বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫, ২০২৪
Homeসারাবাংলাঈশ্বরদীতে ডিম ও মুরগির দরপতপনে খামারিরা হতাশ

ঈশ্বরদীতে ডিম ও মুরগির দরপতপনে খামারিরা হতাশ

স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈশ্বরদীতে খামারিরা পাইকারদের কাছে ডিম বিক্রি করছেন ৩১ টাকা হালি। প্রতিটি ডিমের দাম ৭ টাকা ৭৫ পয়সা। চলতি বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম দামে ডিম বিক্রি করছেন বলে খামারিরা জানিয়েছেন। বিগত শনিবার থেকে শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) পর্যন্ত ক্রমাগতভাবে ডিমের দাম কমেই চলেছে। সপ্তাহজুড়ে প্রতিটি পিস ডিম ৮.১০ থেকে ৭.৭৫ টাকাা বিক্রি হয়েছে। ডিমের দর পতনে খামারিরা হতাশ। পাশাপশি মুরগির দামও কমেছে। খামারে ব্রয়লার মুরগি ১১৫ থেকে ১২০ টাকা আর সোনালি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

খামারিরা জানান, চলতি বছরের মধ্যে এই সপ্তাহে ডিমের দাম বেশী কমেছে। শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) সকালে খামারিরা প্রতিটি ডিম বিক্রি করেছেন ৭.৭৫ টাকা। অথচ ডিমের উৎপাদন ব্যয় ১০ টাকার ওপরে। উৎপাদন ব্যয়ের চেয়েও ২.২৫-২.৫০ টাকা কম দামে খামারিদের ডিম বিক্রি করতে হচ্ছে। এদিকে মুরগির দরপতন ঘটেছে। খামারে প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১১৫ থেকে ১২০ টাকা আর সোনালি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ টাকা। মুরগি কেনার জন্য খামারিরা মাইকিং করে খুচরা ক্রেতাদের আমন্ত্রণ জানাচ্ছে বেশী দাম পাবার আশায়। খামারিরা জানান, ব্রয়লালের উৎপাদন ব্যয় কেজিতে ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা আর সোনালি মুরগির ব্যয় প্রায় ১৮০-১৯০ টাকা। ডিম ও মুরগির দর পতনের সুবিধা পাচ্ছেন না সাধারণ ভোক্তারা। মধ্যস্বত্বভোগী পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীদের পোয়াবারো। যে যা ইচ্চেমতো দাম হেঁকে বিক্রি করছেন।

সলিমপুরের খামারি শাহমত মন্ডল জানান, পাঁচটি খামারে ১৭ হাজার মুরগি আছে। লেয়ার মুরগি রয়েছে ৮ হাজার। প্রতিদিন প্রায় ৫ হাজার ডিমের উৎপাদন হয়। ডিম বিক্রি করে প্রতিদিন ১৫ হাজার টাকা ক্ষতি হচ্ছে। এভাবে লোকসান হতে থাকলে পথে বসতে হবে।

জয়নগর বোর্ড অফিস মোড়ের ডিমের আড়তদার মাসুদ রানা জানান, ডিমের দাম কমে যাওয়ায় খামারিরা পড়েছেন খুব দুর্ভোগে । মুরগির খাদ্যের দাম বেশি, আর ডিমের দাম কম। এরমধ্যে অনেক খামার বন্ধ হয়ে গেছে। খামার থেকে শতকরা ৭৭৫-৭৯০ টাকায় ডিম কিনছি। বিক্রি হবে ৮০০ টাকায়।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদকপ্রাপ্ত খামারি আকমল হোসেন শুক্রবার সকালে ইত্তেফাককে জানান, ডিমের দাম প্রতি হালি এখন ৩১ থেকে ৩১.৫০ টাকা। এভাবে চলতে থাকলে ক্ষুদ্র খামারিদের এব্যবসা বন্ধ করে দেয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। ডিমের দাম হঠাৎ কমে যাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শীতে ডিমের উৎপাদন বেড়ে যায়। বাজারে এখন শীতের নতুন শাক-সবজি কমদামে পাওয়া যাচ্ছে। খাল-বিলের পানি এখন কমে যাওয়ায় ছোট মাছ বাজারে উঠছে। যেকারণে ডিমের চাহিদা কমে যাওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তাছাড়া ডিমের বাজারদর নিয়ন্ত্রণ সিন্ডিকেট বড় খামারিরা সবসময় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক খামারিদের ধ্বংস করার চেষ্টা করে। ডিমের দাম কমিয়ে খামারিদের নিঃস্ব করার ষড়যন্ত্রও থাকতে পারে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments