রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাভরাট হয়ে যাচ্ছে টাঙ্গুয়ার হাওরের খালবিল

ভরাট হয়ে যাচ্ছে টাঙ্গুয়ার হাওরের খালবিল

আহম্মদ কবির: উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও অপরিকল্পিত ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে তলদেশ পলি জমে ভরাট হয়ে যাচ্ছে সুনামগঞ্জ প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট টাঙ্গুয়ার হাওরের খালবিল ও নদী-নালা।এরই মধ্যে ভরাট হয়ে অস্তিত্ব হারিয়েছে বেশ কয়েকটি বিল ও নালা।সংশ্লিষ্টরা বলছেন এখনই ব্যবস্থা না নিলে হুমকিতে পড়বে হাওরের জীববৈচিত্র্য এবং সংকটে পড়বে হাওরের উপর নির্ভরশীল হাজার হাজার মানুষের জীবিকা।টাঙ্গুয়ার হাওর‍টি দেশের বৃহত্তম জলমহালগুলোর অন্যতম। দেশের৷ উত্তর-পূর্ব প্রান্তে সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর ও ধর্মপাশা উপজেলায় অবস্থান, জীববৈচিত্রের সমৃদ্ধ মিঠা পানির এ হাওর দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট।ভারতের মেঘালয় খাসিয়া জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে সারি সারি হিজল করচ শোভিত হাওরটি মাছ পাখি ও অন্যান্য জলজ প্রাণীর এক বিশাল অভয়াশ্রম।

জেলা প্রশাসনের তথ্যসুত্রে জানাযায় বর্তমানে এই হাওরের বিলের সংখ্যা ৫১টি এবং মোট আয়তন ৬,৯১১২.২০ একর।তবে নলখাগড়া বন ও হিজল করচ বনসহ বর্ষাকালে সমগ্র হাওরটির আয়তন দাঁড়ায় প্রায় ২০.০০০একর।

স্থানীয়দের তথ্যমতে টাঙ্গুয়ার হাওরের ছোট-বড় ৫১টি বিলের মধ্যে সম্পুর্ণ ভরাট হয়েছে প্রায় ৯টি বিল।বাকিগুলো আংশিক ভরাট হয়ে গেছে।সম্পুর্ন ভরাট হওয়া বিলের মধ্যে মধ্যনগর উপজেলার বংশীকুন্ডা উত্তর ইউনিয়নের ছড়ার বিল,সামসাগর বিল,টান বেরবেরিয়া বিল,রাঙামাটি বিল,তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের টানেরগুল বিল,মাঝেরগুল বিল,লামারঘল বিল,নান্দিয়ার বিল,এরাইল্যাকোনা বিল,টানের লেছুয়ামারা বিল অন্যতম।

এছাড়াও আরো অনেক বিল আংশিক বা অর্ধেকের বেশি ভরাট হয়ে কোনভাবে টিকে আছে,জানাযায় এক সময় এই হাওরের কোটির কোটি টাকার মাছ উৎপাদন হতো এই হাওরে।এই হাওরে মাছ ও পরিযায়ী পাখির জন্য ৬টি বিল ও একটি নদীকে অভয়াশ্রম ঘোষণা করা হয়েছে।অভয়াশ্রম গুলো কাগজে কলমে ঘোষণা করা হলেও,রক্ষণাবেক্ষণ ও নিরাপদ ব্যবস্থা এবং পর্যাপ্ত কাটা-বাঁশ না থাকার কারণে এই হাওরে মাছের উৎপাদন হ্রাস পাচ্ছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা বিল্লাল মিয়া জানান আগে চৈত্র মাসেও এই হাওরের যে কোন বিলে নৌকা দিয়ে সহজে চলাচল করা যেতো। এখন হাওরের খালবিল নদী নালায় পলি জমে ভরাট হয়ে যাওয়ায় সহজে চলাচল করা যাচ্ছে না।কিছু কিছু বিল রয়েছে একেবারেই শুকিয়ে যায়, বিল গুলো খনন করা দরকার।

এ ব্যাপারে টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ সরকার জানান টাঙ্গুয়ার হাওরের কিছু বিল ও নদী-নালা পলি জমে ভরাট হয়ে অস্তিত্ব হারিয়েছে ফেলেছে। এছাড়াও অনেকগুলো বিল ও নদী-নালায় ভরাট হওয়ার পথে।যার ফলে হাওরে দেখা দিয়েছে পরিযায়ী পাখি খাবারের সংকট ও নষ্ট হতে চলেছে আশ্রয়স্থল এছাড়াও হেমন্তকালীন সময়ে,হাওরের জীব-বৈচিত্র সংরক্ষণের দায়িত্বে থাকা লোকজন,হাওরের সম্পদ সংরক্ষণে সহজে চলাচলে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। তাই অতিদ্রুত পরিকল্পিত ভাবে ভরাট হয়ে যাওয়া বিল ও নদী-নালা খননের দাবী জানাই।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments