মোঃ জালাল উদ্দিন: মোঃ জালাল উদ্দিন।মৌলভীবাজারে দুই দিনব্যাপী পরিবহন ধর্মঘট। আজ শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে ১৯শে নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এই ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে মৌলভীবাজার জেলার সকল পরিবহন মালিক সমিতি ও সড়ক শ্রমিক ইউনিয়ন। হঠাৎ করে ডাকা এই পরিবহন ধর্মঘটকে সিলেটের গণসমাবেশ পণ্ড করতে সরকার ও সংশ্লিষ্টদের কূটকৌশল বলে মনে করছেন মৌলভীবাজার বিএনপি’র নেতাকর্মীরা।

জেলা বিএনপি’র ১২টি সাংগঠনিক শাখার নেতৃবৃন্দ জানান, গত বুধবার বিকাল থেকেই জেলার ৭টি উপজেলা ও ৫টি পৌর শাখার নেতাকর্মীরা আগে থেকেই সিলেটে অবস্থান নিয়েছেন ও নিচ্ছেন। তারা কয়েকটি ধাপে বিভক্ত হয়ে সিলেট যাচ্ছেন।

তারা বলেন, সরকার সিলেটের বিভাগীয় সমাবেশ সফল করতে দিতে চাইবে না। সারা দেশের অন্য সমাবেশে যে রকম ধর্মঘট ও বাধা দেয়া হয়েছে সেরকম এখানেও দিবে এমনটি ধরে নিয়ে আমরা সেরকম পূর্বপ্রস্তুতি নিয়েছি। ১৯শে নভেম্বর বিএনপি’র সিলেট বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করার জন্য মৌলভীবাজার থেকে কয়েক হাজার নেতাকর্মী গিয়েছেন এবং আরো কয়েক হাজার নেতাকর্মী যাবেন। প্রস্তুতিও নেয়া হয়েছে সেভাবেই। কিন্তু সমাবেশের আগে মৌলভীবাজারে দুই দিনব্যাপী পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে মৌলভীবাজার বাস-মিনিবাস মালিক সমিতি ও সড়ক শ্রমিক ইউনিয়ন। তাই জেলার বিভিন্ন উপজেলার নেতাকর্মীরা আগে থেকে ছুটছেন সমাবেশ স্থলে।

মৌলভীবাজার জেলার সকল পরিবহন মালিক সমিতি ও সড়ক শ্রমিক ইউনিয়নের সম্মিলিত সিদ্ধান্তে সিএনজি অটোরিকশার রেজিস্ট্রেশন বন্ধ, ব্যাটারিচালিত টমটমের অবৈধভাবে চলাচল বন্ধ, ট্রাক লরি, পিক-আপ, বৈধ সিএনজি চালিত অটোরিকশার সামনে নিরাপত্তা গ্রিল লাগানো, ক্যাভার্ড ভ্যানে চাঁদাবাজি ও পুলিশি হয়রানি বন্ধসহ মৌলভীবাজার জেলায় একটি স্থায়ী ট্রাকস্ট্যান্ড নির্মাণের দাবিতে এই ধর্মঘটের ডাক দেন সংশ্লিষ্টরা।
বুধবার রাতে মৌলভীবাজার বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি রশিদ উদ্দিন আহমদ এই ঘোষণা দেন এবং তা গণমাধ্যমকেও জানান। এ সময় মৌলভীবাজার জেলার সকল সড়কে বাস-মিনিবাস ও পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকবে।

এ বিষয়ে বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি রশিদ উদ্দিন আহমদ জানান, মৌলভীবাজার জেলার সকল পরিবহন মালিক সমিতি ও সড়ক শ্রমিক ইউনিয়নের সম্মিলিত সিদ্ধান্তে এই ধর্মঘট ডাকা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা মিনিবাস মালিক গ্রুপের সভাপতি কাউন্সিলর আসাদ হোসেন মক্কু, মৌলভীবাজার জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ফজলুর রহমান, ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজাদুর রহমান ওয়াদুদসহ জেলার বিভিন্ন ইউনিটের বাস-ট্রাক মালিক ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ।

এ বিষয়ে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজাদুর রহমান ওয়াদুদ বলেন, আমরা দীর্ঘদিন থেকে এই দাবি জানিয়ে আসছি। দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ায় আমরা সংশ্লিষ্ট সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মতামতের ভিত্তিতে এই কর্মসূচি দিয়েছি। আমাদের অন্য কোনো উদ্দেশ্য নেই। দাবি আদায় না হলে সংগঠনের সভার মতামতে আরও কমসূচি থাকবে।

মৌলভীবাজার জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক ও জেলা সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান (ভিপি মিজান) বলেন, বিএনপি’র প্রতিটি গণসমাবেশে এরকম বাধা দেয়া হয়েছে। আমাদের নেতাকর্মীসহ দেশের মানুষ এই কূটকৌশল জেনে গেছে। বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে জালিম শোষক এই সরকারকে বিতাড়িত করতে সমাবেশস্থলে দুই তিনদিন আগেই থেকে লোকজন অবস্থান নিচ্ছেন। সমাবেশ সফল করে সরকারকে লাল কার্ড দেখাচ্ছেন। নেতাকর্মীরা এসব ধর্মঘট ও বাধা-বিপত্তি এখন আর ভয় করে না।

তিনি আরও বলেন, মৌলভীবাজার থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় ছোট বড় সব ধরনের গাড়ি যাচ্ছে এবং মৌলভীবাজারে আসতেছে, তবে শুধু সিলেটের গণসমাবেশে গাড়ি যাবেনা এই তাদের পরিবহন ধর্মঘট।

Previous articleনষ্ট সময়ের খেরোখাতা – গোলাম কবির
Next articleভূঞাপুরে প্রতিমা ভাঙচুরের অভিযোগ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।