রফিক সুলায়মান: বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের তিনটি দুঃখজনক ঘটনা হলো : ১। জহির রায়হানের নিখোঁজ হয়ে যাওয়া, ২। আলমগীর কবিরের অপমৃত্যু, ৩। তারেক মাসুদের অপমৃত্যু। – এই তিনটি করুণ ঘটনা একটা সম্ভাবনাময় শিল্পকে আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে দাঁড় করিয়েছে। তাঁরা শুধু চলচ্চিত্রকার ছিলেন না; তাঁরা ছিলেন শিক্ষক।

আলমগীর কবির সম্পর্কে আমি একটা কথাই বলবো, তাঁর মতো ইংরেজি লিখতে ও বলতে পারা মানুষ বাংলাদেশে আর কাউকে পাই নি। নিরদ সি চৌধুরী এবং মানস ঘোষের পর্যায়ের ইংরেজি জানা লোক ছিলেন তিনি।

আলমগীর কবির শুধু ৭১ এর যোদ্ধা নন। তিনি লন্ডন থাকা অবস্থায় ৫০ দশকের শেষ দিক থেকে মুক্তিসংগ্রামে জড়িয়ে পড়েন। তিনি পাকিস্তান আমলে জেল খেটেছেন বঙ্গবন্ধুর সাথে, কিন্তু তিনি আওয়ামী রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন না। স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের ইংরেজি বিভাগের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। সেখানে নিজের কলমে ১০০ কথিকা প্রচার করেছেন। স্বাধীনতার পর অবজারভার এবং নিজের সম্পাদিত The Express পত্রিকায় সমালোচনা শিল্পের এক বাতাবরণ মেলে ধরেন। সিকান্দার আবু জাফরের ‘সিরাজউদ্দৌলা’ নাটক নির্মাণ করে আবদুল্লাহ আল মামুন যখন আকাশে উড়ছিলেন তখন তাঁকে মাটিতে নামিয়েছিলেন আলমগীর কবির। নাটকের ভুলগুলো তিনি রিভিউতে পরিস্কার করে দিয়েছিলেন।

এটা অত্যন্ত আনন্দের সংবাদ যে আলমগীর কবিরকে নিয়ে চর্চা নতুন উদ্যমে শুরু হয়েছে। দেশের অন্যতম মেধাবী এই সাংস্কৃতিক যোদ্ধার প্রতিটি চলচ্চিত্রই একটি থিসিস। নিজের দর্শনকে সেলুলয়েডে বন্দী করতে ভালোবাসতেন তিনি। ধীরে বহে মেঘনা তাঁর প্রথম ফিচার ফিল্ম। এই চলচ্চিত্রে ববিতা তাঁর শহীদ প্রেমিকের দেশ দেখতে বাংলাদেশে আসে। আসার আগে ভেবেছিলো ‘বাংলাদেশ কী এমন জিনিস!’ কিন্তু মেঘনার বুকে ভাসতে ভাসতে ববিতার মনে হলো, ‘আসলেই এ দেশের জন্য প্রাণ দেয়া যায়।’

বুলবুল আহমেদ আর আলমগীর কবির, যেন অনেকটাই সত্যজিৎ আর সৌমিত্র। লন্ডনে The East Pakistan House এ থাকার সময় আলমগীর কবির নিজে পূর্ব পাকিস্তান মুক্তি পরিষদে যুক্ত ছিলেন। সেকথা বুলবুল আহমেদের মুখ দিয়ে বলিয়েছেন এক সিনেমায়। তিনি সিনেমাটাকে বক্তব্য প্রধান মিডিয়া হিসেবে নিয়েছিলেন। নান্দনিকতার প্রচারের মাধ্যমে নাগরিকদের মধ্যে সুকুমারবৃত্তির উন্মেষ ঘটাতে চেয়েছিলেন তিনি।

রূপালী সৈকতে, সূর্যকন্যা, সীমানা পেরিয়ে ইত্যাদি অফবিট সিনেমায়ও আছে প্রখর বক্তব্য। তিনি চেয়েছিলেন নিজের একটা schooling / genre রেখে যেতে। ফিল্ম এডুকেশনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করতেন। ক্রিয়েটিভ রাইটিংস, ফিল্ম সেন্স, ফিল্ম এস্থেটিক – এসব নিয়ে কথা বলতে ভালোবাসতেন তিনি।

রফিক সুলায়মান : শিল্প-সমালোচক ও নজরুলকর্মী

Previous articleমহুয়া বাবরের দুটি কবিতা
Next articleআম গাছের ডাল কাটা নিয়ে দ্বন্দ্বে প্রাণ গেল ভাই-বোনের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।