বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ

ওসমান গনি: বাংলাদেশ একটি স্বাধীন রাষ্ট্র। বাঙালি জাতির জন্য একটি নির্দিষ্ট স্বাধীন ভূখণ্ড। বাংলাদেশের বর্তমান সীমান্ত তৈরি হয়েছিল ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনামলের পর। বর্তমান বাংলাদেশ অঞ্চল তখন ‘পূর্ব বাংলা’ নামে পরিচিত ছিল। যেটি নবগঠিত দেশ পাকিস্তানের পূর্ব অঞ্চল হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। পূর্ব বাংলা থেকে পূর্ব পাকিস্তান নামে পরিবর্তন করা হয়। পাকিস্তানি শাসনের অবসান হলে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রথম মুখোমুখি হয় সীমানা চিহ্নিতকরণ সমস্যার। তিনদিকে ভারতের সীমান্ত থাকায় ১৯৭৪ সালে দেশটির তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে সীমান্ত চুক্তি স্বাক্ষর করেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই চুক্তির আলোকেই বাংলাদেশের মানচিত্র চূড়ান্ত হয়।

এশিয়া মহাদেশের মধ্যে অবস্থিত একটি ছোট দেশ। ৮ টি বিভাগ, ৬৪ টি জেলা, ১১টি সিটিকর্পোরেশন,৪৮৬টি উপজেলা, ৪৬২ টি ইউনিয়ন, ৮৭৩২০ টি গ্রাম নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ। যার আয়তন ৯১৪৭৫৭০ বর্গ কিলোমিটার। কিন্তু এই ছোট আয়তনের দেশের লোকসংখ্যা ১৮ কোটি। ঘনবসতিপূর্ণ একটি দেশ হলো বাংলাদেশ। এই দেশটি সৃষ্টির সময় ছিল অর্থনৈতিকভাবে নাজুক অবস্থা। ব্রিটিশ সরকারের শাসনের পর এই দেশটি ছিল পশ্চিম পাকিস্তানের সাথে সংযুক্ত। বর্তমানে যেটি বাংলাদেশ হিসাবে সারাবিশ্বের মানচিত্রে পরিচিত সেটি ছিল পূ্র্ব পাকিস্তান। তৎসময়ে পশ্চিম পাকিস্তান বিভিন্ন ভাবে পূর্ব পাকিস্তানের লোকজনদের কে শোষণ করত। পূ্র্ব পাকিস্তানের লোকজন কষ্ট করে যা কিছু উৎপাদন করত তার সিংহভাগ ই নিয়ে যেত পশ্চিম পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী। তারা বিভিন্নভাবে পূর্ব পাকিস্তানের লোকজনদের উপর নির্যাতন করত। এক সময়ে পূর্ব পাকিস্তানের লোকজন পশ্চিম পাকিস্তানের এসব অন্যায়মূলক কাজের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে বসল। পূর্ব পাকিস্তানের লোকজন বলল, আমরা স্বাধীন রাষ্ট্র চাই, যেই কথা সেই কাজ শুরু হয়ে গেল স্বাধীন রাষ্ট্রের দাবীতে আন্দোলনের কাজ। আর সেই আন্দোলনের পূ্র্ব পাকিস্তানের নেতৃত্ব দিলেন শেখ মুজিবর রহমান। যাকে আজ সারাবিশ্ব বাংলাদেশের বাঙালির জাতির জনক হিসাবে চিনে। আন্দোলন কঠিন থেকে কঠিন হতে লাগল।
পশ্চিম পাকিস্তান তাদের শাসনব্যবস্থা কে অখণ্ডিত রাখার জন্য তারাও মরিয়া হয়ে উঠল। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও তার সহযোদ্ধাদের উপর পশ্চিম পাকিস্তান কঠিন থেকে কঠিনতম নির্যাতনের ষ্ট্রীম রোলার চালাল। কিন্তু শেখ মুজিবর রহমান ও তার সহযোদ্ধারা নাছোড় বন্দা। কোনভাবেই পিছ পা হবার না। যেকোন মূল্যেই হোক দেশ স্বাধীন করে ছাড়বেই। এদিকে পূর্বপাকিস্তানের সকল শ্রেনিপেশার মানুষ শেখ মুজিবর রহমানের নেতৃত্বে একত্র হয়ে যার যার অবস্থান থেকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হয়ে গেল। যার যা কিছু ছিল তাই নিয়ে পশ্চিমাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ল। এসময়ে বাংলাদেশ কে সহযোগীতা করার জন্য এগিয়ে এলো আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত। ভারত তৎসময়ে আমাদের দেশের লোকজনদের কে তাদের দেশে নিয়ে পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য অস্র প্রশিক্ষণ দিয়ে দেশে পাঠাল। তৎসময়ে আমাদের দেশের হাজার হাজার লোক শরণার্থী হিসাবে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল। বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক ছিলেন জেনারেল আতাউল গণি ওসমানী। তার নেতৃত্বে বাংলার মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধ শুরু করল। আমাদের দেশের হাজার হাজার মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের পর ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করে। বাঙালি জাতি পায় লাল সবুজের পতাকা। কিন্তু নির্মম ভাগ্যের পরিণতি আমরা বাঙালি জাতি দেশ স্বাধীনতা লাভের কিছু দিন পর আমরা হারালাম আমাদের স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে। দেশের স্বাধীনতা লাভের পর যখন দেশ ভগ্নদশা অবস্থায় ছিল তখন সেই দেশটিকে পরিপূর্ণ ভাবে গোছানোর সময় দিলেন না বাংলার কতিপয় কুখ্যাত সামরিক সৈনিক। তারা ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বপরিবারে জাতির জনক ও বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা শেখ মুজিবর রহমান কে হত্যা করে। যিনি একটি রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রের নাগরিকদের শোষণ মুক্ত ও পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করার জন্য তার জীবন যৌবনের বেশির ভাগ সময় জেল জুলুম ও নির্যাতনের মধ্যে কাটিয়েছেন। শুধুমাত্র বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য, বাংলার মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার আদায়ের জন্য। কিন্তু সেই নিমকহারাম জাতি আমরা বাঙালি। আমাদের বিবেক বাধাদিল না, আমরা ক্ষমতার লোভে মেরে ফেললাম আমাদের তথা বাঙালি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান কে।

লেখক- ওসমান গনি (সাংবাদিক ও কলামিস্ট)