রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাপাবনা বিআরটিএ অফিস যেন দুর্নীতির, অনিয়ম, হয়রানি আখড়া

পাবনা বিআরটিএ অফিস যেন দুর্নীতির, অনিয়ম, হয়রানি আখড়া

কামাল সিদ্দিকী: বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিট (বিআরটিএ) পাবনা অফিস বর্তমানে দালাল চক্রের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। দালাল ছাড়া বিন্দ্রমাত্র কাজ হয় না এই অফিসে। রাজনৈতিক ছাত্রছায়ায় শক্তিশালী একটি নেটওয়ার্ক চক্র গড়ে উঠেছে বিআরটিএ অফিসে।

নুতন ড্রাইভিং লাইসেন্স, নবায়ন, যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন ও রুট পারমিট, ফিটনেসসহ সংশ্লিষ্ট কাজ করিয়ে দেওয়ার নামে কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে যোগসাজশ করে সেবাগ্রহীতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন এই দালালচক্রটি। বিআরটিএ অফিস সংশ্লিষ্টরা সেবা গ্রহীতাদের কোন প্রকার সহযোগীতা বা কাজ না করে দেওয়ার জন্য সেবা গ্রহীতারা দালালদের শরণাপ্ন হতে বাধ্য হচ্ছে।

এখানে দালাল ধরলে ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য পরীক্ষাও দিতে হয় না। ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ির রেজিস্ট্রেশন না দেওয়ার বিধান থাকলেও উৎকোচের বিনিময়ে লার্নার (শিক্ষানবিশ) কার্ডধারীদের নিয়মিতই রেজিস্ট্রেশন দিয়ে যাচ্ছেন দালাল চক্রের সদস্যরা। ফটোকপির দোকানে ২০০ টাকার বিনিময়ে ডাক্তারি পরীক্ষার সার্টিফিকেট পাওয়া যাচ্ছে। আবার কিছু নির্দিষ্ট ক্লিনিক বা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সাথে যোগসাজশ করে সেখানে সেবাগ্রহীতাদের পাঠানো হয়। বেশি টাকা দিলে দ্রুত ডাক্তারি পরীক্ষার সার্টিফিকেট পাওয়া যায়।

গত এক সপ্তাহ পাবনা বিআরটিএর অফিস ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বিআরটিএ অফিসের হেল্প ডেস্কের আশপাশে ২০ থেকে ২৫ জন দালাল দাঁড়িয়ে আছেন। এছাড়াও ডিসি অফিস সংলগ্ন ফটোকপির দোকানের আশপাশের বেশ কিছু দালাল বসে রয়েছেন। সেবাগ্রহীতারা ফাইল নিয়ে আসতেই হাতে থেকে নিয়ে নিচ্ছেন দালাল চক্রের সদস্যরা। নতুন কেউ এলে তাদেরকে ডেকে বিআরটিএ অফিসের গলির মধ্যে নিয়ে যাচ্ছেন। প্রথম দিনেই শিক্ষানবিশ (লার্নার) করার জন্য ফটোকপির দোকানে নিয়ে যান দালালরা। একজনের সঙ্গে কমপক্ষে তিন থেকে চারজন দালাল দরদাম করেন। চুক্তি হলে ডিসি অফিস লংলগ্ন কয়েকটি ফটোকপির দোকানে নিয়ে আবেদন করান। এসব দালালরা ক্ষমতাশীন রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রছায়ায় থাকায় অফিসের স্টাফদের চেয়ে এদের প্রভাব বেশি। ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চান না। আবার মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন ও ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের কিছু লোক যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন, নবায়ন ও ফিটনেস সনদ দিতে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে।

সেবাগ্রহীতাদের অভিযোগ, গাড়ির ফিটনেস লাইসেন্স এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে এলে ভোগান্তি পোহাতে হয়। এ অফিসে দালাল না ধরলে কোনো কাজই হয় না, এটাই নিয়মনীতিতে পরিনত হয়েছে।সরকার নির্ধারিত ফ‘র চেয়ে লাইসেন্স প্রতি দুই গুণ, তিন গুণ টাকা বেশি দিতে হয়। দালাল ও অফিসের কর্মকর্তারা এসব অর্থ ভাগবাটোয়ারা করে নেন বলে অভিযোগ রয়েছে। কেউ পাঁচ বছর আগে আবেদন করেও কার্ড পাচ্ছেন না। অনেকেই আছেন আট বছর আগে রিনিউ করতে দিয়েছেন, দালালদের টাকা না দেওয়ায় রিনিউ হচ্ছে না।

পাবনা বিআরটিএ অফিস সূত্রে জানা গেছে, প্রতি মাসে তিনটি করে বোর্ড বসে। সপ্তাহের বুধবারে বোর্ড বসার নির্ধারিত দিন। একেকটি বোর্ডের জন্য সর্বোচ্চ ২২০ জন ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারেন। এক একটি বোর্ডের আবেদনকৃত ২২০ জনের মধ্যে ১৫০ থেকে ১৫৫ জন করে মোট ৬০০ জন আবেদন করলে ৫০০ জনের মতো ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষা দিতে আসেন। পরীক্ষায় পাস করলে অনলাইনে টাকা জমা নেওয়ার অপশন শুরু হয়। এ জেলায় কতটি বৈধ যানবাহন আর কতটি অবৈধ যানবাহন রয়েছে সেই তথ্য জানা যায়নি।

 

পাবনা সদর উপজেলার দুবলিয়া এলাকার গাড়িচালক সাকিরুল ইসলাম (ছদ্মনাম) বলেন, ২০০৪ সালে হেভিওয়েট লাইসেন্স করি। এরপর ২০১৫ সালের দিকে লাইসেন্স কার্ডটি হারিয়ে যায়। এরপর পাবনা বিআরটিএ অফিসের রঞ্জু নামে এক দালালের মাধ্যমে কার্ডটি রিনিউ বাবদ ৮ হাজার টাকাসহ জমা দেই। এরপর আমার থেকে লাইসেন্সের পরিষ্কার একটি ফটোকপি ছিল। ওই কপি অফিসে জমা দেই। আর ওই দালাল অপরিষ্কার এক কপি আমাকে দেয়। এরপর আবারও আমার থেকে ৯ হাজার টাকা দাবি করলে দিতে না পারায় আট বছর ধরে আমি লাইসেন্স পাচ্ছি না। এর মাঝে অনেক বড় বড় জায়গা থেকে গাড়ি চালানোর চাকরির অফার আসলেও সেইসব চাকরি করতে পারিনি। এখন আমি মানবেতর জীবনযাপন করছি। সব শেষ করে দিয়েছে দালাল। এখন সিএনজি চালিয়ে কোনো মতো সংসার চালাচ্ছি। এই অফিসের বিপুল সংখ্যক দালাল বহু মানুষের সাথে প্রতারণা করে টাকা আত্মসাৎ করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। ভুয়া লাইসেন্স করাসহ নানা ধরনের গ্রাহক হয়রানিও করছে তারা।

আটঘরিয়ার একদন্ত ইউনিয়নের মনছের আলীর ছেলে আব্দুল বারি। তিনি কীটনাশকের কোম্পানিতে চাকরি করেন। তিনি দালালের মাধ্যমে ২০২০ সালে মোটরসাইকেলের লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেন। ফিঙ্গার প্রিন্টও দেন। ২০২৪ সালের জানুয়ারি মাসের ২০ তারিখের দিকে এসে জানতে পারেন

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments