মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাডালিয়াকে মোস্তফার ফুলেল শুভেচ্ছা, জামানত হারানোর ঘটনা নেতা-কর্মীদেরই বিস্মিত করেছে

ডালিয়াকে মোস্তফার ফুলেল শুভেচ্ছা, জামানত হারানোর ঘটনা নেতা-কর্মীদেরই বিস্মিত করেছে

জয়নাল আবেদীন: রংপুরের সার্বিক উন্নয়নে পাশে থাকার আহবান জানিয়ে সিটি নির্বাচনে জামানত হারা আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়াকে ফুলেল শুঋেচ্ছা দিয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য, রংপুর মহানগর সভাপতি ও রংপুর সিটি কর্পোরেশন দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত মেয়র মোঃ মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।

বৃহস্পতিবার নগরীর গুপ্তপাড়াস্থ বাস ভবনে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে অংশ নেয়া আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী সাবেক এমপি এ্যাড. হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়ার সাথে সৌজন্য স্বাক্ষাতকালে এ সব কথা বলেন তিনি। মোস্তফা বলেন রংপুর সিটি কর্পোরেশন বৃহত্তর একটি সিটি কর্পোরেশন। এটি আপনার আমার সকলের। এই নগরীর উন্নয়নে ও নগরবাসির সকল সেবা নিশ্চিত করতে, সার্বক্ষনিক আপনারা আমার পাশে থাকবেন। আপনাদের কাছে এটাই প্রত্যাশা করছি । এদিকে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া জামানত হারানোর ঘটনাটি দলের নেতা-কর্মীদেরই বিস্মিত করেছে। ভোট কমে গেলো কেন, সে নিয়ে তৈরি হয়েছে আলোচনা। মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা এজন্য দলের গ্রুপিংকে দায়ী করেছেন। এর আগের নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী প্রয়াত সরফুদ্দিন আহমেদ ঝণ্টু ৬২ হাজার চার’শ ভোট পান । অর্থাৎ নৌকার ভোট কমেছে ৪০ হাজার ৯৪টি। দলের বিদ্রোহী প্রার্থী লতিফুর রহমান মিলন ৩৩ হাজার ৮শ৮৩ ভোট পেয়ে হয়েছে তৃতীয়। তবে নির্বাচিত হওয়া জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফার ভোট কিছুটা কমেছে। তিনি এবার চেয়েছেন পেয়েছেন ১ লাখ ৪৬ হাজার ৭৯৮। এর আগের নির্বাচনে তিনি ভোট পেয়েছিলেন ১ লাখ ৬০ হাজার ৪৮৯ ভোট। অর্থাৎ মোস্তফার ভোট কমেছে ১৩ হাজার ৬৯১।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী লতিফুর রহমান মিলন ছিলেন রংপুর সিটির প্রথম মেয়র আওয়ামী লীগ নেতা ঝণ্টুর ভাগনি জামাই। তিনি ছিলেন কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।ডালিয়া মনোনয়ন পাওয়ার পর দলের নেতা-কর্মীদেরকে তার পক্ষে মাঠে নামাতে পারেননি, এটি ভোটের আগেই স্পষ্ট হয়ে উঠে। নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডের বেশিরভাগেই ছিল না নির্বাচনি অফিস। ওয়ার্ডে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি ছিল নামমাত্র। এমনকি দলের প্রথম সারির অনেক নেতাও জানতেন না ডালিয়া নির্বাচন করবেন। মনোনয়ন পাওয়ার পর কেবল ১৭ দিনে নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডে গিয়ে প্রচারে যাওয়াও সম্ভব ছিল না তার পক্ষে। পোস্টার, লিফলেটও দেখা যায়নি সেভাবে।

ডালিয়ার পক্ষে কাজ করা নগর আওয়ামী লীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আমি বিস্মিত হয়েছি যে, ফলাফলটা অত সহজভাবে গ্রহণ করতে পারছি না। মহাগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়ার রহমান সফি বলেন, শুধু দলীয় মার্কা হলে হবে না। প্রার্থীর উপর ভোট নির্ভর করে। মার্কা অবশ্যই লাগবে, মার্কার সঙ্গে ব্যক্তির ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা, তার আচার-আচরণ, মানুষের সঙ্গে তার অতীত কর্মকা- কী কাজ করছেন না করছেন, এগুলো মানুষ মূল্যায়ন করে।মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি ম-ল দলীয় কোন্দল ও সমন্বয়ের অভাবের কথা অস্বীকার করেছেন।

তিনি বলেন, ভোটের মাঠে যুবলীগ ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সবাই ছিল। মূলত সময় ছিল অল্প, এত কম সময়ে বিশাল এলাকায় যাওয়া কষ্টকর। সময় পেলে এমন হতো না। সার্বিক বিষয়ে জানতে হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়াকে তার ব্যক্তিগত নম্বরে ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments