রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাপীরগাছায় কোরবানির জন্য প্রস্তুত ৩০ হাজার পশু

পীরগাছায় কোরবানির জন্য প্রস্তুত ৩০ হাজার পশু

ফজলুর রহমান: পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রংপুরের পীরগাছায় কোরবানির জন্য ৩০ হাজার ৫শ ৫৯টি পশু প্রস্তুত করেছেন স্থানীয় খামারিরা। এতে প্রায় ২২৫ কোটি টাকার কেনা-বেচার সম্ভাবনা রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ উপজেলায় কোরবানির জন্য চাহিদা রয়েছে ১৯হাজার ২শ ২টি পশু। আর পশু প্রস্তুত রয়েছে ৩০ হাজার ৫শ ৫৯টি। বাড়তি ১১ হাজার ৩শ ৫৭টি পশু জেলার অন্যত্র সরবরাহ করা হবে। দাম ভালো পেলে লাভবান হবেন খামারিরা।

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে উপজেলার খামারিরা গরু, ছাগল ও ভেড়া মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত সময় পার করেন। তারই ধারাবাহিকতায় এ বছরও কোরবানিকে সামনে রেখে দেশি গরু ও ছাগল মোটাতাজা করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন উপজেলার খামারিরা। অন্যান্য বছরের মতো এবারও গবাদিপশু লালনপালনকারীরা ভালো দামের আশায় রয়েছেন। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, এ উপজেলায় ছোট-বড় মিলে খামারির সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার ৮শ ৬০ জন। এসব খামারে এবার ষাঁড় ও বলদ রয়েছে ১৯ হাজা ৫৭ টি এবং ছাগল ও ভেড়া রয়েছে ১১হাজার ৫শ ২টি হৃষ্টপুষ্ট করা হয়েছে।

গত বছরের তুলনায় পশুর সংখ্যা বেড়েছে। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন খামারে গিয়ে কথা হয় খামারি ও কৃষকদের সঙ্গে। ২৩ জুন (শুক্রবার) সকালে, উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের তাম্বুলপুর গ্রামের খামারি আব্দুর রউফ এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, তার ফার্মে ৪০টি গরু কোরাবানির জন্য মোটাতাজা করেছেন। তিনি আরো বলেন, আমরা দেশীয় পদ্ধতিতে গরু লালন পালন করে থাকি। গম, ভুট্টা ভাঙ্গা, খড়, ভূষি ও নিয়ম মাফিক নেপিয়ার ঘাস খাওয়ানো হয়। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর সবসময় পরামর্শ ও সহযোগিতা করে থাকে। গত কয়েকদিন আগে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের লাইফস্টক এক্সটেনশন অফিসার ডা. তৌহিদুর রহমান আমার গরুর খামার পরিদর্শন করেছেন।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের একাধিক খামারে গিয়ে দেখা যায় খামারি মালিকগণ গরু লালনপালন করা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করচেন। প্রতিপাল গ্রামের খামারি জানান, সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে গম ও ভুট্টা ভাঙ্গা, ভূষি খাইয়ে থাকি। কোনো মোটা তাজাকরণ ওষুধ বা ইঞ্জেকশন ব্যবহার করা হয় না। পবিত্র ঈদ উপলক্ষে বেশ কয়েকটি গরু প্রস্তত করেছি। আশা করছি ভাল দাম পাব।

পীরগাছা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোঃ আব্দুস ছালাম এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এ উপজেলায় খামারিরা কোরবানির পশু প্রস্তুত করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। পশুগুলোকে মোটাতাজা করার জন্য কোনো ধরনের ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ বা ওষুধ খাওয়ানো হচ্ছে না। এছাড়াও উপজেলার ০৫টি পশুর হাটে আসা গরুগুলোকে প্রাণঘাতী স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ খাওয়ানো হয় কিনা তা নিশ্চিতে ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম এবং মোবাইল ভেটেরিনারি ক্লিনিক সেবা প্রদান করছেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments