আরিফুর রহমান: মাদারীপুর সদর উপজেলা সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্প ঘরগুলো এখন পলিথিন ও পাটখড়ির আদলে আবদ্ধ। ইট বালু খুঁটির উপর লোহার সাথে থাকা টিন মরিচা খোসে নিছে পড়ায় ঘর থেকেই আকাশ দেখা যায়।কোনমতে পাটখড়ি ও পলিথিনের জোড়াতালি দিয়ে থাকছেন গৃহহীন লোকজনেরা।

ব্যার‍াকগুলো দ্রুত মেরামত করার জন্য আশ্রয়ণ প্রকল্পের লোকজনেরা সরকারের কাছে দাবি জানাই। সদর উপজেলা খোয়াজপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের চরগোবিন্দপুর এলাকায় রাস্তার পাশে গৃহীত আশ্রয়ণ প্রকল্পের জরাজীর্ণ ঘরে বসবাস করছে ৪০টি পরিবার। সংস্কারের অভাবে এ ঘরগুলো ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। নানা সমস্যায় জর্জরিত হলেও এসব ঘর মেরামতের কোনো উদ্যোগ নেই। ফলে বৃষ্টির দিনে নির্ঘুম রাত কাটাতে হয় বাসিন্দাদের। ফলে পরিত্যক্ত ঘরেই জমেছে মাদক এবং জুয়ার আড্ডা আতঙ্কে দিন কাটছে বসবাসকারী পরিবার। জানা যায়, ২০০৭ সালে তৎকালীন সরকার খোয়াজপুর ইউনিয়নের চরগোবিন্দপুর গ্রামে রাস্তার পূর্ব পাশের পাড় ঘেঁষে দুস্থ ও ভূমিহীনদের জন্য আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় ঘর নির্মাণ করে। যেখানে ভূমিহীন, বিধবা, স্বামী পরিত্যক্ত ও অসহায় পরিবার স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ পায়। কিন্তু বর্তমানে এ ঘরগুলো বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। পাকা মেঝে ভেঙে গেছে। টিনের চালা মরিচা ধরে ছিদ্র হয়ে গেছে। লোহার অন্য সরঞ্জামেও মরিচা ধরেছে। একটু বৃষ্টি হলেই চুইয়ে পানি পড়ে। ঘরের বেড়া ও দরজা-জানালা ভেঙে গেছে। ভাঙাচোরা ঘরের চালায় পলিথিন দিয়ে ফুটো বন্ধ করে কোনো রকম বসবাস করে আসছে বাসিন্দারা। রাতে বৃষ্টি হলে মাথায় পলিথিন দিয়ে ভাঙা ঘরের কোনে বসে নির্ঘুম রাত কাটে তাদের। গোসলখানা, টয়লেট ও টিউবওয়েলগুলো ভেঙে গেছে। নেই চিকিৎসা ও বিশুদ্ধ পানির সুব্যবস্থা। অন্যত্র সরে যাওয়ার কোনো সুযোগ না থাকায় বাধ্য হয়েই পরিত্যক্ত ভাঙাচোরা ও অস্বাস্থ্যকর এ ঝুঁকিপূর্ণ ঘরে বসবাস করছে এসব পরিবার। অভাব এদের নিত্যসঙ্গী।

প্রকল্পে কবরস্থান, খেলার মাঠ, সমবায় সমিতির কার্যালয়সহ ১০টি টিনের ব্যারাক রয়েছে। প্রতিটি ব্যারাকে রয়েছে ৮০টি করে কক্ষ। আবাসিক জমিসহ প্রতিটি ভূমিহীন পরিবারকে একটি করে কক্ষ বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রকল্পে ১০টি পরিবারের জন্য ১২টি শৌচাগার ও ৪টি গোসলখানা করা হয়েছিল। সরেজমিনে গিয়ে ও ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সরকারি আশ্রয়ণ ঘরগুলোতে ৮টি টিউবওয়েল মধ্যে এখন ১ টি আছে। বাকি টিউবওয়েল নষ্ট হওয়ায় স্ধসঢ়;হায়ী একদল মহল নিয়েছে।এছাড়াও ১২ টি শৌচাগারের মধ্যে কোনটিই ব্যবহারের উপযোগী নয়।

নামাজের স্থানসহ নেই চলাচল করার তেমন রাস্তা। যখন সরকার ঘরগুলো দিয়েছে তখন পরিপূর্ণ ছিলো লোকজনের বসবাস।এখন ৮০টি পরিবারের মধ্যে ৪০ টি পরিবার জরাজীর্ণ অবস্থায় বসবাস করছে। কেউ কেউ স্থানীয়দের ভয় চলে গেছে। আবার কেউবা ঘরের অবস্থা খারাপ দেখে অন্যথায় চলে গেছে। এবং রাত হলেই শুরু হয় পরিত্যক্ত ঘরের ভিতরে মাদক সেবন ও জুয়া খেলার আড্ডা।কিছু বললেই সরকারি ঘর থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হুমকি। আশ্রয়ণ ঘরে বসাবসকারীরা অভিযোগ করে বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে একটি সমবায় সমিতির ঘর দেওয়া হয়েছে তা স্থানীয়রা কৃষি মালামাল রাখত। এই সমবায় সমিতিতে ভূমিহীন ও অসহায় পরিবারের ছেলে- মেয়েরা লেখা-পড়া করত।তাদের ছেলেমেয়েরা এখানে পড়ালেখা করায় স্থানীয়দের কৃষিপণ্য রাখতে অসুবিধার কারণে এই সমবায় সমিতির ঘরটি আগুন দিয়ে পুড়ে দেয়। তারপর থেকে তাদের শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকে। এখান থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৮ থেকে ৯ কিলোমিটার দূরে। শিশুরা দূরে না যেতে পারায় এইখানেই চালু হয়েছিল একটি শিক্ষা কার্যক্রম। এই ঘরের লোকেরা দাবি করে সরকার যেন তাদের এই সমবায় সমিতির ঘরটি তাড়াতাড়ি মেরামত করে দেয় । তাহলে তাদের ছেলেমেয়েরা এখানে লেখাপড়া করতে পারবে। আর তা না হলে তাদের ছেলেমেয়েদের জীবন শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়ে যাবে।

এখানকার বাসিন্দা কামাল চৌকিদার ও তার স্ত্রী নুরি বেগম বলেন, আমি শহরের মানুষের বাড়ি কাম করি, এবং আমার জামাই রিকশা চালায়, আমাদের জমিজমা না থাকায় আমরা সরকারি ঘরে আইসা থাকি। এরপর বৃষ্টিতে ঘরের চাল দিয়ে পানি পড়ে। পলিথিন টানিয়ে রাতযাপন করতে হয়, ঘুম আসে না।’ বৃদ্ধ হালিমা বেগম জানান, আমার বয়স ৭০ বছর।আমি সরকারের ঘরেই থাকি স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে, ছেলে আমায় তেমন দেখে না।

আক্ষেপ নিয়ে আরো বলেন, এক সময় অন্যের বাড়ি কাজ করতেন। বয়স হওয়ায় এখন আর মেলে না কাজ। মানুষের সহায়তাই এখন জীবিকার মাধ্যম। অন্য কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই। অগত্যা ভাঙা ঘরেই বাধ্য হয়ে মাথা গুঁজতে হয় । দীর্ঘদিন তিনি বিধবা। অথচ বিধবা কার্ড তার ভাগ্যে জোটেনি। আখলিমা বেগম নামে এক গৃহিণী জানান, ‘চকে চকে কাজ করি। আর মাইনষের জমিতে কাজ করে যা টাকা পাই তা দিয়ে সংসার চালাতে অনেক কষ্ট হয়। কেউ আমায় সাহায্য করে না। চেয়ারম্যান মেম্বার আসে শুধু ভোটের সময়। তখন পায়ে পর্যন্ত ধরে মাথায় হাত বুলায়। রাতে বৃষ্টি এলে বসে থাকতে হয় পলিথিন বিছিয়ে। এখন কেউ খোঁজ নেয় না।’তাদের কাছে হাজারোবার গিয়েও কোন সাহায্য পাইনি। তারা বলে, আমরা কি করব? খাদিজা জানান, তার স্বামী শহরের একটি ভাতের হোটেল কাজ করে । অনেকেই ভাঙা ঘরের ছবি তুলে নিয়ে যায়। পরে আর আসে না।’ আমরা কি এই ঘরের আর কোন সমাধান পাব না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে-তো আমাদেরকে ঘর দিয়েছে। সে এখন আমাদের একটু মেরামত করে দিতে পারেন।

শেখ হাসিনা মায়ের কাছে আবেদন জানায় মা যেন আমাদের এই ঘরগুলে মেরামত করে দেয়।তাহলে আমরা পোলাপান নিয়ে ঠিক মত থাকতে পারবো। স৫৬ বছরের বিধবা হাজেরা বিবি জানান, তার ঘরখানা বসবাসের উপযোগী নয়। তার পরও অন্য উপায় না থাকায় এখানে থাকতে হয়।চেয়ারম্যান মেম্বারদের টাকা পয়সা চাউল,ডাল কিছুই চাই না শুধু চাই এ ঘরগুলো মেরামত। রেনু রানী রিশি জানান, চেয়ারম্যান মেম্বাররা শুধু নির্বাচনের সময় আসে। আর তাদের খুঁজে পাওয়া যায় না। তাদের কাছে গেলে আমাদেরকে দূর দূর করে তাড়িয়ে দেয়। ‘বাড়ি বাড়ি কাজ করি। শুধু ঈদের সময় চাল পাইছি। কষ্টে আছি, যা বোঝাতে পারব না।’

৬ষ্ঠ শ্রেনীর শিক্ষার্থী সোনালী বলেন,একটু বৃষ্টি হলে আর পড়তে পাড়ি না।বইখাতা বৃষ্টির পানিতে ভিজে একেবারে। কি আর বলব আমরা গরীব মানুষ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাদের ঘরগুলো ঠিক করে দিয়ে তাহলে পড়তে পারব। খোয়াজপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য জাকির হোসেন বলেন, আমরা ইউএনও স্যার ও ডিসি স্যারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি ঘরগুলো মেরামতের জন্য। আর্থিক সাহায্যের কথা জানতে চাইলে বলেন, তাদেরকে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে আর্থিক সহযোগিতা করা হবে।

খোয়াজপুর ইউপি চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন মোল্লা জানান,‘আশ্রয়ণ প্রকল্পের বিষয়ে ইউএনও এবং ডিসি স্যারকে অবগত করেছি। তারা আশ্বাসও দিয়েছেন বরাদ্দ হলে ঘরগুলো মেরামত করে দিবে।। কিন্তু এখনো বাস্তবায়ন হয়নি। মাদারীপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাইনুদ্দিন বলেন, এই মুহূর্তে সরকারি কোনো বরাদ্দ নেই,বরাদ্দ পেলে ঘরগুলো অবশ্যই মেরামত করা হবে।

Previous articleচান্দিনায় অলিগলিতে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠেছে অনুমোদনহীন ডায়াগনস্টিক সেন্টার
Next articleসিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে কলেজছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।