বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আমদানি করা চাল বাজারে আসার পরও বাড়ছে দাম। এতে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে কমে গেছে বিক্রি। দাম সহসা কমার কোনো ইঙ্গিতও নেই রাজধানীর পাইকারদের কাছে। লাগাম টানা যাচ্ছে না সয়াবিন তেলের দামেও। সপ্তাহের ব্যবধানে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে তেলের দামও।

চালের ঊর্ধ্বমুখী বাজার নিয়ন্ত্রণে দেড় মাস আগে দেয়া হয় আমদানির অনুমতি কমানো হয় শুল্ক। বিদেশ থেকে দেশের বাজারে আসতেও শুরু করেছে সেই চাল। তারপরও কমেনি বরং দেশি চালের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দাম বাড়ছে আমদানি করা চালের দামও।

ব্যবসায়ীরা জানান, সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ২ টাকা পর্যন্ত। এমনকি বিদেশি চাল বাজারে এলে দাম কমবে; এমন ধারণায় দ্রুত মজুত চাল আগেই বিক্রি করে বিপাকে পড়েছেন অনেক ব্যবসায়ী।

তবে দাম বৃদ্ধির পাইকারি বাজারের প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারেও। এতে দৈনিক বাজারের হিসাব মেলাতে হিমশিম খাচ্ছেন ভোক্তারা।

এদিকে চালের অন্যতম মোকাম নওগাঁতেও চালের বাজার অস্থির। সপ্তাহ ব্যবধানে সব ধরনের প্রতি কেজি চালের দাম বেড়েছে ৭ থেকে ৮ টাকা পর্যন্ত।

ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারে ধানের সংকট থাকায় চালের দামের ওপর প্রভাব পড়েছে। মোটা চালের তুলনায় সরু চালের দাম বেশি বেড়েছে। তবে এলসি করা চালের দামে কোনো প্রভাব পড়েনি। খুচরা বাজারে মোটা চাল স্বর্ণা- পাঁচ ৪৮ টাকা, বি আর আটাশ ৪৫ টাকা, জিরাশাল ৬৫ টাকা, কাটারি ৬৬ টাকা এবং মিনিকেট ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এতে চাল কিনতে গিয়ে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ ক্রেতারা।

এ ছাড়া চালের বাজারের সঙ্গে যেন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সয়াবিন তেলের দাম। এক সপ্তাহে প্রতি লিটারে বেড়েছে ১০টাকা।

ব্যবসায়ীরা জানান, চাহিদার অর্ধেক তেলও সরবরাহ পাচ্ছেন না তারা।

Previous articleসিংগাইরে এসিড পানে গৃহবধূর আত্মহত্যা
Next articleসাংসদ পাপুলের পৃষ্ঠপোষকদেরও বিচার চান বঞ্চিত রায়পুরবাসী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।