নিষেধাজ্ঞা অমান্য ও শুল্ক ফাঁকি দিয়ে ফল আমদানি করছে "মতিনা ফ্রুটস"

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গত কিছুদিন আগে ১৭৭ টাকার আপেল ৮৮৫ টাকায় বিক্রির অভিযোগ উঠে এই মতিনা ফ্রুটসের বিরুদ্ধে।এই রেশ কাটতে না কাটতেই চলতি মৌসুমে দেশীয় ফল বাজারজাতকরনের জন্য বাহির থেকে ফল (আম) আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা (IP-Import Permission আমদানি অনুমতি ব্যতীত) জারী করে সরকার। তবে সে আদেশের তোয়াক্কা না করে থাইল্যান্ড থেকে ১৪ হাজার কেজি (১৪ টন) ফল আমদানী করে। যার মধ্যে ছিলো ৫ হাজার কেজি (৫ টন) আম যা অবৈধভাবে আমদানি করে আহসান মতিনা ফ্রুটসের মালিক মো. আব্দুল মানিক। ইউএস বাংলার একটি ফ্লাইটে থাইল্যান্ড থেকে ভারত হয়ে শনিবার (৯ মে) বিকালে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তজার্তিক বিমান বন্দরে এসব ফল আসে। ১৪ হাজার কেজি ফলের জন্য মাত্র ৯ লাখ ৬২ হাজার টাকা শুল্ক পরিশোধ করে উক্ত আমদানিকারক। বিষয়টি জানতে পেরে ফলের চালানটি আটক করে শুল্ক কর্মকর্তারা।এসমন্ধে সহকারী পরিচালক আবু হানিফ মোঃ আব্দুল আহাদের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আজকের বাংলাদেশ কে জানান গোয়েন্দা তথ্যর ভিত্তিতে জানতে পারি মিথ্যা ডিক্লেয়ারেশন দিয়ে সব্জীর স্থলে আম, অনান্য ফল ও আরো কিছু অবৈধ জিনিস থাকতে পারে। পরবর্তীতে আমি নিজে থেকে প্রত্যোকটি কার্টুন অনুসন্ধান করে এর সত্যতা পাই। এজন্য তার বিরুদ্ধে শুল্ক আইনে ব্যাবস্থা নেওয়া হয় এবং জরিমানা করা হয়। তাছাড়া শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তা রাকিবুল হাসান জানান তার ফলের চালানের সাথে অল্পকিছু ঔষধ পাওয়া যায়। যা ঔষধ প্রশাসনের অনুমতি ব্যতীত এবং অবৈধ পন্থায় আনায় আমরা আটক করেছি। তাছাড়া প্রতিষ্ঠিত ফল ব্যবসায়ী উত্তরা ফ্রুটসের মালিক অভিযোগ করেন আব্দুল মানিক অবৈধভাবে মেসার্স উত্তরা ফ্রুটস নামে আমার প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা ব্যবহার করে ট্রেড লাইসেন্স ইস্যু করে যাহার নাম এস.কে.এম.আর কোম্পানি। উক্ত এস.কে.এম.আর কোম্পানির নাম ব্যবহার করে এসব ফল আমদানি করা হয়। এএসমন্ধে উত্তরা ফ্রুটসের মালিক জাবির আজকের বাংলাদেশকে জানায় আমার ঠিকানা ব্যবহার করে আব্দুল মানিক অবৈধভাবে ফল আমদানি করছে শুনে আমি মতিনের কাছে জবাব চাইলে সে বলে আমার নিজস্ব দোকান নাই তাই করেছি , ভবিষ্যতে আর করবো না। এসমন্ধে আব্দুল মানিকের সাথে যোগাযোগ করলে আজকের বাংলাদেশকে জানায় আমদানি চালানটি আমার নামে নয়। অন্য একজনের নামে চালানটি আমদানি হয়েছে। তাছাড়া আমি একা নয় অনেক আমদানিকারক শুল্ক বাচাঁনোর জন্য সব্জীর জায়গায় ফল আনে। ফলের সাথে ঔষধ আনছেন কেন ? জিজ্ঞেস করলে উনি জানান ঔষধগুলো আমার নয় একজন সাংসদের। আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে ঢাকার বাদামতলী থেকে দেশীয় ফল ১৭৭ টাকায় কিনে গুলশানের সুপার শপগুলোতে বিদেশী বলে ৮৮৫ টাকা করে বিক্রি করে আসছেন। যার ফলে ভোক্তা অধিকার আপনার বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করেন এবং বর্তমানে তা বিচারাধীন রয়েছে। এর জবাবে তিনি জানান তারা যথাযথ ব্যাখ্যা অধিদফতরের পক্ষ থেকে অভিযান পরিচালনাকারী ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার কে জানিয়েছি।