সড়কে বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল

ওসমান গনি: সড়কে কোনোভাবেই শৃঙ্খলা ফিরছে না। ফলে বন্ধ হচ্ছে না অসংখ্য প্রাণহানির ঘটনা।এতে প্রাণ যাচ্ছে একের পর এক। এভাবেই কি দেশের সড়ক-মহাসড়কগুলোতে মানুষের মৃত্যুর বিভীষিকা চলতে থাকবে? দেশে এত বেশি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে যে, দুর্ঘটনা রোধে হালে বিশেষ বাহিনী গঠনের দাবি উঠছে। দেশে সন্ত্রাস দমনে যদি র‌্যাব বাহিনী গঠন করা যায়, দুর্ঘটনা রোধে এ-জাতীয় বাহিনী নয় কেন? কোনভাবেই তা রোধ করা যাচ্ছে না।সরকারি ও বেসরকারিভাবে সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হলেও তা বাস্তবে কার্যকর করা যাচ্ছে না।আমাদের দেশের গাড়ী চালকের সঠিক প্রশিক্ষণ না থাকা,অতি দ্রুত গতিতে গাড়ী চালানো,ওভারটেক করাসহ বিভিন্ন কারনে দেশে সড়ক দুর্ঘটনার হার বেড়ে যাচ্ছে।আর এই দুর্ঘটনার শিকার হয়ে আমাদের দেশে প্রতি বছর অসংখ্য মানুষের প্রাণহানি হচ্ছে। .সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে কোনো উদ্যোগই কাজে আসছে না। প্রতিদিন কোথাও না কোথাও সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু ও অঙ্গহানির ঘটনা ঘটছে। সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি এবং আহত হওয়া অতি সাধারন পরিণত হয়েছে। সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। প্রতিদিন ই সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় শুনি ও দেখতে পাই দেশের কোথায় না কোথাও সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানোর ঘটনা ঘটছে। গত ৬ জানুয়ারী২০২০ইং ৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

সড়ক নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করা নিরাপদ সড়ক চাই বাংলাদেশের (নিসচা) হিসাবে বাংলাদেশে ২০১৯ সালে সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা ও দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দুইই আগের বছরের চেয়ে বেড়েছে বলে তদের বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৮ সালের তুলনায় ২০১৯ এ সড়ক দুর্ঘটনায় ৭৮৮ জন বেশি নিহত হয়েছেন। বুয়েটের অ্যাক্সিডেন্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউট মনে করে, সড়ক দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে ঢাকা শহরটা খুবই বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে। পথচারীরা ফুটপাত ব্যবহার করতে পারছেন না। তারা রাস্তায় নেমে হাঁটছেন। রাস্তায় অতিরিক্ত গাড়ির চাপও রয়েছে। এতে দুর্ঘটনা ঘটে যায়।

এছাড়াও সারাদেশের সড়ক ও মহাসড়কে অদক্ষ চালকের বেপরোয়া গাড়ি চালানো, খামখেয়ালিপনা, জনসচেতনতার অভাব এবং দায়ী চালকের বিরুদ্ধে কঠিন শাস্তির বিধান না থাকায় অহরহ ঘটছে সড়ক দুর্ঘটনা। প্রতিদিনই যন্ত্রদানবের হত্যার শিকার হয়ে দেশের বহু জ্ঞানী, গুণী, বুদ্ধিজীবী, নিস্পাপ শিশু থেকে বৃদ্ধ, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী প্রাণ হারাচ্ছেন। চিরদিনের মত পঙ্গুত্ব বরণ করতে হয়েছে অনেককেই। দুর্ঘটনার জন্য বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা এবং পুলিশ অনেকাংশে দায়ী। রাজধানীর একমাত্র জাতীয় অর্থপেডিক (পঙ্গু) হাসপাতালে প্রতিনিয়ত রোগীদের বেশিরভাগই সড়ক দুর্ঘটনায় শিকার ব্যক্তিরা ভর্তি হচ্ছেন।

সড়ক নিরাপত্তার জন্য সরকার একের পর এক নির্দেশনা ও সিদ্ধান্ত দিয়েই যাচ্ছে। কিন্তু এগুলোর বাস্তবায়ন না হওয়ায় সড়কে বিশৃঙ্খলা চলছেই। এ কারণে প্রতিদিনই প্রাণ ঝরছে সড়ক-মহাসড়কে। বিভিন্ন সময়ে আন্দোলন-বিক্ষোভ ও কোন কাজ হচ্ছে না। প্রায় প্রতিদিন দুর্ঘটনায় সড়কে পড়ছে লাশ। খালি হচ্ছে মায়ের কোল।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা প্রতিষ্ঠান (এআরআই)-এর মতে, দুর্ঘটনার অধিকাংশই ছিল বেপরোয়া গতি। যার জন্য ৯০ শতাংশই চালক-হেলপাররা দায়ী। নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের পর কিছুদিন সড়কে মৃত্যুর মিছিল থামলেও এখন আবারও সেই পুরোনো অবস্থা। নিয়মের তোয়াক্কা করছে না কেউ। জেব্রা ক্রসিং থাকলে সেখানে যেন গাড়ির গতি আরও বেড়ে যায়। যাত্রী ওঠানো-নামানোর চিত্র তো আরও ভয়াবহ। এছাড়া দুই বাসের প্রতিযোগিতা দেখলে আতঙ্ক ছড়ায় যাত্রীদের মাঝেই। এসবের জন্য পরিবহনের মালিকরাই দায়ী। তারাই চালকদের বাধ্য করে এসব পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে।
চালকদের প্রশিক্ষণ, যানবাহনের ফিটনেস আধুনিকায়ন, রুট ফ্রাঞ্চাইজি সিস্টেমে বাস চলাচল নিশ্চিত করা, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য বন্ধ, সড়কে বিশৃঙ্খলা ও অরাজকতা বন্ধ করা, শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে সরকারের অঙ্গীকার আজও দৃশ্যমান হয়নি।

দুর্ঘটনা তাকেই বলে যা কখন, কিভাবে, কোথায় ঘটবে তা মানুষ জানে না। কিন্তু যেটি আমাদের সৃষ্টি করা বা সহজে দূর করা যায় কিংবা সুনির্দিষ্ট কারণে ঘটে সেটিকে আর দুর্ঘটনা বলা যায় না, সেটি নিঃসন্দেহে হত্যাযজ্ঞ। এর জন্য সরকার কোনভাবেই দায় এড়াতে পারবে না। যখনই কোনো চালককে আটক করা হয়, দেখা যায় তার রুট পারমিট অথবা লাইসেন্স কোনো কিছু একটা নেই। অথবা লাইসেন্স থাকলেও হালকা যানের লাইসেন্স নিয়ে ভারী যান চালাচ্ছেন। এসব ব্যাপারে যারা গাফিলতি করছেন তাদের গাফিলতি দেখার দায়িত্ব কি সরকারের নয়? আমাদের দেশে চালককে দায়ী করতে গিয়ে প্রকৃত দোষীরা বাইরে থাকছেন? এটা তাদের জন্য একটা পুরষ্কারও বটে। কিন্তু চালককে যতই শাস্তি দেওয়া হোক না কেন, যেহেতু তারা কারণ না তাই যারা এটার জন্য মূল দায়ী তাদের যদি শাস্তি দেওয়া যায় তাহলে এই প্রতিযোগিতার বা পচা সিস্টেমটার পরিবর্তন আসবে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন, বাংলাদেশের প্রতি হাজার মানুষের বিপরীতে যান্ত্রিক যানের সংখ্যা মাত্র দু’টি। অথচ সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশেই বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি গাড়ি ব্যবহার করেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা। প্রতি ১ হাজার মার্কিন নাগরিকের মধ্যে গাড়ির সংখ্যা ৭৬৫টি। অথচ ওই দেশে বছরে প্রতি ১০ হাজার গাড়িতে মৃত্যুর হার মাত্র দু’জন।
সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে আমাদের সতর্ক হতে হবে, এবং মন-মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে। আইন করে দেশের সবকিছুর সমাধান করা যাবে না।

ওসমান গনি
সাংবাদিক ও কলামিস্ট