তাঁত শিল্পে উপকরণের মূল্য বৃদ্ধিতে তাঁত শিল্প ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে

এম,এ,মুছা: সুতা সহ তাঁত শিল্পে উৎপাদনের সকল উপকরণের মূল্য বৃদ্ধির কারণে সিরাজগঞ্জের তাঁত শিল্প ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। শিল্প বিপ্লবের সাথে সাথে সিরাজগঞ্জ তাঁত শিল্প ব্যাপক বিস্তার ঘটেছে। এই শিল্পের উৎপাদিত শাড়ী, লুঙ্গী, জামদানী, গামছা, থ্রি-পিসসহ নানা ধরনের পন্য দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। তবে এ শিল্পে সুতাসহ উৎপাদনের উপকরণের ক্রমাগতভাবে মূল্যে বৃদ্ধি হওয়ায় উৎপাদিত পন্য বাজারে লোকসান দিয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে তাঁত শিল্প মালিকদের। এ কারণে জেলার অধিকাংশ তাঁত শিল্প বন্ধের দ্বারপ্রান্তে। উৎপাদিত পন্য ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় অনেক কারখানা মালিক এই শিল্পকে বাদ দিয়ে বিকল্প কোন ব্যবসা বেছে নিয়েছেন। তাঁত কারখানার শ্রমিকেরা জানিয়েছে, অন্যকোন কাজ না জানার কারণে তাঁত কারখানায় কাজ করি। আর এখন তাঁতের কাপড়ের বাজারের যে অবস্থা তাতে মহাজনরা লোকসান দিয়ে বেচাকেনা করে আমাদের মজুরী দেয়। আর এভাবে কতদিন লোকসান দিবে মহাজনরা। ঠিকমত বেচাকেনা না থাকলে আমাদের মজুরী দিতে পারবেনা। আর মজুরী না পাইলে আমাদের ছেলে মেয়ে নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে। সরকার যদি তাঁত শিল্পের প্রতি সার্বিক পৃষ্টপোষকতা দেয় তাহলে আমাদের মহাজন বা তাঁত শিল্প মালিকদের ক্রয়-বিক্রয় ভালো হবে। না হইলে তাঁত শিল্প বন্ধ হয়ে যাবে। তাঁত শিল্প বন্ধ হলে আমরা কি কইরা জীবিকা নির্বাহ করবো। এদিকে তাঁত মালিকগন জানান, সুতা সহ উৎপাদনের উপকরণের মূল্যে নির্ধারণ করে ও স্বল্প সুদে ঋণ দিলে এ শিল্প সচল করা সম্ভব হবে। তা না হলে দিন দিন লোকসান দিয়ে এক সময়ে এই ব্যবসা বাদ দিয়ে অন্য কোন ব্যবসা বা চাকরি করে জীবন যাপন করতে হবে। তাই সরকারের কাছে জোর দাবী জানায়, সুতাসহ, উৎপাদনের উপকরণের দাম নির্ধারণ করে আমাদের এ ঐতিহ্যবাহী তাঁত শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে সহযোগিতা করুন। তা ছাড়া একদিন আমাদের এই শিল্প হারিয়ে যাবে।