বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
Homeসারাবাংলাবাউফলে ইউনিয়ন পরিষদের বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণে বাঁধা

বাউফলে ইউনিয়ন পরিষদের বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণে বাঁধা

অতুল পাল: বাউফলের ধুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ ও ইউনিয়ন ভূমি অফিসের বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ কাজে বাঁধা দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ২২ সেপ্টেম্বর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ধুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ ও ভূমি অফিসের বেদখলকৃত জমি উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকৃত ওই জমিতে বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ কাজ শুরু করা হলে স্থানীয় একটি মহল নির্মাণকাজে বাঁধা দেন। জানা গেছে, ধুলিয়া ইউনিয়নের চাঁদকাঠি গ্রামের মৃত. সামসুদ্দিনের ছেলে মো. আমিনুল ইসলাম (৪৭) কয়েক বছর আগে ধুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের দেড় শতাংশ জমি দখলে নিয়ে আধাপাকা দোকান ঘর নির্মাণ করেন। দেলোয়ার হোসেন (৩৬) নামের এক ব্যক্তি ওই দোকান ঘর ভাড়া নিয়ে চায়ের দোকান করেন। জেলা প্রশাসনের নির্দেশে চলতি বছরের ২২ সেপ্টেম্বর বাউফল উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. বায়েজিদুর রহমান উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে মো. আমিনুল ইসলামের নির্মাণ করা আধাপাকা ঘর ভেঙে দেন। ভূমি মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ইউনিয়ন পরিষদ ভবন ও ভূমি অফিসের নিরাপত্তার জন্য উদ্ধারকৃত জমিতে বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ কাজ শুরু করা হলে ওই জমি নিজেদের দাবী করে নির্মাণ কাজে বাঁধা দেন আমিনুল ইসলাম।

এদিকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. বায়েজিদুর রহমানের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে ওই অবৈধ দোকান ঘর ভেঙে ফেলার ঘটনায় চা দোকানি দেলোয়ার হোসেন ধুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মু. হুমায়ন কবির দেওয়ান, ধুলিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আনিচুর রহমান জুয়েল এবং ছাত্রলীগ নেতা আল-আমিনসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা করেন। এবিষয়ে ধুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মু. হুমায়ন কবির দেওয়ান বলেন, পরিষদের জমি সাবেক চেয়ারম্যানের সময়কাল থেকে বেদখল ছিল। চলতি বছরের ২২ সেপ্টেম্বর পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে এসিল্যান্ড মহোদয় উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে দোকানঘর ভেঙে দেয়। ওই সময় চেয়ারম্যান হিসেবে আমি উপস্থিত ছিলাম। কাহারো প্ররোচনায় চায়ের দোকানদার আমিসহ ৫জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা করেছেন।

জমির দাবিদার মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, পরিষদের মধ্যে আমাদের জমি রয়েছে। সেই জমিতে ঘর তোলা হয়েছিল। অবৈধভাবে আমাদের ঘর ভেঙে দেয়া হয়েছে। ধুলিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহশিলদার মো. সেলিম খান বলেন, চর চাঁদকাঠি মৌজায় ১৫ নং দাগে ধুলিয়া ইউনিয়নের পরিষদের ২১ শতাংশ জমির মালিকানা রয়েছে। এরমধ্যে প্রায় দেড় শতাংশ জমি বেদখল ছিল। উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে সেই জমি উদ্ধার করা হয়েছে। ওই জমিতে বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ কাজ শুরু করলে স্থানীয় কয়েকজন বাঁধা দেয়।

এবিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) বায়েজিদুর রহমান বলেন, ডিসি মহোদয়ের নির্দেশে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে অবৈধ দোকানঘর ভেঙে দেয়া হয়েছে। এখন ওয়াল নির্মাণে কেউ বাঁধা দিলে সেটা ইউনিয়ন পরিষদ দেখবে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments