সোমবার, মার্চ ৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলা৪২ বছর বয়সেও ভিপি

৪২ বছর বয়সেও ভিপি

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চাঁদাবাজি, শিক্ষার্থীদের মারধর ও সিট বাণিজ্য– এমন নানা ঘটনায় আলোচিত তিনি। বাগেরহাটের সরকারি প্রফুল্ল চন্দ্র (পিসি) কলেজ কর্তৃপক্ষ তাঁর কর্মকাণ্ডে অতিষ্ঠ। পুলিশকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে সেই কথা। আলোচিত এই ব্যক্তি হলেন সরকারি পিসি কলেজের মেয়াদোত্তীর্ণ ছাত্র সংসদের ভিপি মো. ইয়াছির আরাফাত নোমান। তাঁর কারণে শতবর্ষী এই কলেজে শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ নেই বলে মনে করছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

ছাত্র সংসদে নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি ইয়াছির আরাফাত সরকারি পিসি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে এই কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করা হলেও গত ১৪ অক্টোবর সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় জেলা ছাত্রলীগ। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, এর পর কলেজে আবার ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি করেছেন ‘ভিপি নোমান’।

গত ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে ক্যাম্পাসে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শিক্ষক-কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ফুল দেওয়া হয়। কলেজ কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, ইয়াছির আরাফাত তাঁর সহযোগীদের নিয়ে সেই ফুল তছনছ করেন। পরে এ ঘটনাকে ‘ঘৃণ্য কাজ’ উল্লেখ করে শিক্ষক-কর্মকর্তা পরিষদের সভা ডাকেন অধ্যক্ষ প্রফেসর শেখ জিয়াউল ইসলাম। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, দোষীদের শাস্তির আওতায় আনতে ১৬ জানুয়ারি বাগেরহাট মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দেয় কলেজ প্রশাসন। জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জেলা আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগের অনুলিপি পাঠানো হয়।

অধ্যক্ষের স্বাক্ষরিত অভিযোগপত্রে বলা হয়, ‘বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে কলেজে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শিক্ষক-কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীর সমন্বয়ে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। কিন্তু মো. ইয়াছির আরাফাত নোমান, শামিম হাওলাদার, তন্ময় বালা, ফাহাদ হোসেন ও সঞ্জিত পাল সেই ফুল তুলে ফেলে দেন। ঘটনাটি সরকারি পিসি কলেজ পরিবারের সবাইকে মর্মাহত ও ব্যথিত করেছে। এ বিষয়ে ১৫ জানুয়ারি শিক্ষক পরিষদের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জরুরি ভিত্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানানো হলো।’

এর আগেও কলেজে এমন বিব্রতকর পরিস্থিতি ও সংকট সৃষ্টির চেষ্টা হয়েছে উল্লেখ করে অভিযোগপত্রে বলা হয়, গত বছরের ২৯ অক্টোবর রাতে কলেজের প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের বারান্দা থেকে আটটি হাইবেঞ্চ ও তিনটি চেয়ার চুরি হয়। এর পর ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উদযাপনে বাধা, প্রতিবন্ধকতা ও বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি করা হয়। এ ছাড়া, গত ৩০ ডিসেম্বর কলেজের নারকেল ও চাম্বল গাছের ডাল কাটা হয়। শিক্ষক-কর্মকর্তা

পরিষদের ১৫ জানুয়ারির বৈঠকে অভিযুক্ত মো. ইয়াছির আরাফাত নোমান ও তাঁর সহযোগীদের ক্যাম্পাসে প্রবেশ নিষিদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণেরও সিদ্ধান্ত হয়। তবে সিদ্ধান্তটি বাস্তবায়ন হয়নি বলে জানান সাধারণ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। তারা মনে করেন, ‘ভিপি নোমানের’ রাজনৈতিক প্রভাবের কাছে কলেজ কর্তৃপক্ষ অসহায়। কারণ তাঁর বাবা সরদার বদিউজ্জামান জেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক, চাচা সরদার নাসির উদ্দীন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সভাপতি, ছোট ভাই নাহিয়ান আল সুলতান ওশান জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক।

কলেজ কর্তৃপক্ষ বলছে, গত ২০ জানুয়ারি রাতে হিসাববিজ্ঞান বিভাগের সামনে ভাঙচুর চালায় কে বা কারা। তারা অনেকগুলো টব ভাঙচুর করে। এ ঘটনার সঙ্গেও নোমান জড়িত বলে সন্দেহ করা হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষক বলেন, দীর্ঘদিন ধরে কলেজ ছাত্র সংসদের নামে বিভিন্ন ফান্ড থেকে চাঁদাবাজি হচ্ছিল। সম্প্রতি তা বন্ধ হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে হিসাববিজ্ঞান বিভাগের সামনে ভাঙচুর চালানো হয়েছে। তবে ‘ভিপি নোমান’ বলেন, ‘ভবনের নিচ তলার গেটে তালা ছিল। রাতের আঁধারে কারা তিনটি ফুলের টব ভেঙে কক্ষের সামনে রেখেছে, সেটি আমার জানা নেই।’

নোমানের লেখাপড়া শেষ হয় না!

নথি অনুযায়ী, ২০০০ সালে সরকারি পিসি কলেজে ব্যবস্থাপনা বিভাগে স্নাতকে (সম্মান) ভর্তি হন নোমান। তার পর ২০০৮ সাল পর্যন্ত ছিল তাঁর পাঠবিরতি। ২০০৯ সালে তিনি প্রাইভেট শিক্ষার্থী হিসেবে আবার এই কলেজে ভর্তি হন স্নাতক পাস কোর্সে। এবারও তাঁর পাঠবিরতি ঘটে। এর পর উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পাসের সার্টিফিকেট দিয়ে ২০১২ সালে আবার নিয়মিত শিক্ষার্থী হিসেবে স্নাতকে (পাস) ভর্তি হন তিনি। এ সময় যেসব নথিপত্র কলেজে জমা দেন, সেখানে তাঁর জন্ম তারিখ উল্লেখ রয়েছে ১৯৯০ সালের ৫ মার্চ। এই হিসাবে তাঁর বর্তমান বয়স ৩৩ বছর ১০ মাসের বেশি। আবার জাতীয় পরিচয়পত্রে তাঁর জন্ম তারিখ উল্লেখ রয়েছে ১৯৮১ সালের ২ মার্চ। সে অনুযায়ী তাঁর বয়স ৪২ বছর ১০ মাসের বেশি।

অবৈধ ছাত্র সংসদের চাঁদাবাজি

ব্যক্তি জীবনে ইয়াছির আরাফাত নোমান বিবাহিত ও সন্তানের জনক। তার পরও ছাত্রলীগ পিসি কলেজ শাখা কমিটির সভাপতি পদে তিনি, যা সংগঠনের নীতিমালার পরিপন্থি। ২০১২ সালে এই কলেজ ছাত্র সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তিনি ভিপি নির্বাচিত হন। এক বছর মেয়াদি ছাত্র সংসদের কার্যক্রম ২০১৩ সালে বন্ধ ঘোষণা করে নোটিশ দেন কলেজের তৎকালীন অধ্যক্ষ। তবে এক দশকের বেশি সময় আগে বিলুপ্ত ওই ছাত্র সংসদ এখনও নানাভাবে কলেজে চাঁদাবাজি ও ছাত্রাবাসে সিট বাণিজ্য করছে।

কলেজের নথিপত্র অনুযায়ী, ২০২১ সালের মার্চে শিক্ষা সফরের জন্য ১ লাখ, ডিসেম্বরে শিক্ষা সফরে যাওয়ার জন্য দেড় লাখ, ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনে ৮০ হাজার, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনার জন্য ১ লাখ, দরিদ্র ছাত্রছাত্রীদের ত্রাণ সহায়তার জন্য দেড় লাখ এবং ল্যাপটপ, প্রিন্টার ও স্ক্যানার কেনার জন্য ৭০ হাজার টাকা নেয় ছাত্র সংসদ। কলেজ ছাত্র সংসদের প্যাডে আবেদন করে ওই টাকা নেওয়া হয়। এ ছাড়া, ২০১৯-২০ অর্থবছরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ৪ লাখ, ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপনে ২ লাখ, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ৫ লাখ, স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে ৮ লাখ, পহেলা বৈশাখ উদযাপনে ৮ লাখ, মুজিবনগর দিবস উদযাপনে ২ লাখ, জাতীয় শোক দিবস পালনে ১০ লাখ, বিজয় দিবসে ১০ লাখ, দরিদ্র তহবিল থেকে ২ লাখ, রোভার স্কাউট ও বিএনসিসি তহবিল থেকে ২ লাখ, শিক্ষা সফর (অনার্স) বাবদ ১০ লাখ, সরস্বতী পূজায় ৪ লাখ এবং মোটরসাইকেলের তেল কেনা বাবদ ৩ লাখ টাকা নেয় কলেজ ছাত্র সংসদ। কলেজ কর্তৃপক্ষ এই টাকা দিতে বাধ্য হয় বলে জানান শিক্ষক-কর্মকর্তারা।

কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ জিয়াউল ইসলাম বলেন, ‘দীর্ঘদিন কলেজ ছাত্রাবাসে বহিরাগতরা অবস্থান করছে। বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে দেওয়া ফুল তছনছ করে তারা ধৃষ্টতা দেখিয়েছে। তাদের এসব ন্যক্কারজনক কাজের বিষয়ে একাধিকবার স্থানীয় সংসদ সদস্য, রাজনৈতিক নেতা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও প্রশাসনে অভিযোগ দিয়েছি। আমরা চাই, ভিপি নোমান ও তার দলবলের কবল থেকে এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে মুক্ত করে দ্রুত পড়ালেখার স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনা হোক।’ সরকারি পিসি কলেজ ছাত্র সংসদের কার্যকারিতা আবারও বাতিল ঘোষণা করে গত ২৪ জানুয়ারি ছাত্র সংসদ কক্ষে তালা দিয়ে সিলগালা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

‘ভিপি নোমান’ যা বলেন

চাঁদবাজি ও অন্যান্য অভিযোগের বিষয়ে ইয়াছির আরাফাত নোমান বলেন, ‘২০১৩ সাল থেকে ছাত্র সংসদ অকার্যকর, কোনো বরাদ্দও ছিল না। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের চাহিদা ও দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তাদের উপকারের জন্য আমরা সংসদ কক্ষ খোলা রেখেছিলাম। কিন্তু অধ্যক্ষ ও জামায়াত সংশ্লিষ্ট কিছু শিক্ষক অন্যায়ভাবে ছাত্র সংসদ কক্ষে তালা দিয়েছেন। আমরা দরিদ্র ও অসহায় শিক্ষার্থীদের নিয়মিত সহযোগিতা করতাম। তাদের অনেকের বেতন বই ও কাগজপত্র ওই কক্ষে রয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ তোলা হয়েছে, সেগুলো ভিত্তিহীন।’

কী বলে পুলিশ

বাগেরহাট সদর মডেল থানার ওসি মো. সাইদুর রহমান বলেন, ‘কলেজ কর্তৃপক্ষের অভিযোগ আমরা তদন্ত করে দেখছি।’

সুত্র ঃ সমকাল

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments