মাহমুদ আজহার: ঢাকা-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন আবু আশফাক। উপজেলা চেয়ারম্যান নিয়ে আইনি জটিলতায় গতকাল সর্বোচ্চ আদালতে তার প্রার্থিতা স্থগিত হয়। সেখানে বিএনপি, ২০ দল বা ঐক্যফ্রন্টের এখন কোনো প্রার্থী নেই। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন বর্তমান এমপি অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম। বিএনপি জোট তাকেই সমর্থন দিয়েছে। এরই মধ্যে এলাকার নেতা-কর্মীরা সালমা ইসলামের পক্ষে মাঠে কাজও শুরু করে দিয়েছেন। সিলেট-৫ আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন নিখোঁজ এম ইলিয়াস আলীর সহধর্মিণী তাহসিনা রুশদীর লুনা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি জটিলতায় সর্বোচ্চ আদালতে গিয়েও তার প্রার্থিতা স্থগিত হয়। সেখানে গণফোরামের উদীয়মান সূর্য প্রতীকে মো. মুকাব্বির খানকে সমর্থন দিয়েছে বিএনপি।

শুধু এই দুই আসনেই নয়, অন্তত ১৬টি আসনে বিএনপিতে একই অবস্থা। বিএনপির শূন্য আসনে কোথাও বিকল্প প্রার্থী নেই। আবার কোথাও কোথাও ঐক্যফ্রন্টের দুর্বল প্রার্থীকে সমর্থন দিচ্ছে। আবার কোথাও অন্য কোনো দলের প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়ার কথা ভাবছে বিএনপি। এর মধ্যে কয়েকটি আসনে সমর্থন দেওয়া হয়েছে। দু-চারটি আসনে এখনো সিদ্ধান্তহীনতায় বিএনপি। কাল হাই কোর্টে এ নিয়ে শুনানি আছে। আবার কয়েকটির ব্যাপারে আজ-কালের মধ্যেই সিদ্ধান্ত নেবে বিএনপি।

জানা যায়, মানিকগঞ্জ-৩ আসনে ঋণ খেলাপের কারণে আফরোজা খান রিতার মনোনয়ন স্থগিত হয়েছে। সেখানে গণফোরামের উদীয়মান সূর্য প্রতীকে সাবেক এমপি মুক্তিযোদ্ধা মফিজুল ইসলাম খান কামালকে সমর্থন দিতে পারে বিএনপি। জয়পুরহাট-১ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী করা হয় ফজলুর রহমানকে। উপজেলা চেয়ারম্যান নিয়ে আইনি জটিলতায় গতকাল সর্বোচ্চ আদালতে তার প্রার্থিতা স্থগিত হয়। সেখানে বিএনপির ফয়সাল আলিম নামে আরেক প্রার্থী বৈধ আছেন। এখন ধানের শীষের প্রতীক তাকে দেওয়ার জন্য তোড়জোড় চলছে। এ নিয়ে আদালতে রিট করতে হবে। সেই প্রক্রিয়াও চলছে বলে জানা গেছে। নাটোর-১ আসনে আইনি জটিলতায় কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রার্থী মনজুরুল ইসলামের প্রার্থিতা বাতিল হয়। সেখানে বিএনপির অধ্যক্ষ শিরিন আক্তার ধানের শীষ প্রতীকে লড়বেন। রাজশাহী-৬ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী ছিলেন আবু সাইদ চাঁদ। উপজেলা চেয়ারম্যান জটিলতায় গতকাল সর্বোচ্চ আদালতে তার প্রার্থিতা বাতিল হওয়ায় ওই আসনে বিএনপি প্রার্থীশূন্য হয়ে পড়ে। ওই আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, ২০ দল বা স্বতন্ত্র কোনো প্রার্থীই নেই। তাই ওই আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইকবাল হোসেন বা ইসলামী আন্দোলনের ‘হাতপাখা’ প্রতীকের প্রার্থী বাবুল ইসলামকে নিয়ে চিন্তাভাবনা করছে বিএনপি। তবে এখনো চূড়ান্ত না হলেও ইকবাল হোসেনকেই শেষ পর্যন্ত সমর্থন দিতে পারে বিএনপি জোট।
ঝিনাইদহ-২ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী ছিলেন আবদুল মজিদ। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যান হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তার প্রার্থিতা বাতিল হয়। ওই আসনে বিএনপি, ২০ দল বা ঐক্যফ্রন্টের কোনো প্রার্থী নেই। সেখানে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল বাসদের আসাদুল ইসলাম, ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা ফখরুল ইসলাম ও জাকের পার্টির আবু তালেব সেলিম প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন। এর মধ্যে বাসদের প্রার্থী আসাদুল ইসলামকে বিএনপি জোট সমর্থন দিতে পারে।

বগুড়া-৩ আসনে ধানের শীষের আবদুল মহিত তালুকদারের জায়গায় স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেন (আপেল) এবং আবদুল মজিদের (ডাব) মধ্যে কোনো একজনকে সমর্থন দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। ঢাকা-২০ আসনে ধানের শীষের তমিজউদ্দিনের জায়গায় বিকল্প কোনো প্রার্থী নেই। এই আসনটিতে আ স ম আবদুর রবের নেতৃত্বাধীন জেএসডির এম এ মান্নান (তারা) প্রতীকে নির্বাচন করছেন। তাকেই সমর্থন দেবে ঐক্যফ্রন্ট। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হয় ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ মোসলেম উদ্দিনকে। কিন্তু তার প্রার্থিতা স্থগিত হয়ে যাওয়ায় ওই আসনে বিএনপির বৈধ প্রার্থী নাছির উদ্দিন হাজারী লড়ছেন। এ নিয়ে তিনি আদালতে রিট করে ধানের শীষ প্রতীক চাইবেন বলে আজকের কাগজকে জানিয়েছেন।

রাজশাহী-৫ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী ছিলেন নাদিম মোস্তফা। আইনি জটিলতায় গতকাল তার প্রার্থিতা বাতিল হয়। সেখানে বিএনপি থেকে অধ্যাপক নজরুল ইসলাম মণ্ডলকে ধানের শীষ প্রতীক তুলে দেওয়া হয়। নওগাঁ-১ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী দেওয়া হয় সালেক চৌধুরীকে। আইনি জটিলতায় গতকাল তিনি সর্বোচ্চ আদালতে হেরে যান। সেখানে বিএনপির আরেক প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমানের হাতেই শেষ পর্যন্ত ধানের শীষ প্রতীক থাকছে। আইনি জটিলতায় মানিকগঞ্জ-১ আসনে এস এ কবীর জিন্নাহর পরিবর্তে খোন্দকার আবদুল হামিদ ডাবলু ধানের শীষ প্রতীকে লড়ছেন।

চাঁদপুর-৪ আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন এম এ হান্নান। কিন্তু গতকাল উচ্চ আদালতে তার প্রার্থিতা স্থগিত হয়ে যায়। সেখানে বিএনপির সহ-তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক রিয়াজউদ্দিন নসুও বৈধ প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন। তাকে নিয়ে বিএনপি এখন চিন্তাভাবনা করছে। আরপিওর নীতিমালা অনুযায়ী তিনি ধানের শীষ না পেলেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী শফিকুর রহমানের বিপরীতে লড়তে পারেন রিয়াজউদ্দিন নসু।

বগুড়া-৭ আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন মিল্টন মোর্শেদ। সেখানে বিএনপি বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কোনো প্রার্থী নেই। ওই আসনে বৈধ প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন ন্যাশনাল পিপলস পার্টি এনপিপির ফজলুল হক ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির মোনতেজার রহমান। বিএনপি এই দুজন থেকে একজনকে বেছে নেবে। এ বিষয়ে আজ সিদ্ধান্ত হতে পারে বলে স্থানীয় বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন।

জামালপুর-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন রশিদুজ্জামান মিল্লাত। তার প্রার্থিতা বাতিল হয়ে যাওয়ায় ওই আসনে উদীয়মান সূর্য প্রতীকে গণফোরামের ইঞ্জিনিয়ার সিরাজুল হককে বিএনপি সমর্থন দেওয়ার চিন্তা করছে। দিনাজপুর-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। সেখানে মোফাজ্জল হোসেন দুলাল নামে বিএনপির আরেকজন বৈধ প্রার্থী রয়েছেন। এ নিয়ে দুলাল রিটও করেছেন। উচ্চ আদালতে আগামীকাল এ নিয়ে শুনানি রয়েছে। এরপরই বিএনপি সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছেন জেলা নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান লুত্ফর রহমান মিন্টু।