শুক্রবার, জুন ২১, ২০২৪
Homeসারাবাংলাতাহিরপুরে গ্রামে গ্রামে রক্তচোষা সুদ ব্যবসায়ীদের ফাঁদ

তাহিরপুরে গ্রামে গ্রামে রক্তচোষা সুদ ব্যবসায়ীদের ফাঁদ

আহম্মদ কবির: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার পাড়া-মহল্লায় ক্রমেই রমরমা হয়ে উঠছে রক্তচোষা সুদের ব্যবসা।বেঁচে থাকার প্রয়োজনে দিনমজুর, মধ্যবিত্ত, এমনকি ছোট-বড় ব্যবসায়ীরাও আটকা পড়ছে এই অবৈধ সুদ ব্যবসায়ীদের পাতানো ফাঁদে।

জানাযায় এ উপজেলায় গত( ১৮আগস্ট) সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় ফয়সাল আহমেদ সৌরভ(৩০)নামের এক যুবক আত্মহত্যা করে।ফয়সাল আহমদ সৌরভ উপজেলার বালিজুরি ইউনিয়নের পাতারী গ্রামের আজিজুর রহমান মকদ্দসের ছেলে।একই উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের ফজিবুল মিয়ার ছেলে খোকন মিয়া (৩০)সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় বিগত ৬-৭ বছর ধরে বাড়ি ছাড়া।একই এলাকার জয়পুর গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নার এর ছেলে মুদির দোকানি তছদ্দুল মিয়া (৩২)দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মুদির ব্যবসা করে আসছিল,ব্যবসা বড়পরিসরে চালাতে কোন একসময় সুদের টাকা গ্রহণ করে,ওই টাকার সুদ দিতে দিতে,গরু-বাচুর বিক্রি ও একমাত্র ফসলি জমি বন্ধক দিয়ে সুদের টাকা পরিশোধ করে একেভারেই নিঃস্ব হয়ে এখন দিনমজুর কাজ করে খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন।শুধু ওরাই নয় এই এলাকার বহু মানুষ রয়েছেন তারা সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে এলাকা ছাড়া রয়েছে,তারা সুদের টাকা পরিশোধ করতেও পারছে না এলাকাও আসতে পারছে না।

সম্প্রতি উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম সরেজমিন ঘুরে জানাযায়,এ উপজেলার হাওরাঞ্চলের প্রত্যেকটি গ্রামেই রয়েছে সুদের ব্যবসা।আর ওই চড়া সুদের ব্যবসা করে সাধারণ মানুষকে নিঃস্ব করে দিচ্ছে একশ্রেণীর সুদ ব্যবসায়ী,এলাকায় ওরা সুদখোর হিসাবেই পরিচিত। অথচ তাদের সুদ ব্যবসার জন্য কোন নিবন্ধন বা সরকার কর্তৃক কোন অনুমতি নেই।তারা বিভিন্ন সমিতির নামে কেউবা আবার ব্যাক্তিগতভাবে রক্তচোষা এই সুদের রমরমা বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে।এতে উপজেলার হাওর পাড়ের দরিদ্র কৃষক, জেলেসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা ঋণগ্রস্ত হয়ে নিঃস্ব হয়ে পথে বসেছেন।

জানাযায় উপজেলার হাওরাঞ্চলে প্রতিটি গ্রামেই কেউ না কেউ এই অবৈধ সুদের ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছে।কেউ কেউ সমিতির নামে কেউ আবার ব্যক্তি পর্যায়ে সুদের টাকা লেনদেনের ব্যবসা করে থাকেন।ক্ষুদ্র মাঝারিসহ বৃহৎ আকারে এই ব্যবসা পরিচালিত হয়ে থাকে।দিন সপ্তাহ,মাস কিংবা বার্ষিক হারে সুদ গ্রহণ করেন সুদের ব্যবসায়ীরা।অনেকেই প্রমাণ হিসাবে ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে জমির দলিল,চেকের পাতা,মূল্যবান জিনিসপত্র অথবা স্ট্যাম্পে বন্ডসই আদায় করে থাকেন।যাহা এক সময়ে সুদ আদায়ে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে থাকেন । সুদের টাকা গ্রহণ করে চড়া সুদ পরিশোধ না করতে পেরে চক্রবৃদ্ধি সুদে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে অনেকেই।অন্যদিকে এই উপজেলার হাওরাঞ্চলের এমন অনেক ব্যক্তি রয়েছেন যারা এই সুদের ব্যবসা করে রাতারাতি আঙুল ফুলে কলাগাছ বনেছেন।হয়েছেন অটেল অর্থ ও সম্পদের মালিক।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী মুদির দোকানি তছদ্দুল মিয়া জানান ভুলটা আমারই কেন আমি সুদের টাকা ব্যবসায় লাগাই,আজ আমি সর্বহারা।আমি মনে করি সুদের টাকা নিয়ে ব্যবসা করলে শেষ পরিণতি আমার মতই হবে।

ঢাকায় অবস্থানরত খোকন মিয়ার সাথে এ ব্যাপারে কথা বলতে তার ফোন নাম্বারে একাধিকবার চেষ্টা করলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।পরবর্তী জানতে পারলাম উনি নাকি উনার ব্যবহৃত নাম্বারটি ইচ্ছাকৃতই বন্ধ রেখেছেন। তবে ফোনে উনার সাথে যোগাযোগ করা হলেও উনি বলেন কি বলবো ভাই এটা আমার ভাগ্য,আমার কি ইচ্ছা করে না এলাকায় আসি।কিন্তু ভাগ্য আমাকে যেতে দিচ্ছে না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments