্দ্ব রয়েছে। দুই ভাই পৃথক ভাবে গভীর নলকূপের ঘরে তালা দিয়ে রেখেছেন। গভীর নলকূপের সেচকাজ বন্ধ থাকায় কৃষককে আমার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। গোপীনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যানকেপত্র দিয়ে গভীর নলকূপ চালুর ব্যবস্থা নিতে বলেছি। ওইপত্রের থানার ওসি ও পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএমকে সহযোগিতায় জন্য বলা হয়েছে। তবে এখনো সমঝোতা হয়নি। এরমধ্য একভাই আদালত থেকে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে এসেছেন বলে জেনেছি। একারণে এখন আর গভীর নলকূপ চালু করতে এগানো যাচ্ছে না।

এ প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, গভীর নলকূপের ঘরের তালা খুলে চালু করতে গেলে আইনশৃঙ্খলা অবনতির সম্ভবনা রয়েছে। একারণে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রট ছাড়া এ কাজ সম্ভব নয়।

Previous articleকোম্পানীগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা
Next articleভূঞাপুরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় মাদ্রাসা সুপারকে মারপিট, প্রতিষ্ঠান ভাংচুর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।