অর্থ সংকটে সরকার: দুই মাসে রাজস্ব ঘাটতি ১২ হাজার কোটি টাকা

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মহামারী রূপ নেওয়া কোভিড-১৯ এর প্রভাবে ধীরগতিতে চলছে সরকারের রাজস্ব আদায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসেই ঘাটতি ১২ হাজার কোটি টাকা। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, অর্থবছর শেষেও রাজস্ব আদায়ে বড় ধরনের ঘাটতি থাকবে। কেননা দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য স্থবির হয়ে রয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকারি দপ্তরগুলোর সব ধরনের গাড়ি কেনা বন্ধ, বিলাসী ব্যয় কর্তন, কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের অর্থায়ন বন্ধ ও ভ্রমণ স্থগিত করা হয়েছে। সর্বশেষ গত ৮ সেপ্টেম্বর খরচ কমানোর এক নতুন নির্দেশনা জারি করে সরকার। সেখানে উন্নয়ন প্রকল্পে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা চলতি অর্থবছরের বাজেটের থোক বরাদ্দের অর্থ দিয়ে পরিশোধের কথা বলা হয়েছে।

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সরকার ১ লাখ ৩ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করে। ইতিমধ্যে তা বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। অথচ রাজস্ব আহরণে বড় ধরনের ঘাটতি। এর কারণেই ব্যয় সংকোচনের পথে হাঁটছে সরকার। অতিগুরুত্বপূর্ণের বাইরে খরচ করতে চাচ্ছে না। এ জন্য উন্নয়ন ও পরিচালন- উভয় ধরনের ব্যয় সংকোচন নীতি বেছে নেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, বিলাসী ব্যয় ও বিদেশ ভ্রমণ এমনকি দেশের অভ্যন্তরেও যাতায়াত খরচ কমানোর কৌশল নিয়েছে সরকার। এ জন্য বেশিরভাগ সভা করা হচ্ছে অনলাইনে। এতে করোনার সংক্রমণ ঝুঁকিও কমানো সম্ভব বলে মনে করা হচ্ছে। এ বিষয়ে এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. আবদুল মজিদ বলেন, ‘স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে রাজস্ব ঘাটতি থাকবে। এ জন্য ব্যয়ের বাজেট হ্রাস করতেই হবে। কারণ ব্যয় সাশ্রয়ী না হলে বাজেট বাস্তবায়নও অসম্ভব হবে।’