মো.ওসমান গনি: সঠিক নিয়ম ও পদ্ধতিতে মাছ করলে পাল্টে যেতে পারে আমাদের দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা।আমাদের দেশের শিক্ষিত বেকার যুবসমাজ তাদের জীবনের বেকারত্বের গ্লাণি মুছার জন্য এখন অনেকেই মাছ চাষের দিকে ধাবিত হচ্ছেন।বর্তমানে যে হারে আমাদের দেশে মাছ চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে তা যদি চলমান রাখা যায় অতি অল্প সময়ে আমাদের দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে বিরাট আকারের উন্নয়ন মূলক পরিবর্তন আসতে পারে। মাছ চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন দেশের লক্ষাধিক মানুষ। আর মাছ চাষের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও উঠে এসেছে বাংলাদেশের নাম। ক্রমাগত ফিশারির সংখ্যা বৃদ্ধি ছাড়াও স্বাধীনতা পরবর্তী ফিশারিজ থেকে মাছের উৎপাদন বেড়েছে ১.৬ গুণ। দেশে প্রতিনিয়তই মাছ চাষের সম্প্রসারণ ঘটছে। তবে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মাছের চাষাবাদে পিছিয়ে আছে দেশ। এক্ষেত্রে গুণগতমানের হ্যাচারির অপর্যাপ্ততা ও চাষের বিজ্ঞানভিত্তিক প্রক্রিয়া অনুসরণ না করাকে দায়ী করা হচ্ছে। প্রথমবারের মতো আমাদের বাংলাদেশ মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের হিসাবে, ১৬ কোটি জনগণের দৈনিক মাথাপিছু মাছের চাহিদা ৬০ গ্রাম হিসাবে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪০ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন, কিন্তু উৎপাদিত হয়েছে ৪১ লাখ ৩৪ মেট্রিক টন। এর ফলে দেশে গ্রামীণ কর্মসংস্থানের নতুন সুযোগও সৃষ্টি হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা গেছে, দেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট গবেষণা পরিচালনা করে এ যাবত ৫৭টি প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে। এর মধ্যে ৪৬টি মাছের প্রজনন, জিনপুল সংরক্ষণ, জাত-উন্নয়ন ও চাষাবাদ বিষয়ক এবং অপর ১১টি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক। মাঠপর্যায়ে এসব প্রযুক্তি সম্প্রসারণের ফলে মাছের উৎপাদন উল্লেখ্যযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে। স্বাদুপানির ২৬০টি মৎস্য প্রজাতির মধ্যে ৬৪টি প্রজাতি বর্তমানে বিপন্ন হলেও এ সময় কৃত্রিম ও নিয়ন্ত্রিত প্রজননের মাধ্যমে টেংরা, গুজি আইড়, চিতল, ফলি, কুচিয়া মাছের পোনা উৎপাদনে সফলতা এসেছে। এখন পর্যন্ত বিলুপ্ত প্রায় ১৬টি মাছকে পুনরুদ্ধারের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি দেশের মাছ উৎপাদনে ব্যাপক আবদান রেখে চলেছে। পুনরুদ্ধারকৃত মাছের চাষাবাদ সম্প্রসারিত হওয়ায় বাজারে এদের প্রাপ্যতাও বৃদ্ধি পেয়েছে এবং মূল্য জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে এসেছে। বিজ্ঞানীরা জেনেটিক গবেষণার মাধ্যমে ২০০৯ সালে দেশীয় রুই মাছের নতুন উন্নত জাত- উদ্ভাবনে সক্ষম হয়েছেন। বিভিন্ন নদীর উৎস থেকে রুই মাছের বন্য জাত সংগ্রহ করে ক্রসডিং পদ্ধতিতে উদ্ভাবিত প্রথম প্রজন্মের উন্নতজাতের এই রুই বিদ্যমান জাত হতে ১৬ গুণ অধিক উৎপাদনশীল। ফলে এ মাছের উদ্ভাবিত জাতটি ব্যাপকভাবে সম্প্রসারিত হলে দেশে অতিরিক্ত ৩০ থেকে ৩৫ হাজার মেট্রিক টন মাছ পাওয়া সম্ভব হবে। এ দেশে দুর্লভ প্রজাতির কুচিয়া মাছ অত্যন্ত পুষ্টিসমৃদ্ধ ও ঔষধি গুণসম্পন্ন। দেশে এর চাহিদা তেমন না

থাকলেও আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদা যথেষ্ট। আন্তর্জাতিক বাজারে কুচিয়ার চাহিদা থাকায় ২০১৫ সালে নিয়ন্ত্রিত প্রজননের মাধ্যমে কুচিয়ার পোনা-উৎপাদনে সফলতা এসেছে। এ পোনা উৎপাদনের ফলে প্রাকৃতিক পরিবেশ থেকে নির্বিচারে কুচিয়ার আহরণ হ্রাস পেয়েছে এবং চাষাবাদ সহজতর হয়েছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতায় মৎস্য অধিদফতর ও মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের যৌথ প্রচেষ্টা বাংলাদেশ মাছ উৎপাদনে ১৬ কোটি জনগণের চাহিদাপূরণ করার পর অতিরিক্ত মৎস্য উৎপাদনেও সফলতা দেখিয়েছে। তারা বলছেন, ‘আমরা বহুবছর পর হারিয়ে যাওয়া ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’ প্রবাদটিকে আবার পুনরুদ্ধার ও প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছি। বর্তমানে আমাদের দেশে বাজারে যেসব মাছ পাওয়া যায় তার অধিকাংশই চাষের মাছ। নিঃসন্দেহে বলা যায়, দেশে মাছ চাষের সম্প্রসারণ ঘটেছে। মাছ চাষের বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনেকটা সম্প্রসারিত হলেও সব সময় বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি প্রয়োগ করা সম্ভব হয় না। সামগ্রিকভাবে দেশে মাছ উৎপাদন অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে ফিশারিজে মাছের উৎপাদন কমেছে, বেড়েছে এ্যাকোয়াকালচারে। সাদা মাছ চাষের মাধ্যমে মাছের উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। মাছ চাষের নতুন প্রযুক্তি সম্প্রসারণের মাধ্যমে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি করতে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকার সংস্থা। অবলুপ্ত মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি করাই হল তাদের মূল কাজ। অনেক সময় দেখা যায় টাকা আছে কিন্তু নির্দিষ্ট মাছ পাওয়া যাচ্ছে না; সেসব মাছের উৎপাদন যাতে বৃদ্ধি পায়, কৃষক যাতে সেসব মাছ ক্রয়ে আগ্রহী হয়, সে লক্ষ্যে নানাভাবে জনসাধারণকে সচেতন করে তোলছে তারা। মাছ চাষে যোগাযোগ ব্যবস্থাই প্রধান হাতিয়ার। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পন্ন এলাকায় মাছ চাষের সম্প্রসারণ ঘটে না। এছাড়া গুণগত মানের হ্যাচারির অভাব, মাছের খাদ্যের দাম বৃদ্ধির কারণই মাছের উৎপাদন বৃদ্ধির অন্যতম প্রতিবন্ধকতা। এছাড়া মাছ বিক্রিতে একটি সিন্ডিকেট কাজ করছে। মাছ চাষীদের সরকারের কাছে দাবি, মাছ চাষকে জনপ্রিয় করে তুলতে বিদ্যুত প্রাপ্তি যেন সহজলভ্য করে দেয়া হয়। দেশে গুণগত মানের হ্যাচারির অভাব রয়েছে। ফলে মাছ চাষীদের পক্ষে অনেক সময় মানসম্পন্ন মাছের পোনা সংগ্রহ করা সম্ভব হয় না। এছাড়া মাছের খাদ্যের মূল্যের উর্ধগতি, কারেন্ট জালের ব্যবহার ও বিভিন্ন জলাশয় ভরাটের কারণে কোন কোন অঞ্চলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। তৃণমূল পর্যায়ে মৎস্য চাষ সম্প্রসারণ কাজে নিয়োজিত জনবল যথেষ্ট নয়। বিজ্ঞানভিত্তিক মাছ চাষ এগিয়ে নেয়ার জন্যও জনবল অত্যন্ত কম। মাছের খাদ্য বা খাদ্য উপকরণ পরীক্ষার জন্য মৎস্য অধিদফতরের কোন পরীক্ষাগার নেই। মাছের খাদ্যের দাম বেড়ে চলছে। কৃষিক্ষেত্রে সরকার ভর্তুকি দিলেও মাছের খাদ্যে কোন ভর্তুকি দেয়া না। এছাড়া মাছ চাষ বাণিজ্যিক খাত না কৃষির উপখাত তা নিয়েও সমস্যা রয়েছে। ফলে মাছ চাষীদের ঋণ প্রাপ্তিতেও দেখা দেয় নানা সমস্যা। স্বাভাবিক ভাবে খাল-বিল-নদী-নালায় পানি কমছে। সর্বত্র পানির গভীরতা হ্রাস পাচ্ছে। দেশের ভবিষ্যত চিন্তা করে প্রাকৃতিক জলাশয় রক্ষা করতে হবে। চিংড়ি চাষে দেশ অনেক ভাল করছে। তবে একই সঙ্গে এর প্রভাবে

লবণাক্ততাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। হ্যাচারির পানি যদি নদীতে ছেড়ে দেয় তাহলে প্রাকৃতিক বৈচিত্র্যতা বিনষ্ট হবে। সামগ্রিকভাবে মাছ চাষের ক্ষেত্রে এসব বিষয়ও মাথায় রাখতে হবে।

মো.ওসমান গনি

লেখক-সাংবাদিক ও কলামিস্ট