বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে সেবার নামে গলাকাটা ফি নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে পোস্ট ই- সেন্টারের বিরুদ্ধে। উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের চরকমিশনার শাখা ডাকঘরের ই- সেন্টার উদ্যোক্তা মো. আজিজুল সেবা দেওয়ার নামে জিম্মি করে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছেন। জন্ম নিবন্ধন আবেদন, জন্ম নিবন্ধনের ভুল সংশোধন, জাতীয় পরিচয়পত্রের ভুল সংশোধন, বিভিন্ন চাকুরির আবেদনের জন্য ৩শ থেকে ৫শ টাকা নিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন সেবাগ্রহীতারা। তবে মো. আজিজুল অতিরিক্ত ফি নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

জানা গেছে, সরকার অনলাইন সেবা তৃণমূলে পৌঁছে দিতে ডাকঘর ও শাখা ডাকঘর গুলোতে পোস্ট ই-সেন্টার চালু করেছেন। শর্ত ছিলো অপেক্ষাকৃত কম খরচে সাধারণ মানুষ বাড়ির কাছে অনলাইন সেবা পাবে। বিশেষ করে বাণিজ্যিক দোকানগুলোতে খরচ বেশি হওয়ায় পোস্ট ই-সেন্টার চালু করা হয়। কিন্তু মুলাদী উপজেলার চরকমিশনার পোস্ট ই- সেন্টারে সেবার পরিবর্তে হয়রানি করা হচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, মো. আজিজুল দক্ষিণ পূর্ব কাজিরচর গ্রামের মো. আলমগীর হোসেনের ছেলে। মো. আলমগীর হোসেন চরকমিশনার ডাকঘরের পোস্ট মাস্টার হিসেবে চাকুরি করেন। সেই সুবাদে তিনি ছেলে পোস্ট ই-সেন্টারের দায়িত্ব দিয়েছেন। মো. আজিজুল ওই ই-সেন্টারে সেবা গ্রহীতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়, মোবাইল রেখে ভাতাভোগীদের হয়রানি, ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে প্রতারণাসহ বিভিন্ন অপকর্ম করে থাকেন। যারা অনলাইনে কাজের বিষয়ে অনাভিজ্ঞ তাদের জিম্মি করে নিজের খেয়ালখুশি মতো কাজ করেন তিনি। চরকমিশনার গ্রামের হাফসা বেগম জানান, তার ছেলের জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে ইংরেজিতে ছিলো না। পার্শ্ববর্তী এক মহিলার পরামর্শে চরকমিশনার পোস্ট ই-সেন্টারে আবেদনের জন্য যান। একটি আবেদনের জন্য মো. আজিজুল তার কাছ থেকে ৩০০ টাকা নিয়েছেন। পরবর্তীতে একটি কম্পিউটারের দোকানে জিজ্ঞাসা করে জানতে পেরেছেন ৫০/১০০ টাকার মধ্যে এই আবেদন করা যায়।

চরকমিশনার কাঠেরচর গ্রামের বয়স্কভাতা ভোগী জাহানারা বলেন, মোবাইল ফোনে বয়স্কভাতার ১৫০০ টাকা এসেছে। টাকা উত্তোলনের জন্য পোস্ট অফিসের মো. আজিজুলের কাছে গেলে তিনি জানান নেটওয়ার্কে সমস্যা করছে। মোবাইল রেখে যেতে হবে। বিকেলে মোবাইল ও টাকা আনতে গেলে বলা হয় মোবাইল ফোনে কোনো টাকা আসেনি। বিষয়টি পোস্ট মাস্টারকে জানিয়েও কোনো লাভ হয়নি। উত্তর কাজিরচর গ্রামের আনোয়ারা বেগম বলেন, ছেলের জন্ম নিবন্ধন করতে ইউনিয়ন পরিষদে গেলে সেখান থেকে পোস্ট ই-সেন্টারে যেতে বলে। সেখানে গিয়ে আবেদন করতে গেলে ছেলের পিতা-মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র চায় আজিজুল। কিন্তু জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকায় ৫ হাজার টাকা নিয়ে আইডি কার্ড তৈরি করে আবেদন করে দেন তিনি। এব্যাপারে পোস্ট ই-সেন্টারের উদ্যোক্তা মো. আজিজুল অতিরিক্ত টাকা নেওয়ায় ও ভুয়া আইডি কার্ড তৈরির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, খরচ বেড়ে যাওয়ায় সেবাগ্রহীতাদের কাছ থেকে বেশি টাকা নেওয়ায় হচ্ছে।

মুলাদী উপজেলা পোস্ট মাস্টার মো. বজলুর রহমান বলেন, কম খরচে সেবা দেওয়ার জন্য পোস্ট ই- সেন্টার চালু করা হয়েছে। সেখানে বাড়তি টাকা কিংবা অনিয়ম করা হলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleমুখোশধারী দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে নোয়াখালীতে স্কুলছাত্রী আহত
Next articleসোনারগাঁওয়ে রাস্তার সরকারি গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।