বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাপীরগাছায় সরিষার বাম্পার ফলন, দাম না পেয়ে হতাশ কৃষক

পীরগাছায় সরিষার বাম্পার ফলন, দাম না পেয়ে হতাশ কৃষক

ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় এবারে সরিষার ফলন বাম্পার হয়েছে । কিন্তু কাঙ্খিত দাম না পাওয়ায় হতাশ সরিষা চাষিরা। সরিষা বিক্রি করে গত বছর লাভের মুখ দেখলেও এবারে বাজার দর কম থাকায় লাভ হবে কি না এই আশঙ্কা কৃষকদের। তবে কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, দাম কম হলেও কৃষকদের লোকসান গুনতে হবে না, হয়তো বিগত বছরগুলোর চেয়ে লাভ কম হবে। চলতি মৌসুমে রেকর্ড পরিমাণ জমিতে উচ্চ ফলনশীল জাতের সরিষা আবাদ করেছে কৃষক।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, ২ হাজার ১ শ ৬৩ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করলেও অর্জিত হয়েছে ১ হাজার ৯শ ৮৫ হেক্টর। বারি-১৪, বারি-১৬, বারি- ১৮, টরি-৭ সহ উচ্চ ফলনশীল জাতের সরিষার আবাদ বেশি হয়েছে। এবারে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় সরিষার ফলনও অনেক ভালো হয়েছে। তবে সরিষার দাম কমে যাওয়ার পাশাপাশি শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধি, সার ও কীটনাশকের দাম বেশি হওয়ায় আবাদে খরচ বেড়েছে। যে কারণে লাভবান হওয়া তো দূরের কথা, লোকসানের আশঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার একাধিক কৃষক জানান, আমন ধান কাটার পরে সরিষার আবাদ শুরু হয়। নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সরিষার বীজ জমিতে বপন করা হয়। ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি থেকে মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে সরিষা মাড়াই করে ঘরে তোলা হয়। এরই মধ্যে বেশিরভাগ সরিষাই মাঠ থেকে কেটে মাড়াইয়ের জন্য বাড়ির আঙিনায় রোদে শুকানো হচ্ছে। সরেজমিন উপজেলার কল্যাণী, পারুল, তাম্বুলপুর, ছাওলাসহ কয়েকটি ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, বেশিরভাগ সরিষা চাষিই মাঠ থেকে সরিষা কেটে উঠানে মাড়াই কাজ শুরু করেছেন। কেউ কেউ সরিষা উঠানে স্তুপ কওে রেখেছেন। আবার কেউ সরিষা মাড়াই করে উঠাতে শুকাতে শুরু করেছেন। কৃষকরা বলছেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার সরিষার বাম্পার ফলন হয়েছে। কেউ কেউ স্থানীয় বাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু দাম গত বছরের চেয়ে কম হওয়ায় তারা হতাশ। তাদের মুখে নেই হাসি। স্থানীয় বাজারে বর্তমানে প্রতিমণ সরিষা প্রকারভেদে ২ হাজার থেকে ২২শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। গত বছর প্রতি মণ বিক্রয় হয়েছে ২ হাজার ৮ শ থেকে ৩ হাজার টাকা বাজার দর ছিল।

জগজীবন গ্রামের কৃষক মাহবুবার রহমান বলেন, এবারে প্রায় চার বিঘা জমিতে সরিষার চাষ করেছি। সার, হালচাষ এবং শ্রমিকের মজুরি বেড়ে যাওয়ায় সরিষা আবাদে খরচ বেড়েছে অনেক বেশি। কিন্তু গত বছরের লাভের অংক হিসেব করলে এবারে লাভ হবে কম। স্থানীয় বাজারে সরিষার দাম গত বছরের চেয়ে ৮ থেকে ৯শ টাকা কম। তাই লোকসান হতে পারে।

অন্নদানগর ইউনিয়নের জগজীবন ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আহসানুল হক জানান, সরিষা লাভজনক ফসল। আমন ধানকাটার পর ধানের জমিতে সরিষা আবাদ করলে প্রতি বিঘায় সাড়ে ৩-৪ মন সরিষা হয়। একবিঘা জমিতে সরিষা আবাদে প্রায় চার হাজার টাকা খরচ হয়। বাজার দাম কম হলেও কৃষকদের লোকসান গুনতে হবে না, হয়তো গত বছরের চেয়ে লাভ কম হবে। তিনি আরো বলেন, সরিষা আবাদে জমির উর্বরতা বাড়ে, অর্ধেক খরচে বোরো আবাদ ভালো হয়। তাই কৃষককে সরিষা আবাদ বেশি বেশি করার জন্য নিয়মিত পরামর্শ প্রদান করা হয়। আমার ব্লকে ৭০ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষ হয়েছে। উপজেলা অতিরিক্ত কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার বলেন, সরিষা বাংলাদেশের প্রধান ভোজ্য তেল ফসল। সরিষার বীজে প্রায় ৪০-৪৪ শতাংশ তেল থাকে। সরিষার তেলের রয়েছে অনেক ওষুধি গুণ। সরিষার খৈল গরু ও মহিষের পুষ্টিকর খাবার। সরিষার গাছ আবার জ্বালানি হিসেবেও ব্যবহার করা যায়। এসব কারণে বিশেষজ্ঞগণ সরিষার চাষ বৃদ্ধি করার জন্য কৃষকদের পরামর্শ দিয়েছেন।

পীরগাছা উপজেলা কৃষি কর্মকতা কৃষিবিদ রফিকুল ইসলাম জানান, তিন মাসেরও কম সময়ের মধ্যে সরিষার ফলন পাওয়া যায়। আমরা সরিষা চাষের জন্য কৃষকদের যথারীতি উৎসাহ প্রদান এবং প্রশিক্ষণ দিয়েছি। প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় এবারে ২ হাজার ৫শ ৩০ জন কৃষককে উচ্চ ফলনশীল জাতের বীজ ১ কেজি, ডিএপি ১০ কেজি ও এমওপি ১০ কেজি সার বিনামূল্যে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া রাজস্ব থেকে ৫০ টি ও প্রকল্প থেকে ৪৪ টি প্রদশর্ণী দেয়া হয়েছে। অনুকূল আবহাওয়া ও সঠিক পরিচর্যায় এবার সরিষার আবাদে কোনো প্রকার রোগ- বালাইয়ের আক্রমণ নেই। ফলে বাম্পার ফলন হয়েছে। অপেক্ষা করে বিক্রি করলে ভালো দাম পাওয়ার আশা করছি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments