সোমবার, মার্চ ৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলারংপুরে ছাত্রী-শিক্ষকের আপত্তিকর ফোনালাপ ফাঁস, বিদ্যালয়ে তালা

রংপুরে ছাত্রী-শিক্ষকের আপত্তিকর ফোনালাপ ফাঁস, বিদ্যালয়ে তালা

জয়নাল আবেদীন: রংপুরের বদরগঞ্জ চম্পাতলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে একই প্রতিষ্ঠানের অষ্টম শ্রেণিপড়ুয়া ছাত্রীকে মোবাইল ফোনে আপত্তিকর ফোনালাপ ফাঁস হয়ে পড়ায় বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী বিদ্যালয়ে তালা ঝুলিয়েছে ।

ওই অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের অপসারণ সহ শাস্তির দাবিতে উপজেলা সদওে গত ২দিন থেকে বিক্ষোভ করছে এলাকাবাসী । প্রতিষ্ঠান তালাবদ্ধ থাকায় স্কুল পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।এলাকাবাসীর অভিযোগ, ওই প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা থেকে একের পর এক নারী কেলেঙ্কারীতে জড়িয়ে পড়েন। একারণে ২০১১ সালে তাকে প্রথমবার সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এরপর আরও কয়েকবার তিনি নারী কেলেঙ্কারীর কারণে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছিলেন। পরবর্তীতে প্রভাব খাটিয়ে তিনি বার বার চাকরিতে পুনর্বহাল হন।

সম্প্রতি প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক তার প্রতিষ্ঠানের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীর সাথে মোবাইল ফোনে তিন মিনিট ৪৬ সেকেন্ডের ফোনালাপে তিনি ওই ছাত্রীকে বলেন, ‘তুমি কি একাই আছ। আমি তোমাকে খুব লাইক করি। আমি যতদিন বেঁচে আছি তোমার সবকিছু দেখব।’প্রধান শিক্ষক আরও বলেন, ‘তুমি জামাকাপড় নেবে না। আমার কাছ থেকে টাকা নিয়ে তুমি জামা কাপড় কিনিও।’ এরপর তিনি বলেন, আগামীকাল তোমার পরীক্ষা শুরু হবে সকাল ১০ টায়। তুমি সকাল ৯টায় সরাসরি আমার অফিসে আসিও। এসব কথা আবার কাউকে বলিওনা।’বুধবার রাতে প্রধান শিক্ষকের ওই ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর এলাকার লোকজন বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন। এরপর বৃহস্পতিবার সকালে এলাকার কয়েকশ’ নারী-পুরুষ বিদ্যালয় চত্বরে ঢুকে বিক্ষোভ করেন। এসময় পুরুষদের হাতে কিছু দেখা না গেলেও প্রত্যেক নারীর হাতে ছিল ঝাড়ু ।

বিদ্যলেয়ের জমিদাতা পরিবারের সদস্য তাপস চন্দ্র বলেন, প্রধান শিক্ষকের এ ধরণের অসামাজিক আচরণ ও কার্যকলাপে বিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আতাউর রহমান বলেন, বারবার এসব ঘটনার কারণে স্কুলের অনেক ক্ষতি হয়েছে। পরের বার আমরা ছাত্রছাত্রী ভর্তি করাতে পারব কিনা সন্দেহ। এ রকম ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে থাকলে কেউই তাদের ছেলে-মেয়েদের এই বিদ্যালয়ে পাঠাতে চাইবেন না।এদিকে বিক্ষোভের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা (এসিল্যান্ড) কাশপিয়া তাশরিন। এসময় তার সাথে ছিলেন মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এসএম শহিদুল ইসলাম ও বদরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান। এসিল্যান্ড ঘটনাস্থলে গিয়ে হ্যান্ড মাইকে বিক্ষুব্ধ লোকজনকে শান্ত হয়ে বিদ্যালয়ের তালা খুলে দেয়ার আহবান জানালেও তাতে সায় দেয়নি কেউই।

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এসএম শহিদুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়কে রক্ষার জন্য ওই প্রধান শিক্ষককে তাৎক্ষণিকভাবে বরখাস্ত করতে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং তা’ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।এদিকে প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাকের সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি বলেন আমাকে নিয়ে দীর্ঘ দিন থেকে ষড়যন্ত্র হচ্ছে । শুরু থেকে আমি প্রধান শিক্ষক হিসেবে গরীব মেধাবী অসহায়তা দিয়ে আসছি ।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments